উন্নাও গণধর্ষণ কাণ্ডে গ্রেফতার হয়েছিলেন আগেই। সম্প্রতি ওই নির্যাতিতার বাবার রহস্য মৃত্যুতেও তাঁর বিরুদ্ধে মামলা রুজুর নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এ বার সেই কুলদীপ সিংহ সেঙ্গারকে সরকারি বিজ্ঞাপনে জায়গা করে দিলেন বিজেপির এক নেতা। তাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের পাশে হাসিমুখে দেখা গিয়েছে কুলদীপকেও।

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের একটি বহুলপঠিত সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দেন রাজ্যের উঙ্গুনগর পঞ্চায়েতের চেয়ারম্যান অনুজকুমার দীক্ষিত। তাতেই নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহদের সঙ্গে কুলদীপ সিংহের ছবি দেখা গিয়েছে, যা নিয়ে নতুন করে বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়েছে। ধর্ষণ এবং খুনে অভিযুক্ত কাউকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এক আসনে বসানো হল কেন, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

বিষয়টি নিয়ে টুইটারে সরব হয়েছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়ঙ্কা গাঁধী বঢরাও। শনিবার নিজের টুইটার হ্যান্ডলে তিনি লেখেন, ‘সিবিআই রিপোর্ট জমা দিয়েছে। তীব্র নিন্দা করেছে সুপ্রিম কোর্টও। তা সত্ত্বেও বিজেপির লোকেরা কুলদীপ সিংহ সেঙ্গারকে মনের মধ্যে আগলে রেখেছেন। তাই বিজেপির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে ছবি ছাপা হয়েছে তাঁর। এ ব্যাপারে বিজেপি নেতারা কি আদৌ আলোকপাত করার প্রয়োজন অনুভব করবেন?’

 

আরও পড়ুন: কাশ্মীর নিয়ে রাষ্ট্রপুঞ্জের রুদ্ধদ্বার বৈঠকেও আমল পেল না চিন-পাক দাবি, বলছে রিপোর্ট

বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে এখনও পর্যন্ত এ নিয়ে কোনও  মন্তব্য না করা হলেও, সাফাই দিতে এগিয়ে এসেছেন উঙ্গুনগর পঞ্চায়েতের চেয়ারম্যান তথা বিজেপির স্থানীয় নেতা অনুজকুমার দীক্ষিত। সংবাদ সংস্থা এএনআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন,  ‘‘উনি আমাদের এলাকার বিধায়ক। তাই ছবি ছাপা হয়েছে। যত দিন বিধায়ক থাকবেন, তত দিন ওঁর ছবি ছাপা হবে।’’ কুলদীপ সিংহ সেঙ্গারের হাত ধরেই বিজেপিতে আগমন অনুজকুমার দীক্ষিতের। কিন্তু এই বিজ্ঞাপনের সঙ্গে রাজনীতির কোনও সংযোগ নেই বলে দাবি করেন তিনি।

আরও পড়ুন: স্বাধীনতা দিবসে পুরস্কার, পর দিনই ঘুষ নিতে গিয়ে হাতেনাতে গ্রেফতার কনস্টেবল!​

বিজেপির তরফে সম্প্রতি কুলদীপ সেঙ্গারকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানানো হয়। বিজ্ঞাপনে মোদীর সঙ্গে তাঁর ছবি ছাপার দায় ঝেড়ে ফেলেছে তারা।