এ বারের লড়াই স্বাধীনতা সংগ্রামের চেয়ে কম নয়, বললেন প্রিয়ঙ্কা গাঁধী
মোদীর নাম না করেও প্রিয়ঙ্কা বলেন, ‘‘আপনাদের সামনে এসে যাঁরা প্রচুর চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ব্যাঙ্কে ১৫ লাখ টাকা দেওয়ার কথা বলেছিলেন, এ বার আসলে তাঁদের সেই প্রশ্নগুলি করুন। উত্তর দিতে  বলুন, কোথায় গেল সেই সব প্রতিশ্রুতি।’’
Priyanka Gandhi

আমদাবাদের জনসভায় প্রিয়ঙ্কা গাঁধী। ছবি: কংগ্রেসের টুইটার থেকে নেওয়া

দলে অভিষেক হয়েছে অনেক দিন আগেই। কিন্তু সেই অর্থে জনসভায় ভাষণ দেননি প্রিয়ঙ্কা গাঁধী। আজ মঙ্গলবার সেই জল্পনার অবসান হল। অবশেষে প্রথম রাজনৈতিক বক্তব্যের জন্য মোদীর রাজ্য গুজরাতকেই বেছে নিলেন প্রিয়ঙ্কা। প্রথম দিনই কর্মসংস্থান, বেকারত্ব, কৃষক ইস্যু নিয়ে তোপ দেগে কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদকের আহ্বান, ‘‘এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রামের চেয়ে কিছু কম নয়।’’ ভোটারদের উদ্দেশে প্রিয়ঙ্কার বার্তা, ‘‘অনেকেই প্রতিশ্রুতি নিয়ে আসবে, তাদের প্রশ্ন করুন, কোথায় গেল চাকরি, ১৫ লক্ষ টাকার প্রতিশ্রুতি।’’ রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ব্যাখ্যা, প্রথম ভাষণেই পরিণত রাজনীতিবিদের মতো বক্তব্য রেখেছেন প্রিয়ঙ্কা।

মঙ্গলবার গুজরাতের আমদাবাদে বৈঠকে বসে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটি। লোকসভা ভোটে রণকৌশল ঠিক করতেই দলের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণ কমিটির এই বৈঠক। সনিয়া গাঁধী, রাহুল গাঁধী, মনমোহন সিংহ ছাড়াও দলের শীর্ষ নেতৃত্ব উপস্থিত ছিলেন বৈঠকে। ছিলেন প্রিয়ঙ্কাও। বৈঠকের পর সংক্ষিপ্ত ভাষণে দলের কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, ‘‘ আমাদের দেশটা সৌভ্রাতৃত্ব ও ভালবাসার উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে। কিন্তু এখন চার পাশে যা ঘটছে, তা অত্যন্ত দুঃখের। কিন্তু সচেতনতার চেয়ে বড় দেশাত্মবোধ আর কিছুই নেই। আপনাদের সচেতনতাই আপনাদের অস্ত্র, আপনাদের ভোটই আপনাদের হাতিয়ার। আর এটা এমন এক অস্ত্র, যা কাউকে আঘাত করে না। কিন্তু আপনারা এবং সর্বোপরি দেশ শক্তিশালী হয়।’’

এর পর আমদাবাদের একটি জনসভায় যোগ দেন প্রিয়ঙ্কা। সেখানে প্রিয়ঙ্কার আক্রমণ ছিল আরও ধারাল, আরও তীক্ষ্ণ। মোদীর নাম না করেও প্রিয়ঙ্কা বলেন, ‘‘আপনাদের সামনে এসে যাঁরা প্রচুর চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ব্যাঙ্কে ১৫ লাখ টাকা দেওয়ার কথা বলেছিলেন, এ বার আসলে তাঁদের সেই প্রশ্নগুলি করুন। উত্তর দিতে  বলুন, কোথায় গেল সেই সব প্রতিশ্রুতি।’’

লোকসভা ভোটের সব খবর পেতে ক্লিক করুন

নরেন্দ্র মোদী সম্পর্কে কতটা জানেন, ঝালিয়ে নিন জ্ঞানভাণ্ডার

লাইভ: সুগত-সন্ধ্যা-সুব্রত-ইদ্রিস-উমা দাঁড়াচ্ছেন না, প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করলেন মমতা

মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সিবিআই, আরবিআই-এর মতো প্রতিষ্ঠানের স্বাধীনতা খর্ব করার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সেই প্রসঙ্গ টেনে প্রিয়ঙ্কার তোপ, ‘‘দেশের প্রতিষ্ঠানগুলি ধ্বংস করা হচ্ছে। চার দিকে শুধু হিংসা আর হিংসা। তাই এর থেকে মুক্তি পেতে এ বারের সংগ্রাম স্বাধীনতা সংগ্রামের চেয়ে কম নয়। দেশকে রক্ষা করা এবং সবাই মিলে এক সঙ্গে এগিয়ে যাওয়ার চেয়ে বড় আর কিছু হতে পারে না।’’

(ভারতের রাজনীতি, ভারতের অর্থনীতি- সব গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত