গণধর্ষণের সময়ে নির্ভয়ার সঙ্গে ছিলেন সেই বন্ধু। ৭০ হাজার টাকার বিনিময়ে একটি খবরের চ্যানেলে সে দিনের ঘটনা নিয়ে তিনি সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন বলে শনিবার দাবি করলেন ওই চ্যানেলের এক প্রাক্তন সাংবাদিক। দু’টি হিন্দি খবরের চ্যানেলের ওই প্রাক্তন ম্যানেজিং এডিটর হিন্দিতে একাধিক টুইট করে জানিয়েছেন, এই বিষয়ে নির্ভয়ার ওই বন্ধুর বিরুদ্ধে ‘স্টিং অপারেশন’ চালিয়েছিলেন তাঁরা। সাক্ষাৎকার দেওয়ার জন্য ওই বিপুল টাকা নেওয়ার কথা ছেলেটি ‘অন-ক্যামেরা’ স্বীকার করে নিয়েছিলেন বলে দাবি সাংবাদিকের।

তবে ওই সাংবাদিক জানিয়েছেন, ‘স্টিং অপারেশনের’ ভিডিয়োটি তাঁরা প্রকাশ্যে আনেননি। কারণ তাঁদের মনে হয়েছিল, নির্ভয়া কাণ্ডের অভিযুক্তদের আইনজীবী এই বিষয়টির ফায়দা তুলতে পারেন এবং মামলার রায়ে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে।

সাংবাদিক জানিয়েছেন, ঘটনাটি ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরের। তখন নির্ভয়া কাণ্ডের দোষীদের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল ফাস্ট ট্র্যাক আদালত। এই বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন খবরের চ্যানেল তখন টানা খবর করে যাচ্ছিল। সেই সময় বেশ কয়েকটি খবরের চ্যানেলে নির্ভয়ার এই বন্ধু ওই ঘৃণ্য ঘটনার বিবরণ দিচ্ছিলেন।

প্রবীন ওই সাংবাদিক লিখেছেন, ‘‘তা দেখে আমি আমার সাংবাদিককে বলি নির্ভয়ার বন্ধুকে স্টুডিয়োয় আনার জন্য। কিছু ক্ষণ পরে সেই সাংবাদিক আমাকে জানান, ওই ব্যক্তি তাঁর কাকার সঙ্গে বিভিন্ন স্টুডিয়ো যান এবং সাক্ষাৎকার দেওয়ার জন্য হাজার হাজার টাকা নেন।’’ 

সাংবাদিকের কথায়, ‘‘প্রথমে আমি এই কথা বিশ্বাস করতে পারিনি। যে ব্যক্তির চোখের সামনে তাঁর বান্ধবীকে গণধর্ষণ করা হয়েছে, সেই ব্যক্তি ঘটনাটি বলার জন্য চ্যানেলের সঙ্গে ‘ডিল’ করছেন! কিন্তু আমি টিভিতে নির্ভয়ার ওই বন্ধুকে দেখছিলাম। ওঁর চোখে বিন্দুমাত্র যন্ত্রণা ছিল না। গলাও কাঁপছিল না। আমার খালি মনে হচ্ছিল, যাঁর সামনে তাঁর বন্ধুর সঙ্গে এমন নৃশংস আচরণ করা হয়েছে, তিনি কী ভাবে অবিচল থেকে বারবার সেই ঘটনার বিবরণ দিয়ে যাচ্ছেন!’’

আর একটি টুইটে ওই সাংবাদিক লিখেছেন, ‘‘এর পরে আমি ঠিক করি, ‘স্টিং অপারেশন’ চালিয়ে নির্ভয়ার ওই বন্ধুর আসল রূপ সকলের সামনে ফাঁস করে দেব। আমার সাংবাদিক আমার সামনে বসে ওই ব্যক্তির কাকার সঙ্গে মোবাইলে কথা বলেন। স্টুডিয়োয় আসার জন্য তাঁরা এক লক্ষ টাকা দাবি করেন। অনেক
দরাদরি করে সেই অঙ্ক ৭০ হাজারে নামানো হয়। তখনও আমার মনে হচ্ছিল, নির্ভয়ার বন্ধু এই টাকা লেনদেনের বিষয়ে কিছু জানেন না। তাঁর অজান্তেই তাঁর কাকা বিভিন্ন খবরের চ্যানেলের কাছে টাকা চাইছেন। আমি তাই ঠিক করি, এই টাকা দেওয়ার বিষয়টি নির্ভয়ার বন্ধুর সামনেই করব। যাতে স্পষ্ট বোঝা যায়, বিষয়টি সম্পর্কে তিনি ওয়াকিবহাল কি না।’’

এর পরে সেই সাংবাদিক সে দিনের ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন। তাঁর টুইট, ‘‘স্টুডিয়োয় বসে সাক্ষাৎকার দেওয়ার জন্য নির্ভয়ার ওই বন্ধুর সামনেই ৭০ হাজার টাকা দেওয়া হয়। তত ক্ষণে গোপন ক্যামেরা চালু হয়ে গিয়েছে। তার পরে তাঁর সাক্ষাৎকার নেওয়া শুরু হয়। দশ মিনিট কথাবার্তার পরেই তাঁর কাছে জানতে চাওয়া হয়, খবরের চ্যানেলে নির্ভয়া কাণ্ডের বর্ণনা দেওয়ার জন্য আপনি টাকা নেন কেন? তিনি প্রথমে টাকা নেওয়ার কথা অস্বীকার করেন। কিন্তু তার পরে তাঁকে
অপারেশনের ফুটেজটি দেখানো হলে তাঁর ঘুম ছুটে যায়। বারবার আমাদের কাছে ক্ষমা চায় সে।’’

এত দিন পরে কেন বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলছেন, তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন সাংবাদিক। লিখেছেন, ‘‘কিছু দিন আগেই নির্ভয়া কাণ্ড নিয়ে একটি সিরিজ় দেখছিলাম। দেখে আবার সেই পুরনো রাগ আর হতাশা চাগাড় দিয়ে উঠল। মনে হল, ছেলেটির চরিত্র সম্পর্কে সকলের জানা উচিত।’’