গর্ভসঞ্চার হচ্ছে না। ডাক্তার বলেছেন, সমস্যা রয়েছে কেবল ডিম্বাণুতে। এমন হলে কিছু দিন ফার্টিলিটি ডায়েট খেয়ে দেখুন কী হয়৷ তেমন কিছু নয়, দৈনন্দিন যে খাবার খান, তাতে সামান্য রদবদল আনলেই হবে৷ ভাত–ডাল–রুটি–পাস্তা তো এমনিই খাচ্ছিলেন, সেগুলোকে হোল গ্রেনে বদলে ফেলুন৷ অর্থাৎ লাল বা বাদামি চালের ভাত, খোসাওলা ডাল, আটার রুটি, হোল গ্রেন পাস্তা–নুডুলস ইত্যাদি খান৷ অপকারি ফ্যাট ছেঁটে উপকারীদের দিকে মন দিন৷ মাছ–মাংস–ডিমের পাশাপাশি ডাল–রাজমা–ছোলা–দুধ জাতীয় নিরামিষ প্রোটিন খান৷ মাছ-মাংসও খান৷ মাঝে মধ্যে এক–আধ স্কুপ আইসক্রিমও খেতে পারেন৷

ভাবছেন, এত আরামের ডায়েটে কাজ হবে কি না! তা হলে শুনুন, ‘নার্সেস হেল্থ স্টাডি’ নামের স্টাডিতে ৮ বছর ধরে ৮ হাজার বন্ধ্যা মহিলার উপর পরীক্ষানিরীক্ষা করে  তবে বিজ্ঞানীরা এই ডায়েট বানিয়েছেন৷ এবং তাতে কাজ হয়েছে আশাতীত ভাবে৷

ফার্টিলিটি ডায়েট খেলে ডিম্বাণুর সংখ্যা ও গুণগত মানের উন্নতি হয়৷ আশঙ্কা কমে হাই কোলেস্টেরল–প্রেশার, ডায়াবিটিস, হৃদরোগ, স্ট্রোক জাতীয় অসুখবিসুখের৷ ওজন বশে থাকে৷ তবে ডাক্তার দেখানো যেন বন্ধ করে দেবেন না৷ তাঁর কথা মতো চলুন, পরীক্ষানিরীক্ষা করান, ওষুধপত্র খান৷ সঙ্গে খান এই ডায়েটও৷ চিকিৎসার ফলাফল অনেক ভাল হবে৷

আরও পড়ুন: ডায়াবিটিসে আক্রান্ত কি না, জানান দিতে পারে আপনার চোখ!

  • ট্রান্স ফ্যাট বাদ দিন, ডিম্বাণুর ক্ষতি করা থেকে শুরু করে হাইকোলেস্টেরল, হৃদরোগ, স্ট্রোক, ওজন বাড়া ইত্যাদি সব কিছুর মূলে আছে তার হাত৷ অতএব যে কোনও প্রক্রিয়াজাত খাবার, বেক্ড খাবার, বনস্পতি, মার্জারিন, ভাজাভুজি খাওয়ার আগে দু’বার ভাবুন৷

  • মুফা ও পুফাসমৃদ্ধ খাবার খান, ইনসুলিনের কার্যকারিতা বাড়িয়ে ডায়াবিটিস ও ওজন বৃদ্ধির প্রবণতা ঠেকায় এরা৷ কমায় শরীরের অভ্যন্তরীণ প্রদাহের আশঙ্কা৷ সবে মিলে উপকার হয় ডিম্বাণুর৷ অতএব বিভিন্ন সব্জিজাত তেল— যেমন সর্ষে, সূর্যমুখী, সয়াবিন, অলিভ ইত্যাদি, বিভিন্ন ধরনের বাদাম ও বীজ, অ্যাভোক্যাডো, ঠান্ডা জলের মাছ বিশেষ করে স্যামন, সারডিন, ইলিশ খান মাপ মতো৷ স্যাচুরেটেড ফ্যাটসমৃদ্ধ খাবার যেমন ঘি–মাখন, ডিমের কুসুম, তৈলাক্ত মাংস ইত্যাদি খান কম৷

  • পর্যাপ্ত উদ্ভিজ্জ প্রোটিন খান৷ মাছ–মাংস–ডিমের পাশাপাশি খাদ্যতালিকায় রাখুন মটরশুঁটি, বিনস, সয়াবিন, টোফু, পনির, বাদাম, বীজ ছোলা, রাজমা ইত্যাদি৷ বেশ ভাল পরিমাণে৷

আরও পড়ুন: হার্ট অ্যাটাক ডাকছে কোলেস্টেরল, এখনই রুখে দিন এ সব উপায়ে

  • উপকারী কার্বোহাইড্রেট খান, চট করে হজম হয়ে রক্তে মিশে যায় এমন কার্বোহাইড্রেটের (সরল) বদলে খান ধীর গতিতে হজম হয় এমন কার্বোহাইড্রেট (জটিল) এতে রক্তের সুগার লেভেল ঠিক থাকে৷ ঠিক থাকে ইনসুলিনের কার্যকারিতা৷ আর তাতে ভাল থাকে ডিম্বাণুর মান৷ কাজেই হোল গ্রেন, শাকসব্জি–ফল, বিনস ইত্যাদি খান৷ বাদ দিন সাদা চালের ভাত, ময়দা, চিনি, মিষ্টি, ফলের রস ইত্যাদি৷

  • দুধ খান মাখন না তুলে , অর্থাৎ স্কিম্ড দুধের বদলে খান হোল মিল্ক, ফুল ফ্যাট ইয়োগার্ট, এমনকি মাঝেমধ্যে আইসক্রিমও৷

  • খান মাল্টিভিটামিন সাপ্লিমেন্ট , বিশেষ করে ফোলিক অ্যাসিড, দিনে ৪০০ মাইক্রোগ্রাম করে৷ ডিম্বাণুর মান উন্নত করে সুস্থ সন্তানের জন্ম দিতে এর ভূমিকা আছে৷

  • আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন, যেমন হোল গ্রেন সিরিয়াল, পালং, বিনস, কুমড়ো, টমেটো, বিট ইত্যাদি খেলে বন্ধ্যাত্বের সমস্যা কম থাকে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা৷

  • মিষ্টি স্বাদের ঠান্ডা পানীয় নয়, ঠান্ডা জল খান৷ চা–কফি এমনকি মদও খেতে পারেন মাত্রা রেখে৷ কিন্তু নরম পানীয় মোটে নয়৷ ডিম্বাণুর সমস্যা হতে পারে৷

এ ছাড়া ওজন খুব বেশি বা খুব কম থাকলে পিরিয়ডের গোলমাল হতে পারে৷ তার হাত হবে শুরু হতে পারে ডিম্বাণুর সমস্যা৷ কাজেই ওজন যথাসম্ভব ঠিক রাখার চেষ্টা করুন৷ বিএমআই (ওজনের সূচক) ২০–২৪–এর মধ্যে থাকলে সবচেয়ে ভাল৷ সঠিক খাবার খেয়ে ও হালকা ব্যায়াম করে ধীরে ধীরে ওজন স্বাভাবিক করার চেষ্টা করুন৷ ব্যায়াম করতে হবে৷ তবে মাত্রা রেখে৷ দিনে ৪০–৪৫ মিনিট কি বড়জোর ঘণ্টা খানেক৷