Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৯ অগস্ট ২০২২ ই-পেপার

URL Copied

চিত্র সংবাদ

Ukraine-Russia Conflict: টি-৯০ ট্যাঙ্ক থেকে কোয়াল্টসিয়া কামান! কোন অস্ত্রে ইউক্রেনকে আক্রমণ রাশিয়ার

নিজস্ব সংবাদদাতা
মস্কো ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ ১৮:০৪
সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে ভারতীয় সময় অনুযায়ী বৃহস্পতিবার ভোরে ইউক্রেনের উপর আক্রমণ চালাল রাশিয়া। ইউক্রেন-রাশিয়া নিয়ে  বিতর্কের মাঝে রাশিয়া হামলা চালাবে না বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরও ইউক্রেনের উপর আছড়ে পড়ছে রাশিয়ার সামরিক সজ্জার ঝড়।

নিজেদের এবং বিভিন্ন বন্ধু রাষ্ট্র থেকে পাওয়া সামরিক অস্ত্র নিয়ে পাল্টা প্রতিরোধের চেষ্টা চালাচ্ছে ইউক্রেনও।
Advertisement
যুদ্ধবিমান থেকে শুরু করে মর্টার— বারুদের গন্ধে ম-ম করছে ইউক্রেনের আকাশ। আকাশপথে তো বটেই, স্থলপথেও সামরিক দিক দিয়ে শক্তিশালী দেশ রাশিয়া।

প্রশ্ন হল, বৃহস্পতিবার ভোর থেকে শুরু হওয়া এই সঙ্ঘাতে নিজেদের অস্ত্রভান্ডার থেকে সম্ভব্য কোন কোন সামরিক অস্ত্রসজ্জা নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে পারে রাশিয়া? কোন অস্ত্রেরই বা জোর অন্যের থেকে বেশি!
Advertisement
ভোলোদিমির বনাম ভ্লাদিমিরের মধ্যে শুরু হওয়া এই সঙ্ঘাতে রাশিয়ার প্রধান অস্ত্র হয়ে উঠতে পারে, শক্তিশালী অত্যাধুনিক ট্যাঙ্ক ‘টি-৯০’। বিশ্বের সামরিক শক্তির ইতিহাসে অন্যতম বিশ্বস্ত যুদ্ধ ট্যাঙ্ক হিসেবে পরিচিত টি-৯০ সামরিক ট্যাঙ্ক।

বার বার এই ট্যাঙ্ক যে কোন প্রকারের সামরিক সঙ্ঘাতের জন্য উপযুক্ত বলেই প্রমাণিত হয়েছে। টি-৯০ ট্যাঙ্কটি দাগেস্তান, সিরিয়া-সহ একাধিক সামরিক সঙ্ঘাতের সাক্ষী।

টি-৯০ ট্যাঙ্কটি এর আগের টি-৭২ ট্যাঙ্কের আধুনিক রূপ। রাশিয়ার কাছ থেকে ভারতও এই অত্যাধুনিক ট্যাঙ্ক পেয়েছে।

বহু বছর ধরে বারবার বিভিন্ন ট্যাঙ্কের আধুনিকীকরণের বর্তমান রূপ হল টি-৯০। বর্তমানে প্রায় ৭৫০ থেকে ১০০০ ‘টি-৯০’ যুদ্ধ ট্যাঙ্ক রয়েছে। এই যুদ্ধ ট্যাঙ্কের সবচেয়ে চমকপ্রদ বৈশিষ্ট্য হল কনট্যাক্ট—৫ বিস্ফোরক বর্মের উপস্থিতি। এই বর্ম শত্রুর অস্ত্রের হাত থেকে ট্যাঙ্কগুলিকে রক্ষা করে।

এই ট্যাঙ্কের মধ্যে থাকা ইনফ্রারেড সংকেতগুলি বিপদকে আগে থেকেই মেপে নিতে পারে। বিপদের সংকেত পাওয়ার পরই এই ট্যাঙ্ক নিজেদের ধোঁয়ার চাদরে ঢেকে ফেলে, যাতে শত্রু অস্ত্র তাদের পদক্ষেপ সম্পর্কে ওয়াকিবহাল না থাকতে পারে। এ ছাড়াও আধুনিক সমস্ত অস্ত্রের দ্বারাই সজ্জিত থাকে এই টি-৯০ ট্যাঙ্কগুলি।

সাঁজোয়া গাড়িতে বসানো কোয়াল্টসিয়া হাউইত্জার আর একটি আধুনিক কামান। যার মাধ্যমে সহজেই ইউক্রেনের সামরিক শক্তির উপর আছড়ে পড়তে পারে রাশিয়া। ১৫৫ মিলিমিটারের এই কামান প্রতি মিনিটে ১৬টি গোলা ছুড়তে পারে। এবং কামানে স্বয়ংক্রিয়ভাবে গোলা ভরারও ব্যাবস্থা রয়েছে এই কামানে।

যুদ্ধ পরিস্থিতিতে সুরক্ষিতভাবে সেনা সদস্যদের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যেতে সক্ষম ‘রাকুশকা’ সামরিক যান।

অত্যাধুনিক অস্ত্র দ্বারা সুসজ্জিত সেনা গাড়িটি আকাশ থেকে অবতরণের পর প্যারা ট্রুপার বাহিনীকে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে সাহায্য করে। এই সামরিক যান সর্বাধিক ১৩ সেনা সদস্যকে নিয়ে যাতায়াত করতে পারে। এই গাড়িতে ৭.৬ মিলিমিটার গুলি যুক্ত স্বয়ংক্রিয় বন্দুক ছাড়াও স্বয়ংক্রিয়ভাবে ৩০ মিলিমিটারের গ্রেনেড ছোড়ার ব্যবস্থা আছে।

ইউক্রেন-রাশিয়া সঙ্ঘাতে অন্যতম মারাত্মক অস্ত্র হয়ে উঠতে পারে রাশিয়ার উরাগান রকেট লঞ্চার। উরাগান রকেট লঞ্চার একসঙ্গে একাধিক রকেট নিক্ষেপ করতে পারে।

উরাগান মোট ১২টি লঞ্চার টিউব রয়েছে, এবং লঞ্চার টিউবে থাকা ৩০০ মিলিমিটার লম্বা রকেটগুলিতে প্রায় ২৮৫ কিলোগ্রামের বিস্ফোরক থাকতে পারে। উরাগান থেকে নিক্ষেপ করা রকেটগুলি সর্বাধিক ৫৫ মাইল অবধি ছুটে যেতে পারে।

ইসকান্দর ভূমি থেকে ভূমি ক্ষেপণাস্ত্রও ইউক্রেনের জন্য অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেতে পারে। স্বল্পপাল্লার এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলি একটি ট্রাকের উপরে চাপানো থাকে। প্রতিটি ট্রাকে দু’টি করে ইসকান্দর ক্ষেপণাস্ত্র থাকতে পারে। ১৬ মিনিট ছাড়া ছাড়া এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলি নিক্ষেপ করা যেতে পারে।

রাশিয়ার কাছে মোট ১৩৬টি ইসকান্দর ক্ষেপণাস্ত্র রয়েছে, যা ইউক্রেনকে সন্ত্রস্ত করার পক্ষে যথেষ্ট বলেও মনে করছেন সামরিক বিশেষজ্ঞরা। বড় বড় সেনা ছাউনি পর্যন্ত গুঁড়িয়ে দিতে পটু এই ক্ষেপণাস্ত্র।