এক বার দু’বার নয়। ৩৯ বারের চেষ্টার পর চাঁদে যেতে পেরেছিল আমেরিকা। তিন মহাকাশচারীকে নামাতে পেরেছিল। আর সেটা সম্ভব হয়েছিল ‘অ্যাপোলো-১১’ মহাকাশযান একাদশী তিথিতে রওনা হয়েছিল বলে।

চন্দ্রাভিযানে মার্কিন সাফল্যের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে সোমবার এই নতুন ‘তত্ত্ব’টি দিলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের প্রাক্তন কর্মী সম্ভাজি ভিড়ে। ২০১৮-র কোরেগাঁও-ভিমা হিংসার ঘটনার অন্যতম অভিযুক্ত সম্ভাজি এখন মহারাষ্ট্রে ‘শিব প্রতিষ্ঠান হিন্দুস্থান’ নামে একটি সংস্থা চালান। 'চন্দ্রযান-২'-এর ল্যান্ডার 'বিক্রম'-এর চাঁদের মাটিতে পা ছোঁয়ানোর দিন গত ৭ সেপ্টেম্বর ছিল অষ্টমী তিথি। আর যে দিন চন্দ্রযান-২ চাঁদের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিল, সেই ২২ জুলাই দিনটিও একাদশী তিথি ছিল না।

এর আগেও বিতর্কিত মন্তব্য করে সংবাদের শিরোনামে এসেছেন সম্ভাজি। নাসিকে বলেছিলেন, “আম খুবই শক্তিশালী ও পুষ্টিকর। আমার বাগান থেকে যে মহিলারা আম খেয়েছেন, তাঁরা সকলেই পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন।’’

আরও পড়ুন- একটা সাফল্যের পিছনে অজস্র ব্যর্থতা! বিজ্ঞানের ইতিহাসই তো ইসরোর সম্বল

আরও পড়ুন- বিক্রমের খবর নেই, ছড়াচ্ছে ভুয়ো খবর​

সোলাপুরে একটি অনুষ্ঠানে গত কাল সম্ভাজি বলেন, “চাঁদে তিন মহাকাশচারীকে নামানোর আগে আমেরিকা ৩৮ বার চেষ্টা চালিয়েছিল। কিন্তু প্রতি বারই ব্যর্থ হয়েছিল। বার বার ব্যর্থ হওয়ার পর মার্কিন বিজ্ঞানীদের মধ্যে এক জন নাসাকে পরামর্শ দেন ‘দিনক্ষণ মেনে চলার ভারতীয় বিধি’ অনুসারেই অ্যাপোলো-১১-এর উৎক্ষেপণের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করতে।

১৯৬৯ সালের ১৬ জুলাই, তিন মহাকাশচারী নিল আর্মস্ট্রং, বাজ অলড্রিন ও মাইকেল কলিন্সকে নিয়ে রওনা হয়েছিল অ্যাপোলো-১১। সম্ভাজির দাবি, সেই দিনটি ছিল একাদশী তিথি। অ্যাপোলো-১১-র তিন মহাকাশচারী চাঁদে পা ছুঁইয়েছিলেন চার দিনের মাথায়, ২০ জুলাই।

সম্ভাজির কথায়, “পরে মার্কিন বিজ্ঞানীরাই অবাক হয়ে গিয়েছিলেন। চাঁদে পৌঁছনোর ব্যাপারে তাঁদের ৩৯ বারের প্রচেষ্টা সফল হওয়ায়। আর সেটা সম্ভব হয়েছিল ‘দিনক্ষণ মেনে চলার ভারতীয় বিধিকে মার্কিন বিজ্ঞানীরা মান্যতা দেওয়ায়। একাদশীর দিন অ্যাপোলো-১১ রওনা হয়েছিল বলেই সাফল্য পেয়েছিল।’’

হিন্দু পঞ্জিকা মতে, চন্দ্রের উজ্জ্বলতার উপর নির্ভর করে মাসে দু’টি পক্ষ হয়। একটি- শুক্ল পক্ষ। অন্যটি, কৃষ্ণ পক্ষ। শুক্ল পক্ষ যত এগয়, চাঁদের উজ্জ্বলতা বাড়ে। আর কৃষ্ণ পক্ষে তার উজ্জ্বলতা কমতে থাকে উত্তরোত্তর। একাদশী তিথিটি দুই পক্ষেরই একাদশতম দিন। একাদশী তিথিটিকে উপবাসের মাধ্যমে পালনেরও প্রচলন রয়েছে ভারতে।