আইএস হামলায় চলতি বছরেই রক্তাক্ত হয়েছে শ্রীলঙ্কা। এ বার ভারতেও তাদের নজর পড়েছে বলে দাবি গোয়েন্দাদের। তা নিয়ে কেরল পুলিশকে ইতিমধ্যেই সতর্কবার্তা দিয়েছেন তাঁরা। তাতে বলা হয়েছে, ভারত মহাসাগরীয় এলাকায় শ্রীলঙ্কা এবং ভারতে নজর পড়েছে আইএস-এর। এই দুই দেশে বড় ধরনের নাশকতা চালানোর ছক কষছে তারা।

সম্প্রতি কেরল পুলিশের তিন আধিকারিককে চিঠি দিয়েছেন গোয়েন্দারা। তাতে বলা হয়েছে, মার্কিন যৌথ বাহিনীর অভিযানে ইরাক এবং সিরিয়ায় জমি হারিয়েছে আইএস। তাই বলে সন্ত্রাসী কার্যকলাপে ইতি টানার কোনও অভিসন্ধি নেই তাদের। বরং জঙ্গিরা যে, যেখানে রয়েছে, সেখান থেকেই নাশকতার ছক কষছে। এই মুহূর্তে ভারত এবং শ্রীলঙ্কার উপর নজর পড়েছে তাদের। এই দুই দেশে বড় ধরনের নাশকতা চালানোর ছক কষছে তারা। 

সংবাদ মাধ্যম সূত্রে দু’সপ্তাহ আগে ঠিক একই ধরনের একটি চিঠি সামনে এসেছিল। তাতে বলা হয়, কেরলের কোচিতে অবস্থিত সরকারি দফতর এবং একটি জনপ্রিয় শপিং মলে হামলা হতে পারে। কেরলের সিনিয়র আধিকারিকদের দাবি, কেরল, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ এবং কাশ্মীরের মতো রাজ্যগুলিকে নিশানা করা হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলিতে আইএস-এর সক্রিয়তা সম্ভাব্য হামলার ইঙ্গিত দিচ্ছে বলেও দাবি করেন তাঁরা। 

আরও পড়ুন: উন্নয়নমূলক কাজকর্মে সন্তুষ্ট হয়েই মানুষের এই রায়, সংসদে বললেন রাষ্ট্রপতি

গোয়েন্দা সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, মেসেঞ্জার অ্যাপ টেলিগ্রামের মাধ্যমেই এতদিন তথ্য আদান প্রদান করত আইএস। কিন্তু তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় ইদানীং তারা চ্যাটসিকিয়োর, সিগন্যাল এবং সাইলেন্ট টেক্সটের মতো তুলনামূলক নিরাপদ অ্যাপ ব্যবহার করছে।

আরও পড়ুন: হাসপাতালে টানাপড়েনে যোগীর রাজ্যে মৃত্যু চার দিনের শিশুর

কেরল পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গত কয়েক বছরে রাজ্য থেকে প্রায় ১০০ জন আইএসে যোগ দিয়েছে। তাদের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়েছিল আরও কয়েক হাজার মানুষ। রাজ্যের ২১টি কাউন্সেলিং সেন্টারে তাদের মধ্যে তিন হাজার জনকে মূলস্রোতে ফেরানো গিয়েছে। তবে নজরদারির মধ্যে রয়েছে তারা। গোয়েন্দাদের সতর্কবার্তা পেয়ে রাজ্যের নিরাপত্তা আটোসাঁটো করা হয়েছে। নজরদারি চলছে সোশ্যাল মিডিয়াতেও।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।