×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৪ জুন ২০২১ ই-পেপার

তৈরি হয় ভাল লাগার আবেশ

শ্রীনন্দা মুখোপাধ্যায়
২৪ নভেম্বর ২০১৮ ০১:২০
শ্রাবণী সেন এবং লোপামুদ্রা মিত্র

শ্রাবণী সেন এবং লোপামুদ্রা মিত্র

সম্প্রতি মধুসূদন মঞ্চে অনুষ্ঠিত হল সপ্তস্বরা আয়োজিত ‘মেঘের পরে মেঘ’। বর্ষার গান ও পাঠ দিয়ে পরিকল্পিত এই অনুষ্ঠান এক ভাল লাগার আবেশ তৈরি করেছিল।

সপ্তস্বরার তিনটি সমবেত সঙ্গীত দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা। এর মধ্যে ‘আজ শ্রাবণের আমন্ত্রণে’ গানটিতে যথেষ্ট নিষ্ঠা ও অনুশীলনের ছাপ টের পাওয়া যায়।

এর পরে নিজস্ব গায়নভঙ্গিতে মঞ্চে একে একে সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পীরা। লোপামুদ্রা মিত্রের কণ্ঠে ‘বাদল বাউল’ গানটিতে এক উদাস বাউলকে যেন খুব কাছ থেকে স্পর্শ করার মতোই খুঁজে পাওয়া যায়। সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের ‘মন মোর মেঘের সঙ্গী’ গানটি সুগীত। ‘পথিক মেঘের দল’ গানটিতে যদিও বারংবার যন্ত্রসঙ্গীত মূল গানটিকে ছাপিয়ে গিয়ে মাধুর্যের বিঘ্ন ঘটায়। শ্রাবণী সেন গীত ‘আমার দিন ফুরালো’ গানের আকুতি প্রতিটি শ্রোতাকেই মুগ্ধ করে। সুব্রত সেনগুপ্তের ‘আমার যে দিন ভেসে গেছে’ গানটি মন ছুঁয়ে যায়। অগ্নিভ বন্দ্যোপাধ্যায়ের কণ্ঠে ‘বর্ষণ মন্দ্রিত অন্ধকারে’ ও ‘অনেক কথা’ নিবিড় ভাবেই এক বর্ষার ছবি আঁকে। জয়তী চক্রবর্তী ‘আজি তোমায় আবার’ গানটিতে দারুণ ভাবে মীড়ের ব্যবহার ফুটিয়ে তোলেন। ব্রততী বন্দ্যোপাধ্যায় উপস্থিত ছিলেন তাঁর অনন্য কবিতার ডালি নিয়ে।

Advertisement

উপস্থিত শ্রোতাদের কাছে বিকৃত রবীন্দ্রসঙ্গীত গাওয়ার বিরুদ্ধে দৃপ্ত আবেদন ছিল অগ্নিভ বন্দ্যোপাধ্যায়ের এক প্রশংসনীয় প্রয়াস। সে দিনের অনুষ্ঠানে বারবার প্রমাণিত হয়, শুধু মাত্র রবীন্দ্রসঙ্গীত গাওয়াই নয়, তাঁর সৃষ্টির সামগ্রিক চর্চাই শিল্পীদের গানে এক সুষ্পষ্ট পার্থক্য আনতে পারে, যা শ্রোতাদের মনে প্রবেশ করে অতি সহজেই।

অনুষ্ঠান

• ত্রিগুণা সেন অডিটোরিয়ামে এক সন্ধ্যার আয়োজন করে রিদম দি অ্যাকাডেমি অ্যান্ড মিউজ়িক। তবলা লহরায় ছিলেন অর্কপ্রভ মুখোপাধ্যায়, অর্কপ্রভ পাণ্ডা, ঋতজিৎ সাহা, আদি সাহা, সৌরশ্রী দাস। তাল বিচিত্রার পরিচালনা সুজিত সাহার। তবলা, খোল, পাখোয়াজে সর্বাশিস কর্মকার, ঢোলে বিপ্লব দাস, ঘটমে ঢোলগোবিন্দ দাস, তবলায় সুরজিৎ সাহা, সেতারে অভিষেক গুপ্ত, বাঁশিতে সৌগত নস্কর। সঙ্গীতে অনির্বাণ দাস ও দীপ্তম সিংহ বিশ্বাস। ‘তিন কন্যা’ পরিবেশন করেন মৌসুমী সেন, সোহিনী রায়চৌধুরী, আবিরা মুখোপাধ্যায়। তবলায় সুজিত সাহা, সংগ্রাম রায়, সুরজিৎ সাহা। হারমোনিয়ামে দেবাশিস অধিকারী, ভায়োলিন ও ফ্লুটে তরুণ চক্রবর্তী, ইন্দ্রজিৎ বসু। গ্রন্থনায় সমীর ও সোনালি চট্টোপাধ্যায়।

Advertisement