Advertisement
৩০ নভেম্বর ২০২২
woman

স্বামী বদলে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে খুন!

পুলিশ অভিযুক্ত বিশাল কুমার, তার ভাই যোগেন্দ্রকে গ্রেফতার করেছে। খুনে সাহায্য করার জন্য সোনু নামে এক যুবককেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

ধৃত তিন জন।

ধৃত তিন জন।

সংবাদ সংস্থা
বিজনোর (উত্তরপ্রদেশ) শেষ আপডেট: ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮ ১৫:০৯
Share: Save:

নিজের স্ত্রীকে ভাল লাগত না। উল্টে মনে ধরেছিল স্ত্রীয়ের বোনকে।

Advertisement

আবার বোনের স্বামীর ক্ষেত্রে বিষয়টা ছিল ঠিক উল্টো। তিনি মনে মনে বড় শালিকাকে (স্ত্রীয়ের বড় বোন) চাইতেন।

আর তাই দুই ভায়েরা ভাই মিলে পরিকল্পনা করেছিলেন স্ত্রী-বদলের। স্বামী বিশালের পরিকল্পনায় রাজি ছিলেন তিন জনই। বাদ সাধেন কেবল বিশালের স্ত্রী লক্ষ্মী। উল্টে বোনের স্বামীকে অপমান করেন। চড়ও মারেন। সেই অপমান মানতে পারেননি দুই ভায়েরা। তখনই মনে মনে বদলা নেওয়ার পরিকল্পনা করে ফেলেন তাঁরা। সেই মতো বছর তেইশের স্ত্রীকে খুন করল বিশাল নামে ওই ব্যক্তি। স্ত্রীকে খুন করার কাজে সাহায্য পান ভায়েরা ভাইয়েরও।

ঘটনাটা উত্তরপ্রদেশের। পুলিশ অভিযুক্ত বিশাল কুমার, তার ভায়েরা ভাই যোগেন্দ্রকে গ্রেফতার করেছে। খুনে সাহায্য করার জন্য সোনু নামে এক যুবককেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

Advertisement

পুলিশের জেরার খুনের কথা স্বীকার করেছেন বিশাল। তিনি জানিয়েছেন, স্ত্রী লক্ষ্মীকে তাঁর পছন্দ ছিল না। বরং তার ভাল লাগত যোগেন্দ্রর স্ত্রীকে। অন্য দিকে, যোগেন্দ্রর পছন্দ ছিল লক্ষ্মীকে। সে জন্যই স্ত্রী বদলের পরিকল্পনা করেছিলেন তাঁরা।

আরও পড়ুুন: জেল থেকে গব্বরের ফোন প্রোমোটারকে, ‘৫ লাখ নেহি দিয়া তো, গোলি সে টপকা দেঙ্গে’

কিন্তু, এই প্রস্তাব শোনার পর তা মানতে চাননি লক্ষ্মী। উল্টে তিনি যোগেন্দ্রকে অপমান করেন। পুলিশের জেরায় বিশাল স্বীকার করেছে, এর পরই লক্ষ্মীকে খুন করার পরিকল্পনা করেছিল তারা।

রায়পুর সদরের পুলিশ কর্তা রাজেন্দ্র সিংহ জানিয়েছেন, খুনের ঘটনাটি ঘটে গত ৩০ নভেম্বর। ওই দিন হায়জায়পুর গ্রামে বাপের বাড়ি যাওয়ার কথা ছিল লক্ষ্মীর। সে দিন রাত ৯টা নাগাদ ফোন করে স্ত্রীকে তাঁদের আজাদ কলোনির বাড়ি থেকে বার হতে বলেন বিশাল। সেই মতোই সে দিন রাতে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন লক্ষ্মী।

পুলিশ জানিয়েছে, শ্বশুরবাড়ি থেকে ১০০ মিটার দূরে এক জায়গায় লক্ষ্মীকে খুন করেন বিশাল এবং যোগেন্দ্র। এই কাজে সাহায্য করেন সোনু। পরে দেহটি ফেলে পালিয়ে যায় তিন জনই।

ইতিমধ্যেই মেয়ের খোঁজখবরও শুরু করে লক্ষ্মীর পরিবার। বিশালের কাছ থেকে এ বিষয়ে কোনও সদুত্তর না পেয়ে তাঁরা থানায় অভিযোগ করেছিলেন।

আরও পড়ুন: যোগীর বাড়িতে নিহত ইনস্পেক্টরের পরিবার, মূল অভিযুক্ত যোগেশকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ বজরং দলের

বুধবার দেহটি প্রথম নজরে আসে লক্ষ্মীর এক অবিবাহিত বোনের। তিনি বিষয়টি পুলিশে জানান। অভিযোগ জানানো হয় বিশালের নামেও। বুধবার রাতেই গ্রেফতার করা হয় বিশালকে। জেরার সব দোষ স্বীকার করেছে বিশাল।

(রাজনীতি, অর্থনীতি, ক্রাইম - দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘটে যাওয়া গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.