×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৭ মে ২০২১ ই-পেপার

শৈশব এখন গৃহবন্দি। ওদের বাড়িতেই ব্যবস্থা করে দিন শারীরচর্চার। টিপস দিচ্ছেন ফিটনেস এক্সপার্ট ইয়াসমিন করাচিওয়ালা

হেসেখেলে বড় হোক

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০১ মে ২০২১ ০৫:৩৯
হুলা হুপ ঘোরানো বা স্কিপিংয়ে খেলার আনন্দও পাবে, ব্যায়ামও হবে।

হুলা হুপ ঘোরানো বা স্কিপিংয়ে খেলার আনন্দও পাবে, ব্যায়ামও হবে।

স্কুল অনলাইনে, আর করোনার দাপটে বাইরে বেরোনোও বন্ধ ছোটদের। বিশেষ করে বারো-তেরো বছরের ছোট ছেলে-মেয়েদের সময় কাটছে চার দেওয়ালের মাঝে। সারা দিন সন্তান যেন মোবাইল, টিভিতে বুঁদ হয়ে বসে না থাকে, তার জন্য যেমন থাকবে মা-বাবার সঙ্গ, বইয়ের বন্ধুত্ব, তেমনই প্রয়োজন শারীরচর্চা।

শারীরচর্চা প্রয়োজন কেন?

বাড়িতে বসে ওদের সময় কাটছে। তাই ওজন বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এমনিতেও এখন জাঙ্ক ফুডের দৌলতে অনেক শিশুই ওভারওয়েট। ব্যায়ামে মেদ তো ঝরবেই। সক্রিয়তাও বাড়বে। প্রত্যেক ব্যায়ামেই কিছু চ্যালেঞ্জ নিতে শিখবে। যেমন, কেউ হয়তো দশটা করে সিটআপ করছে। এক দিন যদি সে ১২টা করতে পারে, তা হলেই সে অ্যাচিভ করার আনন্দ পাবে। কিছুটা সময়ও কাটবে ইতিবাচক ভাবে। তা ছাড়া অনেক শিশুই খেতে চায় না। শারীরচর্চায় তাদের খিদেও বাড়বে।

Advertisement

কী ধরনের ব্যায়াম করবে?

পুশআপ: শিশুরা দেওয়াল ধরে পুশআপ করতে পারে। দেওয়ালে হাতে ভর দিয়ে পুশআপ করা যায়।
সিটআপ: এই ব্যায়াম সব শিশুই করতে পারে। এই ধরনের ব্যায়ামে পেটের মেদও কমে। তাই ভুঁড়ি থাকলে আপনার সন্তানকে রোজ সিটআপ করাতে পারেন।
স্টেপআপ: এটি হল সিঁড়িতে ওঠানামা করা। বাড়ির সিঁড়িতে এ ধরনের ব্যায়াম করতে পারে। একটি সিঁড়ি উঠবে আর নামবে। এ ভাবে বেশ কয়েকবার করবে। ছোট বক্স বা পিঁড়ির উপরেও এই ব্যায়াম করা যায়।
স্কোয়াট: এই ব্যায়ামও দেওয়ালে হেলান দিয়ে করা যায়। স্কোয়াট পজ়িশনে বসতে শেখান প্রথমে।
জাম্পিং জ্যাক: এই ধরনের ব্যায়াম এক জায়গায় দাঁড়িয়েই ওরা করতে পারবে আর মজাও পাবে।

খেলার ছলে

হুলা হুপ, স্কিপিং রোপ বা বল কিনে দিন। হুলা হুপ ঘোরানো বা স্কিপিংয়ে খেলার আনন্দও পাবে, ব্যায়ামও হবে। বল টস করা শেখাতে পারেন। অন্য দিকে ব্যালান্সিং শেখানো যায়। এক পায়ে কে কতক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে পারে... এমন কোনও খেলার মাধ্যমে সহজেই ওরা ব্যালান্সিংও শিখে যাবে। আর খেলার আনন্দে মেতে উঠলে দেখবেন ওদের এই ধরনের ব্যায়ামের সময়ও বাড়বে। শারীরচর্চার মাঝে এই ধরনের খেলা রাখলে ওরাও আগ্রহী হবে।

ডায়েটও জরুরি

প্রত্যেক দিনের ডায়েটে ভিটামিন ও খনিজ-সমৃদ্ধ খাবার রাখুন। ট্রান্স-ফ্যাট যুক্ত খাবার কমাতে হবে। কোল্ড ড্রিঙ্কস, চিপস, কেক, চকলেট কমিয়ে তার জায়গায় ফল, বাদাম খাওয়ান। ফলের রস না করে চিবিয়ে খেতে বলুন। এতে ফলের ফাইবারও ওরা পাবে।

সুস্থ থাকতে ঠিক ডায়েট যেমন দরকার, তেমনই জরুরি শারীরচর্চা।

Advertisement