নেতা হওয়ার সহজ উপায় কী? ছত্তীসগড়ে শিক্ষকদিবসের একটি অনুষ্ঠানে ছাত্রদের কাছে সেই গল্পই বলছিলেন মন্ত্রী কাওয়াসি লক্ষ্মমা। কথায় কথায় উঠে এল তাঁর নিদান, ‘বড় নেতা হতে চাইলে পুলিশ সুপার এবং কালেক্টরের কলার চেপে ধরো।’

গত ৫ সেপ্টেম্বর দেশের অন্যান্য স্কুলগুলির মতোই সুকমা জেলার এক সরকারি স্কুলে ছাত্ররা শিক্ষক দিবস উদ্‌যাপনকরছিলেন। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন কংগ্রেস নেতা কাওয়াসি লক্ষমা। তাঁকে ঘিরে বসে থাকা স্কুলের পোশাক পরা ছাত্রদের নানা গল্প বলছিলেন কাওয়াসি। কথার ছলেই তিনি বলেন, ‘একটি ছেলে দিন কয়েক আগেই আমায় জিজ্ঞেস করেছিল কী ভাবে বড় নেতা হওয়া যায়? আমি কী ভাবে এই জায়গায় পৌঁছলাম? আমি তাঁকে সাফ বলি পুলিশ সুপার অথবা কালেক্টারের কলার চেপে ধরাই উপায়।’ মন্ত্রীর গল্প শুনে হাসিতে ফেটে পড়ে ছাত্ররা। ভিডিয়োটি ভাইরাল হতেও সময় নেয়নি।

যদিও সংবাদমাধ্যমের কাছে এই ঘটনার কথা অস্বীকার করেছেন এই কংগ্রেস নেতা। কংগ্রেস মন্ত্রীর দাবি দাবি, তাঁর মন্তব্যকে বিকৃত করা হয়েছে।  তাহলে ঠিক কী বলেছিলেন তিনি? মন্ত্রীমশাইেয়ের যুক্তি, ‘‘আমায় ওরা জিজ্ঞেস করেছিল, কী ভাবে নেতা হওয়া যায়? আমি ওদের বলেছিলাম, লড়াই করতে হবে। জনতার দাবি নিয়ে রাস্তায় নামতে হবে। সবার আগে জরুরি, লেখাপড়া করা। আমি আর কিছু বলিনি, আমার মুখে মিথ্যে বসানো হয়েছে।’’ যদিও ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি মন্ত্রীর বয়ানেকে সমর্থন করে না।

দেখুন সেই ভিডিও:

আরও পড়ুন: হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু, বলছে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট, ঝাড়খণ্ডে গণপিটুনিতে অভিযুক্তদের রেহাই
আরও পড়ুন: রোজ খুন হচ্ছেন হিন্দু-শিখরা, অভিযোগ ইমরান খানের দলের প্রাক্তন এমএলএ-র

অবশ্য লক্ষ্মমাকে নিয়ে বিতর্ক প্রথম নয়। এর আগে তিনি সংবাদ শিরোনামে এসেছিলেন ইভিএম নিয়ে মন্তব্য করে। এক জনসভায় তিনি বলেছিলেন, ইভিএম-এর প্রথম বোতাম ছাড়া অন্য কোনও বোতাম টিপলেই বিদ্যুস্পৃষ্ট হবেন ভোটাররা।