বীরেন্দ্র সহবাগ শুক্রবারই দাবি করেছিলেন অনিল কুম্বলেকে ভারতের প্রধান নির্বাচক করার। এ বার ভারতের প্রাক্তন ওপেনারের সমর্থনে এগিয়ে এলেন ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে, বীরুর সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন সৌরভ। পাশাপাশি ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন বিরাট কোহালিদের কোচ হওয়ারও।

সহবাগের পাশে দাঁড়িয়ে ভারতের সর্বকালের অন্যতম সেরা ম্যাচ উইনার প্রসঙ্গে সৌরভ বলছেন, ‘‘অনিল কুম্বলে যথেষ্ট যোগ্য প্রার্থী। কুম্বলে যদি ভারতের প্রধান নির্বাচক হয়, তা হলে এর থেকে ভাল আর কী হতে পারে! দল নির্বাচনের ক্ষেত্রে আরও বেশি সততা, অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ হবে ভারতীয় ক্রিকেট। সহবাগেরও ভাল নির্বাচক হওয়ার গুণ রয়েছে। বীরুর সাহস রয়েছে। সেই সঙ্গে ওর বড় ম্যাচ সম্পর্কে দৃষ্টিভঙ্গি পরিষ্কার। অতীতে বহু ম্যাচ জিতিয়েছে বীরু। বড় ম্যাচ বিশ্লেষণ করার দিক থেকে সহবাগের জুড়ি মেলা ভার। সুতরাং, বীরু দায়িত্ব পেলে ভাল কাজই করবে। অনিল কুম্বলে ও বীরেন্দ্র সহবাগের ভাল নির্বাচক হওয়ার গুণ রয়েছে।’’

দিন কয়েক আগেই সৌরভ বলেছিলেন, তিনি ভবিষ্যতে ভারতের কোচ হতে আগ্রহী। তখন দেশে বিদেশের বিভিন্ন প্রার্থী ভারতের হেড কোচের চেয়ারে বসার জন্য আবেদন করেছিলেন। সেই সময়ে সৌরভ জানিয়েছিলেন, তিনিও ভবিষ্যতে বিরাট কোহালিদের কোচ হিসেবে কাজ করতে চান। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সৌরভ আরও একবার কোচ হওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করে বলেন, ‘‘ভারতীয় দলের কোচ হিসেবে কাজ করতে চাই, তা আগেই বলেছিলাম। বিরাট কোহালি ম্যাচ উইনার, চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটার। কোহালির সঙ্গে কাজ করতে আমার ভালই লাগবে।’’

আরও পড়ুন: ফের ব্যর্থ, ঋষভ পন্থ কি আদৌ যোগ্য এত সুযোগ পাওয়ার?

আরও পড়ুন: আইপিএলে ফিরছেন অম্বাতী, খেলতে পারেন ওয়ান ডে দলেও

সৌরভের নেতৃত্বে ভারতীয় দল বদলে গিয়েছিল। বিদেশের মাটিতেও যে ভারত জিততে পারে, সেই বিশ্বাসের জন্ম হয়েছিল সৌরভের নেতৃত্বেই। জাতীয় দলের কোচ হলে ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক সেই বিশ্বাসের জন্ম দিতে পারবেন কোহালিদের সাজঘরে, এমনটাই বিশ্বাস ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের। সৌরভ বলেন, ‘‘বড় টুর্নামেন্টে দলকে জেতানোর অবদান রাখতে পারলে ভালই লাগবে।’’ সৌরভ কোচ হলে, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে গিয়ে জয় অভ্যাসে পরিণত করার বিশ্বাস ছড়িয়ে দিতে পারবেন বলেই মত ক্রিকেট মহলের একটা বড় অংশের।

কুম্বলের মতো হেভিওয়েট প্রার্থী ভারতের নির্বাচক হলে, বিসিসিআই-কেও সেই পদের সুযোগসুবিধাও বাড়াতে হবে। সহবাগের সঙ্গে সহমত পোষণ করে সৌরভ বলছেন, ‘‘নির্বাচকদের ভাল বেতন দেওয়া উচিত। কারণ ক্রিকেটে নির্বাচকদের পজিশনটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কোচ তাঁর মতামত জানান, কিন্তু চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত তো নেন নির্বাচকরাই।’’

আপাতত কোচ হিসাবে রবি শাস্ত্রীর সঙ্গে আরও দু’বছরের চুক্তি করেছে ভারতীয় বোর্ড। এই দু’বছরে ভারতের সাফল্য কামনা করেছেন সৌরভ। শাস্ত্রীর চুক্তি শেষ হচ্ছে ২০২১ সালে। তখন ভারতের নতুন কোচ হিসেবে দেখা যেতেই পারে সৌরভকে।