যখন ৯৪ রানে তিনি, টিপটাপ বৃষ্টি শুরু হল। আকাশের দিকে তাকিয়ে চিন্তিতই দেখাল রোহিত শর্মাকে। যদি এখন বৃষ্টি নেমে আসে, তা হলে তো সেঞ্চুরির মুখেই আটকে থাকতে হবে।

দেখা গেল মাঠের ধারে কাছে গ্রাউন্ডসম্যানদের ব্যস্ততা। কভার নিয়ে মাঠে দৌড়ে আসার জন্য তৈরি তাঁরা। রোহিত বুঝলেন, দেরি করা ঠিক হবে না। সুযোগ পেলেই পৌঁছতে হবে সেঞ্চুরিতে। আজিঙ্ক রাহানে সিঙ্গলস নেওয়ায় যখন সেই সুযোগ হল রোহিতের, সেঞ্চুরি থেকে পাঁচ রান দূরে হিটম্যান। এক-দুই করে নয়, অফস্পিনার পিয়েদতকে সোজা ছয় মারলেন তিনি। রাঁচী টেস্টের প্রথম দিনই পৌঁছলেন সিরিজে তাঁর তিন নম্বর শতরানে। যা আবার টেস্টে ওপেনার হিসেবেও তাঁর তৃতীয় সেঞ্চুরি। সার্বিক ভাবে টেস্ট কেরিয়ারে ছয় সেঞ্চুরি হয়ে গেল তাঁর। যার প্রতিটিই এসেছে দেশের মাঠে।

টেস্টে ওপেনার হিসেবে চার ইনিংসের তিনটিতেই পেলেন শতরান। একমাত্র পুণে টেস্টে রান পাননি তিনি। চলতি সিরিজে চারশোর বেশি রান করে ফেলেছেন ওপেনার হিসাবে। ওপেনার হিসাবে চলতি বছরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নয়টি সেঞ্চুরি করে ফেললেন তিনি। ওপেনার হিসাবে সচিন তেন্ডুলকর, দক্ষিণ আফ্রিকার গ্রেম স্মিথ ও অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার এর আগে কোনও ক্যালেন্ডার বর্ষে সবচেয়ে বেশি আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েছিলেন। তাঁদেরও ছিল নয়টি সেঞ্চুরি। রোহিত স্পর্শ করলেন তাঁদের।

আরও পড়ুন: রাঁচীতে ছয় মেরে সেঞ্চুরি রোহিতের, মন্দ আলোয় বন্ধ হল খেলা​

আরও পড়ুন: ২৪ ঘণ্টা আগেও জানতেন না টেস্ট খেলবেন! রূপকথার অভিষেক শাহবাজ নাদিমের​

কোনও টেস্ট সিরিজে সবচেয়ে বেশি ছয় মারার রেকর্ডের মালিকও হলেন রোহিত। ২০১৮-১৯ মরসুমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের শিমরন হেটমায়ার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে মেরেছিলেন ১৫ ছয়। রোহিত টপকে গেলেন তাঁকে। এর আগে ভারতের হয়ে কোনও টেস্ট সিরিজে সবচেয়ে বেশি ছয় মেরেছিলেন হরভজন সিংহ। ২০১০-১১ মরসুমে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ১৪ ছয় মেরেছিলেন তিনি। চলতি বছরে টেস্টে সবচেয়ে বেশি ছক্কার রেকর্ড ছিল ইংল্যান্ডের বেন স্টোকসের। ১৬ ইনিংসে বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার মেরেছিলেন ১৫ ছয়। রাঁচীতে স্টোকসকেও ছাপিয়ে গেলেন রোহিত। চলতি টেস্ট সিরিজের এখনও পর্যন্ত ১৭টি ছক্কা মেরেছেন রোহিত। প্রথম দুই টেস্টে তিনি মেরেছিলেন ১৩টি ছয়। শনিবার মন্দ আলোয় খেলা বন্ধের সময় পর্যন্ত তাঁর ব্যাটে এসেছে চার ছক্কা।