• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বায়ুদূষণ ঠেকাতে ব্যর্থ দিল্লি, ২৫ কোটি টাকা জরিমানার নির্দেশ আদালতের

Delhi Pollution
দূষণ আটকাতে ব্যর্থ দিল্লি সরকার

লাগামছাড়া বায়ুদূষণের জন্য ২৫ কোটি টাকা জরিমানা হল দিল্লি সরকারের। মাত্রাতিরিক্ত বায়ুদূষণের জন্য সোমবার দিল্লি সরকারকে জরিমানা করে ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইবুনাল (এনজিটি) বা জাতীয় পরিবেশ আদালত।

আগামী এক মাসের মধ্যে জরিমানার টাকা জমা করতে দিল্লি সরকারকে নির্দেশ দিয়েছেন। এনজিটি চেয়ারপার্সন বিচারপতি আদর্শ কুমার গোয়েল। এর ফলে কোপ পড়তে পারে রাজ্যের সরকারী কর্মচারীদের পকেটে। কারণ, দিল্লির সরকারি কর্মচারীদের বেতন থেকে একটি নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা কেটে নিয়ে তা দিয়েই ওই জরিমানার অঙ্ক মেটানো হবে।

দিল্লির মুন্ডকা ও টিকরি কালান অঞ্চলের বাসিন্দাদের দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতেই এই রায় দিল এনজিটি। এই অঞ্চলের বাসিন্দাদের অভিযোগ, স্থানীয় শিল্প ও কলকারখানায় নির্বিচারে প্লাস্টিক, চামড়া পোড়ানোর ফলে এবং অন্যান্য রাসায়নিক ব্যবহারের ফলে তাঁদের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে।

আরও পড়ুন: পুলিশের খাতায় ফেরার, অথচ সোশ্যাল মিডিয়ায় লাইভ যোগেশ!

জরিমান টাকা মেটাতে না পারলে বেশ বেকায়দায় পড়বে দিল্লি সরকার। আদালত জানিয়েছে, ওই টাকা না মেটাতে পারলে প্রতি মাসে জরিমানার মূল অঙ্কের উপর অতিরিক্ত ১০ কোটি টাকা জরিমানা হিসেবে বসানো হবে। সেই টাকা কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদে জমা করাতে হবে। দূষণ নিয়ন্ত্রণ করতে তা ব্যবহৃত হবে।

আরও পড়ুন: চলে গেলেন মাস্তানাম্মা, রয়ে গেল তাঁর কীর্তি

সাম্প্রতিক কালে দূষণে জেরবার দিল্লি মহানগরীর ছবি বার বার উঠে এসেছে শিরোনামে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, বহু জায়গায় বায়ুদূষণের মাত্রা বিপদসীমা ছাড়িয়েছে। এ নিয়ে সতর্কবার্তাও দিয়েছেনন বিশেষজ্ঞরা। কয়েক মাস আগেই ‘সেন্টার ফর সায়েন্স অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট’-এর এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ২০১৬ সালে রাজধানীতে বায়ুদূষণের ফলে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ১৫ হাজার মানুষের৷

শুধুমাত্র দিল্লি নয়, বায়ুদূষণের জন্য জরিমানার সম্মুখীন হয়েছে আরও রাজ্য। কিছু দিন আগে পশ্চিমবঙ্গকেও ঠিক একই কারণে জরিমানা করে এনজিটি। গত নভেম্বরে কলকাতা এবং হাওড়ার বায়ুদূষণ রোধে নিষ্ক্রিয়তার জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা করেছিল আদালত।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন