২৪ বলে পঞ্চাশ! যা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ভারতীয় মহিলা দলের মধ্যে দ্রুততম। নিজের রেকর্ডই ভাঙলেন স্মৃতি মন্ধানা। এর আগে ২৫ বলে অর্ধশতরানে পৌঁছেছিলেন তিনি। কিন্তু, তাঁর আক্রমণাত্মক ইনিংসও জয় আনতে পারল না। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ব্যাটিং ব্যর্থতাতেই সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি হারল ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দল

জয়ের জন্য দরকার ছিল ১৬০ রান। এক উইকেটে উঠেও গিয়েছিল একশোর বেশি। কিন্তু, স্মৃতি মন্ধানা ও জেমিমা রডরিগেজের জুটি ভাঙতেই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ল ভারতীয় ইনিংস। শেষ চার উইকেট পড়ল মাত্র সাত রানে। ১৯.১ ওভারে ১৩৬ রানে শেষ হল ইনিংস। ২৩ রানে জিতল নিউজিল্যান্ডের মহিলা ক্রিকেট দল। একইসঙ্গে তিন ম্যাচের সিরিজে এগিয়ে গেল ১-০ ব্যবধানে।

বুধবার সকালে ওয়েস্ট প্যাক স্টেডিয়ামে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন হরমনপ্রীত কৌর। নির্ধারিত কুড়ি ওভারে চার উইকেটে ১৫৯ তোলে নিউজিল্যান্ড। সোফি ডিভাইন ওপেন করতে নেমে ৪৮ বলে করেন ৬২। মারেন ছয়টি চার ও দুটো ছয়। দীপ্তি শর্মা (১/১৯), পুনম যাদব (১/৩০), রাধা যাদব (১/৩৮), অরুন্ধুতী রেড্ডি (১/৩৮) উইকেট ভাগ করে নেন।

আরও পড়ুন: উদাহরণ হয়ে ওঠা! ইমরানের সঙ্গে কোহালির মিল দেখলেন কাদির​

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপের জন্য ভারতের চূড়ান্ত ১৫ জনের দলে কারা থাকতে চলেছেন?

১৬০ রানের জয়ের লক্ষ্য তাড়া করে প্রথম ওভারেই প্রিয়া পুনিয়াকে হারায় ভারত। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে ৯৮ রান যোগ করেন মন্ধানা-রডরিগেজ। ৪ রানে প্রথম উইকেট পড়ার পর দ্বিতীয় উইকেট পড়ল ১০২ রানে। ৩৪ বলে ৫৮ রানের দুরন্ত ইনিংস উপহার দেন স্মৃতি। যাতে ছিল  সাতটি চার ও তিনটি ছয়। তাঁর স্ট্রাইকরেট ছিল ১৭০.৫৮। কিন্তু তা কাজে এল না।  স্মৃতির সঙ্গে সঙ্গেই ফিরলেন রডরিগেজ (৩৩ বলে ৩৯)। আর কোনও জুটি হয়নি। ১০২ থেকে ১৩৬, ৩৪ রানের মধ্যে পড়ে নয় উইকেট। তার মধ্যে ১২৯ থেকে ১৩৬ রানের মধ্যে পড়ে শেষ চার উইকেট। লি তাহুহু ২০ রানে তিন উইকেট নিয়ে হন ম্যাচের সেরা।  

(আইসিসি বিশ্বকাপ হোক বা আইপিএল, টেস্ট ক্রিকেট, ওয়ান ডে কিংবা টি-টোয়েন্টি। ক্রিকেট খেলার সব আপডেট আমাদের খেলা বিভাগে।)