জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপ ও তাকে দু’ভাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে আগেই রাষ্ট্রপুঞ্জের দ্বারস্থ হয়েছিল পাকিস্তান। সেই আবেদন একেবারেই আমল পায়নি। মরিয়া ইসলামাবাদ গোটা বিষয়টি নিয়ে আলোচনার জন্য এ বার রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদকে চিঠি দিয়ে বিশেষ বৈঠকের অনুরোধ জানাল। চিঠিতে ভারতের প্রতি রয়েছে প্রচ্ছন্ন হুমকিও। পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মহম্মদ কুরেশি আবেদনপত্রে লিখেছেন, “আমরা কোনও দ্বন্দ্ব চাই না। কিন্তু ভারত যেন আমাদের সংযমকে দুর্বলতা না ভাবে।”

কুরেশির বক্তব্য, ভারতের ‘ভয়ঙ্কর’ সিদ্ধান্ত নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের সঙ্গে কথা বলতে চাইছেন তাঁরা। এই অবস্থায় ভারত যদি মনে করে তারা পেশিশক্তি দেখাবে, আত্মরক্ষার স্বার্থে পাকিস্তানও সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিরোধ করবে।জম্মু-কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে চিনের সমর্থন আদায়ের জন্যে গত শুক্রবারই কুরেশি বেজিংয়ে গিয়ে দেখা করেছিলেন চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ই-এর সঙ্গে। কুরেশি দাবি করেছিলেন, জম্মু কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের রাষ্ট্রপুঞ্জের দৃষ্টি আকর্ষণের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছে চিন। যদিও চিন এই মর্মে একনও কোনও বিবৃতিই দেয়নি। বরং তারা কুরেশিকে জানিয়ে দেয়, দুই প্রতিবেশীর সঙ্গেই সুসম্পর্ক রক্ষায় আগ্রহী তারা। সিমলা চুক্তি ও রাষ্ট্রপুঞ্জের সনদ মেনে সমস্যার সমাধান হোক, এমনটাই চান তারা। এই আবহেই আবেদনপত্রটি তৈরি করেছে পাকিস্তান।



আরও পড়ুন:কাশ্মীরি ভাইবোনেরা, দেশ তোমাদের পাশে, আশ্বাস মোদীর
আরও পড়ুন:১৫ অগস্ট পার করে কার্ফু উঠতে পারে কাশ্মীরে

অগস্ট মাসের জন্যে নিরাপত্তা পরিষদ পরিচালনার দায়িত্ব পোল্যান্ডের কাধে। পোলিশ বিদেশমন্ত্রী জাসেক জাপুটোউইচ সংবাদসংস্থাকে জানাচ্ছেন, তাঁরা পাকিস্তানের চিঠি পেয়েছেন মঙ্গলবার। ভারতে নিয়োজিত পোলিশ রাষ্ট্রদূত অ্যাডাম বোরাওয়াস্কি  জানিয়েছেন, ‘‘নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসেবে আমরা এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত। নিরাপত্তা ক্ষুণ্ণ হবে, এমন যে কোনও সিদ্ধান্তকেই প্রতিহত করব আমরা।’’