পশ্চিমবঙ্গে যে কারণে বিজেপি আদালতে ছোটে, জম্মু-কাশ্মীরে সেটাই তাদের নজরে স্বাভাবিক! পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চায়েত ভোটে প্রচুর আসনে তৃণমূল প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জেতায় আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিল রাজ্য বিজেপি। সঙ্গে ছিল কংগ্রেস-সিপিএমের মতো অন্য বিরোধীরাও। অভিযোগ ছিল, তৃণমূলের হিংসা ও হুমকির কারণে বিরোধী প্রার্থীরা নির্বাচনে দাঁড়াতে পারেননি। মামলা গড়ায় সুপ্রিম কোর্টে।

জম্মু-কাশ্মীরে সাম্প্রতিক পঞ্চায়েত নির্বাচনে অধিকাংশ আসনে বিজেপি প্রার্থীরা বিনা লড়াইয়ে জেতায় গত কাল এ নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। তিনি বলেন, ‘‘এটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। পশ্চিমবঙ্গেও প্রায় ৩৪ শতাংশ আসনে কোনও লড়াই হয়নি।’’

পশ্চিমবঙ্গ সরকার আদালতে কার্যত এই একই যুক্তি দিয়েছিল। রাজ্যের বক্তব্য ছিল, বহু ক্ষেত্রে সংরক্ষিত আসনে বিরোধীরা প্রার্থী দিতে ব্যর্থ হয়। যার দোষ এসে পড়ে শাসক শিবিরের ঘাড়ে। 

ত্রিপুরার পঞ্চায়েত ভোটে প্রায় ৯৬ শতাংশ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছে বিজেপি। সেই প্রসঙ্গ টেনে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘কিছু না জেনেই আমাদের বিরুদ্ধে মামলা আর হামলা করতেই তো বিজেপি ব্যস্ত থাকে। আর নিজেদের পালা এলে ওঁরা বুঝতে পারেন যে ব্যাপারটা নতুন না।’’

আরও পড়ুন: ঘোষণার সময় পিছিয়ে গুরুতর প্রশ্নে নির্বাচন কমিশন

বিজেপির মতে, দুই রাজ্যের পরিস্থিতি এক করে দেখাটা ভুল। দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বক্তব্য, জম্মু-কাশ্মীরের প্রধান দু’টি রাজনৈতিক দল পঞ্চায়েত ভোট বয়কট করায় বিজেপি বিনা লড়াইয়ে জিতেছে বহু আসনে। আর পশ্চিমবঙ্গে কী ভাবে বিরোধীদের ভয় দেখিয়ে আটকানো হয়েছে তা গোটা দেশ দেখেছে। বোমা-গুলি চলেছে। মানুষ মারাও গিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের বক্তব্য, ‘‘ত্রিপুরায় আমরা ৯৬% আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতলেও কাউকে একটা থাপ্পড় মারার অভিযোগও কি উঠেছে? জম্মু-কাশ্মীরে অন্যরা ভোট বয়কট করেছে। তাই বিনা লড়াইয়ে জিতেছি।’’

রাজনাথের পশ্চিমবঙ্গ সংক্রান্ত মন্তব্যকে হাতিয়ার করেই আজ তৃণমূল-বিজেপি আঁতাঁতের অভিযোগ তুলে সরব হয় সিপিএম। দলের বক্তব্য, ‘‘জম্মু-কাশ্মীরে বিনা লড়াইয়ে বিজেপির জয়ের যুক্তি সাজাতে গিয়ে বাংলার পঞ্চায়েত ভোটে লুটপাটকে অনুমোদন দিয়েছেন রাজনাথ সিংহ। বিজেপি-তৃণমূলের বিরোধিতা যে স্রেফ ছায়াযুদ্ধ তা ফের রাজনাথের বক্তব্যে স্পষ্ট হয়ে গেল।’’ বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তীর মন্তব্য, ‘‘ঝুলি থেকে বেড়াল বেরিয়ে পড়েছে। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের প্রশ্নে তৃণমূল-বিজেপি যে একই পথের পথিক, তা ফের প্রমাণিত হল।’’ 

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রর মন্তব্য, ‘‘কাশ্মীরের ভোটের প্রেক্ষিতে পশ্চিমবঙ্গের তুলনা টানা হচ্ছে। এতেই স্পষ্ট যে দাদা-দিদির মধ্যে কোনও তফাত নেই। সে জন্যই কেন্দ্রে বিজেপির বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই। পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল।’’