বসন্তকুঞ্জ থেকে দিল্লিরকাপসেরা এলাকা। বাসে যেতে সময় লাগে ঘণ্টাখানেকেরও কম। কিন্তু ওই স্বল্প সময়ের সফরই যে দুঃস্বপ্নে বদলে যাবে তা বোধহয় ভাবেননি দিল্লির এক তরুণী।

বাসের সিটে তরুণীর সামনে বসেই হস্তমৈথুন করছেন এক ব্যক্তি। ওই তরুণী প্রতিবাদ করেন। কিন্তু তাঁর চিৎকার-চেঁচামেচিতেও নির্বিকার থাকেন ওই ব্যক্তি।আরও নির্বিকার তাঁর বাসের সহযাত্রীরা। শেষে নিজেই ওই ব্যক্তিকে শায়েস্তা করতে সিট থেকে উঠে পড়েন তিনি। চড়চাপড় মেরে বাস থেকে নামিয়ে ওই ব্যক্তিকে পুলিশের হাতে তুলে দেন।

মঙ্গলবার দিল্লির এক বেসরকারি বাসে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশে অভিযোগ করেছে ওই তরুণী। এর পর ওই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

 

ইতিহাসের পাতায় আজকের তারিখ, দেখতে ক্লিক করুন— ফিরে দেখা এই দিন

 

সংবাদমাধ্যমের কাছে ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে ওই তরুণী জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তিকে হস্তমৈথুন করতে দেখে বারণ করেন তিনি। তা সত্ত্বেও একই কাজ করে যেতে থাকেন ওই ব্যক্তি। এর পর চিৎকার শুরু করে দেন তরুণী। কিন্তু, তাতেও থামেননি মুকেশ নামে ওই ব্যক্তি। ওই তরুণীর দাবি, “ওই লোকটাকে ধরে মারধর করা সময়ও বাসের কেউ সাহায্য করতে এগিয়ে আসেননি।”

আরও পড়ুন: রাতের নিউটাউনে অটোর মধ্যেই যুবতীকে ধর্ষণের চেষ্টা

দিল্লি পুলিশের ডেপুটি কমিশনার বিজয় কুমার বলেন, “অভিযুক্তের পরিচয় জানা গিয়েছে। তাঁর নাম মুকেশ কুমার রঞ্জন।একটি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সংস্থায় চাকরি করেন। ঘটনার সময় মত্ত অবস্থায় ছিলেন মুকেশ। বাসে জনা তিরিশেক যাত্রী থাকলেও তরুণীর সাহায্যের আবেদনে সাড়া দেননি কেউ।”

আরও পড়ুন: প্রতিবাদ নেই, জলসায় গিয়ে তাই বন্ধ হয় না হেনস্থাও

দিল্লির বাসে হস্তমৈথুনের ঘটনা এই প্রথম নয়। গত ফেব্রুয়ারিতেও দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে লক্ষ্য করে একই ঘটনা ঘটিয়েছিলেন এক ব্যক্তি। গোটা ঘ়টনাটা জানিয়ে ফেসবুকে তা নিয়ে পোস্ট করেন ওই ছাত্রী। দিল্লি ছাড়াও কলকাতাতেই গত মে মাসে একই কাণ্ড ঘটে।

(কলকাতা শহরের রোজকার ঘটনার বাছাই করাবাংলা খবরপড়তে চোখ রাখুন আমাদেরকলকাতাবিভাগে।)