Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২১ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

কোন সুরে কথা বলে মাকড়সারা, জানা গেল তার রহস্য

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি ১৪ এপ্রিল ২০২১ ১৭:২৩
মাকড়সার জাল। -ফাইল ছবি।

মাকড়সার জাল। -ফাইল ছবি।

হাওয়ায় মাকড়সার জালের দোল খাওয়া আর কাঁপা থেকে এ বার সুরতরঙ্গ সৃষ্টি করলেন বিজ্ঞানীরা। এই প্রথম। বিজ্ঞানীদের দাবি, এর ফলে মাকড়সারা কী ‘ভাষা’য় একে অন্যের সঙ্গে ‘কথা বলে’, যোগাযোগ রেখে চলে তা আমরা বুঝতে পারব। সেই ‘সুরে’ মানুষও মাকড়সাদের সঙ্গে কথা বলতে পারবে।

অভিনব সেই সুরের স্রষ্টা আমেরিকার ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি)-র বিজ্ঞানীরা। গবেষণা প্রকল্পের প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর মার্কাস বুহেলার বলেছেন, ‘‘মাকড়সাদের জীবনের আগাগো়ড়াই নির্ভর করে কম্পনের উপর। সেই কম্পন তাদেরই তৈরি করা জালের। যাকে আমরা মাকড়সার জাল বলে চিনি, জানি। মাকড়সারা ভাল দেখতে পারে না। তাই জালের কম্পনের বাড়া-কমা, তার গতিই দিক-দিশা জোগায় মাকড়সাদের। এই কম্পন অনুভব করেই তারা একে অন্যের অবস্থান বুঝে নেয়। একে অন্যের সঙ্গে কথা বলে, যোগাযোগ রেখে চলে। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কম্পাঙ্কে আন্দোলন হয় মাকড়সার জালের। ভিন্নতা থাকে কোনও নির্দিষ্ট সময়েও জালের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে।’’

মাকড়সার জালের সেই কম্পাঙ্কের ভিন্নতা থেকেই সুর সৃষ্টি করেছেন এমআইটি-র গবেষক, বিজ্ঞানীরা। আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটি-র সাম্প্রতিক বৈঠকে সেই উদ্ভাবনের কথা ঘোষণা করা হয়েছে।

Advertisement

প্রাকৃতিক ভাবে গড়ে ওঠা একটি মাকড়সার জালকে গবেষকরা প্রথমে লেসার রশ্মি দিয়ে স্ক্যান করে তার বিভিন্ন এলাকার দ্বিমাত্রিক চেহারা বুঝে নিয়েছিলেন। তার ভিত্তিতে সেই মাকড়সার জালের ত্রিমাত্রিক চেহারাটা কেমন হতে পারে সেটা গবেষকরা তৈরি করেছিলেন কম্পিউটার অ্যালগরিদমের মাধ্যমে। এর পর গবেষকরা শব্দতরঙ্গের বিভিন্ন কম্পাঙ্ক প্রয়োগ করেন সেই জালের উপর। তার ফলে তৈরি হয় 'স্বর'।

গবেষকরা জানিয়েছেন, মাকড়সার জাল থেকে তাঁদের সৃষ্টি করা সুর হার্পের মতো একটি বাদ্যযন্ত্রের মাধ্যমে তাঁরা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের গবেষকদের শুনিয়েছেন।

বুহেলার বলেছেন, ‘‘মাকড়সারা কী ভাবে ধীরে ধীরে জাল বুনে ফেলে এই সুর শুনেই তা বুঝে ফেলা গিয়েছে। এটা আগামী দিনে ত্রিমাত্রিক প্রিন্টিং প্রযু্ক্তির উন্নয়নে খুবই সহায়ক হবে। এমনকি মানুষও যাতে জালে থাকা মাকড়সাদের কথাবার্তা বুঝতে পারে, তার জন্য একটি ভার্চুয়াল রিয়্যালিটি সেট-আপও আমরা বানিয়েছি।’’

পরে যাতে তাদের ভাষা বুঝে মানুষও মাকড়সাদের সঙ্গে কথা বলতে পারে তার জন্যও একটি বিশেষ প্রযুক্তি উদ্ভাবনের চেষ্টা চলছে, জানিয়েছেন বুহেলার।

আরও পড়ুন

Advertisement