গত কয়েক মাসে রাজ্যের বিভিন্ন বেআইনি মদের দোকান থেকে প্রায় এক হাজার লিটার বেআইনি মদের বোতল বাজেয়াপ্ত করেছিল উত্তরপ্রদেশের বরেলি ক্যান্টনমেন্ট থানার পুলিশ। আর সেই থানারই মালখানা থেকে সেই সমস্ত বোতলের মদ সাফ করে দিল কিনা ইঁদুরদের ‘গ্যাং’! এমনটাই দাবি সেই থানার কর্তাদের।

প্রায় ১০০০ লিটার মদ বিভিন্ন প্লাস্টিকের পাত্রে এই স্টোররুমে রাখা ছিল বলে জানিয়েছে ওই থানার পুলিশ। নিয়মমাফিক বাজেয়াপ্ত জিনিস কয়েক দিন পর নষ্ট করে দিতে হলেও এ ক্ষেত্রে তা করা হয়নি। এরপর ওই মালখানায় একটি কুকুর ঢুকে মারা যায়। দুর্গন্ধ ছড়াতে থাকে। সেই কুকুরটির মৃতদেহ বের করতে গিয়ে ওই মালখানার দরজা খুলতেই হতভম্ব হয়ে যান উপস্থিত পুলিশকর্তারা।

তাঁরা দেখেন যে, বাজেয়াপ্ত করে রাখা গ্যালন গ্যালন মদের বোতলের সারি ফাঁকা! কিছু ফাঁকা মদের বোতলের পাশে অনেক ইঁদুরকে ঘুরে বেড়াতেও নাকি দেখা গিয়েছে বলে জানানো হয়েছে। এর পরেই মদ চুরির দোষ পড়ে ইঁদুরদের দলের উপর।

কিন্তু ওই সমস্ত বাজেয়াপ্ত করা মদের বোতল নষ্ট করে ফেলা হল না কেন? থানার তরফে জানানো হয়েছে, উপরমহল থেকে নির্দেশ না আসাতেই সেই কাজ করা সম্ভব হয়নি।

আরও পড়ুন: কার্গিল শহিদের নামে মাকড়সার নাম রাখলেন গুজরাতের পতঙ্গবিদ

পুলিশ অবশ্য এই মদ-চোরদের খুঁজে পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী। বরেলির পুলিশ সুপার অভিনন্দন সিংহ এই ঘটনা ঘটার পিছনে ঠিক কী কারণ আছে তা খতিয়ে দেখতে পূর্নাঙ্গ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। ইঁদুরদের দল দায়ী থাকলে সেই ইঁদুরের ‘গ্যাং’টিকে পাকড়াও করা হবে বলেও জানান তিনি!

আরও পড়ুন: চণ্ডীগড়ের পাঁচ তারা হোটেলের স্পা-তে বিদেশি মহিলাকে ধর্ষণ!

গত বছর বিহারেও এরকম একটি ঘটনা ঘটেছিল। বিহার পুলিশ দাবী করেছিল যে বাজেয়াপ্ত করা প্রায় ৯ লক্ষ লিটার মদ নষ্ট করে গিয়েছিল ইঁদুর!