জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) পর্বে অসমের পরে কি এ বার পশ্চিমবঙ্গের পালা? আজ সপ্তদশ লোকসভার শুরুতে তাঁর বক্তৃতায় সরকারের ভবিষ্যৎ কর্মসূচি জানাতে গিয়ে এমনই ইঙ্গিত দিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। তিনি বলেন, ‘‘অনুপ্রবেশ জাতীয় সুরক্ষার প্রশ্নে বড় বিপদ। অনুপ্রবেশের কারণে এক দিকে দেশের বিভিন্ন অংশে সামাজিক বৈষম্য সৃষ্টি হয়েছে, তেমনই জীবন-জীবিকার উপরেও তারা প্রভাব ফেলেছে। তাই অনুপ্রবেশজনিত সমস্যা থাকা এলাকায় জাতীয় নাগরিক পঞ্জি দ্রুত প্রস্তুত করতে সরকার বদ্ধপরিকর।’’ 

কোবিন্দ কোনও রাজ্যের নাম না-নিলেও, অনেকেরই মতে, অসমের পরে অমিত শাহদের পাখির চোখ পশ্চিমবঙ্গ। বিজেপি দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছে অনুপ্রবেশের ফলে পশ্চিমবঙ্গের সীমান্তবর্তী জেলাগুলির জনবিন্যাস পাল্টে গিয়েছে। যা সীমান্ত সুরক্ষার প্রশ্নে বড় চ্যালেঞ্জ। উত্তরবঙ্গে লোকসভার প্রচারে গিয়ে এ রাজ্যে অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করতে এনআরসি আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন অমিত শাহ। এখন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দ্রুত সেই কাজ শুরু করে দিতে চাইছেন তিনি। 

অতীতে যখনই বিজেপি রাজ্যে এনআরসির দাবি তুলেছে, তখনই তার তীব্র বিরোধিতা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর মতে, ওই তালিকা তৈরি করে আসলে বাঙালি হিন্দু ও মুসলমানদের দেশ থেকে তাড়াতে চাইছে সরকার। লোকসভার তৃণমূল দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় আজ বলেন, ‘‘রাজ্যে এনআরসির প্রশ্নই নেই। রাষ্ট্রপতির ভাষণের বিতর্কে সংসদের উভয় কক্ষে দলের আপত্তির কথা জানানো হবে।’’ দল অবশ্য মনে করছে, জুলাই মাসে চূড়ান্ত নাগরিক পঞ্জি প্রকাশের পরে অসমে মানুষের ক্ষোভ এমন পর্যায়ে যাবে যে অন্য রাজ্যে আর ওই তালিকা তৈরির সাহস পাবে না মোদী সরকার।

তবে একই সঙ্গে সুদীপবাবুদের মতে, এনআরসি নিয়ে বিজেপি যত সক্রিয় হবে তত লাভবান হবে তৃণমূল। বিজেপি বাঙালিদের তাড়ানোর চক্রান্ত করেছে বলে তখন প্রচারে যাবে দল। লোকসভা ভোটে বিপর্যয়ের পরে তৃণমূল যখন বাঙালিয়ানাকে তুলে ধরতে সক্রিয়, তখন এনআরসি নিয়ে বিজেপির অতি-সক্রিয়তা তাদের রাজনৈতিক ফায়দা দেবে বলেই মত রাজ্যের শাসক দলের। 

রাজ্যের মানুষের মনে উদ্বাস্তু হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হলে যে বিজেপির লোকসান হবে সেটা বুঝে মেপে পা ফেলতে চাইছেন রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বও। মুকুল রায়ের কথায়, ‘‘সবার আগে নাগরিকত্ব আইন সংশোধন পাশ হবে। তার পরে এনআরসি। যাঁরা অনুপ্রবেশকারী নন তাঁদের ভয় পাওয়ার কিছু নেই।’’

তবে অসমে খসড়া তালিকায় যে ভাবে এক কোটি মানুষের নাম বাদ গিয়েছে, তাতে এনআরসির বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ফলে এনআরসি নিয়ে তাড়াহুড়ো করলে হিতে বিপরীত হতে পারে বলে আশঙ্কা রাজ্য বিজেপির অন্দরে।