মাটিতে মায়ের নিথর দেহ। পাশে বসে বছর দুয়েকের এক খুদে মেয়ে। মাকে বারবার ডাকছে। তবুও সাড়া মিলছে না। মায়ের সাড়া না পেয়ে কাঁদতে শুরু করে সে। শিশুকন্যার কান্নার শব্দেই ছুটে এলেন প্রতিবেশীরা। আগরার শাহগঞ্জ এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। মহিলার অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ

প্রতিবেশীরা জানান, ওই মহিলা বিবাহিত। একটি ভাড়া ফ্ল্যাটে ছোট শিশু কন্যা আর নিজের প্রেমিকের সঙ্গেই থাকতেন তিনি। গত আড়াই বছর ধরে বছর তিরিশের এই বিবাহিতা তরুণী লিভ ইন সম্পর্কে ছিলেন এক যুবকের।

শাহগঞ্জ এলাকার স্টেশন হাউস অফিসার রাজেশ্বর ত্যাগী বলেন, মহিলার ঘাড়ে গভীর ক্ষতচিহ্ন রয়েছে।  ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলেই জানা যাবে খুন নাকি আত্মহত্যার ঘটনা এটি। তিনি বলেন,  শিশুকন্যার কান্নার শব্দ পেয়েই ছুটে আসেন বাড়িওয়ালা। তিনিই প্রথম পুলিশে খবর দেন। আসেন প্রতিবেশীরাও। কতক্ষণ ধরে মৃতদেহের সঙ্গে শিশুটি বসবাস করছে, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: মৃত জঙ্গির সংখ্যা জানতে চাওয়া লজ্জার, ইস্তফা কংগ্রেস নেতার

মহিলার প্রেমিক ববি বাঘেলকে এই প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। ফারুখাবাদের এক বাসিন্দার সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল এই তরুণীর। কিন্তু স্বামীর সঙ্গে সম্পর্ক ভাল ছিল না। দু’ বছর আগে থেকেই প্রেমিকের সঙ্গে থাকা শুরু করেন ওই তরুণী। তরুণীর আত্মীয়দের তরফে এখনও পর্যন্ত কোনও এফআইআর দায়ের করা হয়নি বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুন: আজ বিকেলেই লোকসভা ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করতে পারে নির্বাচন কমিশন​

সম্প্রতি দিল্লিতে বছর তিরিশের এক তরুণকে খুন করেন তাঁর মা ও লিভ ইন সঙ্গী।