Advertisement
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

অমরনাথ হানা নিয়ে কেন্দ্র-কাশ্মীর তরজা

সিআইডি রিপোর্টেও কেন্দ্রকে এই তথ্য জানিয়েছে মেহবুবা মুফতির প্রশাসন। কিন্তু বাইকে করে এসে জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে পালাবে— এই তত্ত্ব মানতে চাইছেন না স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কর্তারা। তাঁদের মতে, কাশ্মীরে বাইকে করে জঙ্গিরা পুলিশ-সেনা চৌকি আক্রমণ করছে এমন ঘটনা নজিরবিহীন।

সোমবার রাতে জঙ্গি হামলার পর অনন্তনাগে কড়া নিরাপত্তা। ছবি: পিটিআই

সোমবার রাতে জঙ্গি হামলার পর অনন্তনাগে কড়া নিরাপত্তা। ছবি: পিটিআই

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৭ ০৪:০২
Share: Save:

চব্বিশ ঘণ্টা কেটে গিয়েছে। অমরনাথ যাত্রীদের উপরে হামলাকারী একজনও গ্রেফতার হয়নি। কিন্তু হামলার দায় ও কারণ ঘিরে শুরু হয়েছে কেন্দ্র-কাশ্মীর চাপানউতোর।

কাল রাতে সিআরপিএফ জানিয়েছিল, জঙ্গিরা প্রথমে খানবালে তাদের চেক পোস্টে হামলা চালায়। প্রাথমিক ভাবে কেন্দ্রকে জানানো হয়, জঙ্গিরা বাইকে করে এসেছিল, প্রতিরোধের মুখে তারা পালিয়ে যায়। ফিরে যাওয়ার পথে জঙ্গিরা বাসটির উপর হামলা চালায়। সিআইডি রিপোর্টেও কেন্দ্রকে এই তথ্য জানিয়েছে মেহবুবা মুফতির প্রশাসন। কিন্তু বাইকে করে এসে জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে পালাবে— এই তত্ত্ব মানতে চাইছেন না স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কর্তারা। তাঁদের মতে, কাশ্মীরে বাইকে করে জঙ্গিরা পুলিশ-সেনা চৌকি আক্রমণ করছে এমন ঘটনা নজিরবিহীন। আধা সেনার বক্তব্য অতিরঞ্জিত কি না, তা খতিয়ে দেখতে সিআরপিএফের কাছে রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: লস্কর না হিজবুলের হাত, ধন্দে গোয়েন্দারা

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, হামলা চালাতে রাস্তার ধারে লুকিয়ে বসে ছিল জঙ্গিরা। মন্ত্রকের এক কর্তার মতে, ‘‘কোনও ভাবে জঙ্গিরা জানতে পারে, সন্ধ্যার মুখে গুজরাতি তীর্থযাত্রীদের নিয়ে একটি বাসের চাকা খারাপ হয়ে গিয়েছে এবং তাদের সঙ্গে পুলিশ পাহারা নেই। তার পরেই হামলার জন্য বসে ছিল তারা।’’ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক বলছে, জঙ্গিরা চেয়েছিল চালককে হত্যা করে বাসের নিয়ন্ত্রণ নিতে। কিন্তু বাস না থামায় গুলি চালায় তারা। কেন্দ্রের প্রশ্ন, যাত্রী ভর্তি বাস সন্ধ্যার মুখে খারাপ হয়েছে। এ নিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে কোনও তথ্য ছিল না। এটা গোয়েন্দা ব্যর্থতা।

বাস বা তীর্থযাত্রীদের কেন রেজিস্ট্রেশন হয়নি, তা নিয়েও শুরু হয়েছে দ্বন্দ্ব। কেন্দ্রের মতে, এটা রাজ্যের দায়িত্বে। আর রাজ্যের যুক্তি, কনভয়ের সঙ্গে গেলে বেশি সময় লাগে। সেই কারণে বহু গাড়ি এ ভাবে যেতে চায় না। সাধারণ পর্যটক হিসেবেই যাত্রীদের নিয়ে যাওয়া হয়। তারা বোঝাতে চান, অমরনাথে যাওয়ার সঙ্গে তাদের সম্পর্ক নেই। গুজরাতের গাড়িটি সম্ভবত সেই যুক্তি দেখিয়েই নাম নথিভুক্ত করায়নি। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের প্রশ্ন, যাত্রীরা নাম না লিখিয়ে কী ভাবে অমরনাথে ঘুরে এলেন?

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE