ভারতীয় দলের কোচ নির্বাচনী বৈঠক হবে শুক্রবার। যে ছ’জনকে কপিল দেব, অংশুমান গায়কোয়াড় ও শান্তা রঙ্গস্বামীর প্যানেল ইন্টারভিউয়ের জন্য ডেকেছে, তাঁদের মধ্যে সব দিক থেকেই এগিয়ে ভারতীয় দলের কোচ রবি শাস্ত্রী।

ইন্টারভিউয়ের জন্য নির্বাচিত পাঁচ জনের মধ্যে তিনজন বিদেশি। রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার টম মুডি, নিউজ়িল্যান্ডের মাইক হেসন ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফিল সিমন্স। ভারতীয়দের মধ্যে শাস্ত্রীর পাশাপাশি রয়েছেন রবিন সিংহ ও লালচাঁদ রাজপুত। কিন্তু ২০১৭ সালে শাস্ত্রী দায়িত্ব পাওয়ার পরে ভারতীয় দলের আমূল পরিবর্তন দেখা গিয়েছে। তাই বাকিরা কতটা গুরুত্ব পাবেন তা নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন। 

২০১৭ সালের পর থেকে ২১টি টেস্ট খেলেছে ভারত। তার মধ্যে ১৩ ম্যাচেই জিতেছে ভারত। জয়ের হার ৫২.৩৮ শতাংশ। শাস্ত্রীর অধীনে ৩৬টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে ভারত। তার মধ্যে ২৫টি ম্যাচেই জয় এসেছে। সব চেয়ে ভাল পরিসংখ্যান ওয়ান ডে-তে। শাস্ত্রীর কোচিংয়ে ৬০টি ওয়ান ডে খেলেছে ভারত। তার মধ্যে জিতেছে ৪৩টি ম্যাচ। ৭১.৬৭ শতাংশ ম্যাচ দল জিতেছে তাঁর কোচিংয়ে। এ রকম রেকর্ডের বিরুদ্ধে লড়াই যে কঠিন হবে তা হয়তো বুঝতে পেরেছেন হেসনরা। 

কিন্তু শাস্ত্রীর কোচিংয়ে আইসিসি-র কোনও ট্রফি জিততে পারেনি ভারত। টিম ডিরেক্টর হিসেবে ২০১৫ বিশ্বকাপে ছিলেন শাস্ত্রী। ভারত শেষ করে সেমিফাইনালে। এ বারও বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে যেতে হয় ভারতকে। আরও এক বার কোচ হিসেবে দায়িত্ব পেলে, শাস্ত্রী নিশ্চয়ই চাইবেন দলকে আইসিসি-র কোনও টুর্নামেন্ট সাফল্য দিতে। 

চলতি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও শাস্ত্রীর কোচিংয়ে দুরন্ত শুরু করেছে ভারত। টি-টোয়েন্টি সিরিজে বিপক্ষকে হোয়াইওয়াশ করার পরে ওয়ান ডে সিরিজেও ২-০ জিতল ভারত। এ বার সামনে টেস্ট সিরিজ। এই সিরিজ থেকেই আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ যাত্রা শুরু হবে ভারতের। যা নিয়ে আগেই শাস্ত্রী বলেছিলেন, ‘‘টেস্টের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ভাল ফল করার জন্য দল মুখিয়ে রয়েছে। চেষ্টা করব সেরাটা দেওয়ার।’’

কিন্তু সব স্বপ্নই সত্যি হবে যদি কোচ নির্বাচনী বৈঠক শেষে ভারতীয় দলের কোচ হিসেবে ফের শাস্ত্রীর নাম ঘোষণা করা হয়। যদিও কোচ নির্বাচন এক দিনে শেষ হওয়ার কথা নয়। শুক্রবার ইন্টারভিউ। তার ফল বেরোতে বেশ কয়েক দিন সময় লাগতে পারে।