×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২২ জুন ২০২১ ই-পেপার

জাভির ফেরার দিকে তাকিয়ে হাবাস

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৬ জানুয়ারি ২০২১ ০৪:০১
ছবি আইএসএল।

ছবি আইএসএল।

অস্ট্রেলিয়া ‍‘এ’ লিগে বর্তমান এসসি ইস্টবেঙ্গল কোচ রবি ফাওলারের দল ব্রিসবেন রোর-এ গত মরসুমে ছিলেন তিনি। অ্যাডিলেডে জন্মানো সেই অস্ট্রেলীয় মিডফিল্ডার ব্র্যাড ইনম্যানকে আশা নিয়েই এটিকে-মোহনবাগানে এনেছিলেন কোচ আন্তোনিয়ো লোপেস হাবাস।

যদিও ২০ রাউন্ডের ইন্ডিয়ান সুপার লিগে মাত্র ন’টি ম্যাচ হওয়ার পরে সেই ইনম্যানকে নিয়েই আশাভঙ্গ হয়েছে সবুজ-মেরুন শিবিরের স্পেনীয় কোচের। কারণ, জাভি হার্নান্দেস চোট পাওয়ার পরে মাঝমাঠে যে সৃষ্টিশীলতা খুঁজছিলেন হাবাস, তা দিতে ব্যর্থ ইনম্যান। তাই অস্ট্রেলীয় ফুটবলারের বিকল্প নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন তিনি।

হাবাস এ বার দল গড়েছিলেন অনেক অঙ্ক কষে। দুই প্রান্তে মাইকেল সুসাইরাজ এবং প্রবীর দাসকে রাখার পাশাপাশি, ভারতীয় দলের তিন ডিফেন্ডার শুভাশিস বসু, সন্দেশ জিঙ্ঘন, প্রীতম কোটালের সঙ্গে রক্ষণে যোগ করেছেন প্রাক্তন ছাত্র তিরিকে। উদ্দেশ্য, দুই প্রান্ত দিয়ে আক্রমণে বিপক্ষ রক্ষণকে ব্যতিব্যস্ত রাখবেন প্রবীরেরা। আর শূন্যে ভেসে আসা বলে যেন আগের মরসুমের মতো রক্ষণের সমস্যা না হয়, তার জন্য আঁটসাঁট রাখতে হবে রক্ষণকে।

Advertisement

দ্বিতীয় পরিকল্পনায় হাবাস সফল হয়েছেন, তা পরিসংখ্যানেই স্পষ্ট। নয় ম্যাচে এটিকে-মোহনবাগানের জালে প্রতিপক্ষ বল জড়িয়ে দিতে পেরেছে মাত্র তিন বার। সাত ম্যাচ গোল না খেয়েই মাঠ ছেড়েছেন কার্ল ম্যাকহিউ-তিরিরা।

প্রথম ম্যাচে মাইকেল সুসাইরাজ চোট পেয়ে বাইরে চলে যাওয়ার পরে হাবাসের প্রথম অঙ্ক এখনও কার্যকর হয়নি পুরোপুরি। ডান দিকে প্রবীর কিছুটা সফল হলেও বাঁ দিকে, আক্রমণের সময় সেই ঝাঁঝ থাকছে না। ফলে বিপক্ষ রক্ষণ অনেক সময়েই চাপে পড়ছে না। যা দেখা গিয়েছে, জামশেদপুর এফসি, হায়দরাবাদ এফসি-র বিরুদ্ধে। অনেক ভেবে গত মরসুমে সবুজ-মেরুন জার্সি গায়ে আই লিগজয়ী দলের লেফ্ট উইঙ্গার নংদম্বা নওরেমকে নিয়েছিলেন হাবাস। কিন্তু তাঁর চোট থাকায় সেই স্বপ্নও চুরমার। তাই হাবাস খোঁজে রয়েছেন ভাল মানের ভারতীয় লেফ্ট উইঙ্গারেরও।

এ সব চিন্তার মাঝেই সবুজ-মেরুন শিবিরে চলতি সপ্তাহে নতুন চিন্তার নাম মুম্বই সিটি এফসি। মঙ্গলবার বেঙ্গালুরু এফসি-র বিরুদ্ধে ম্যাচ জিতে যারা লিগ তালিকায় পিছনে ফেলল এটিকে-মোহনবাগানকে। হাবাস বুঝেছেন, মুম্বইয়ের জয়রথ থামাতে না পারলে এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলার স্বপ্ন ভঙ্গ হতে পারে। তাই মঙ্গলবার সকালে রয় কৃষ্ণদের অনুশীলন করিয়েই সন্ধ্যায় সহকারীদের নিয়ে বসে গিয়েছিলেন বেঙ্গালুরু এফসি বনাম মুম্বই সিটি এফসি ম্যাচ দেখতে। কারণ, এই ম্যাচ দেখেই তিনি বিপক্ষ সম্পর্কে রণনীতি তৈরি করবেন।

হাবাসের দলের মতো মুম্বই রক্ষণও বেশ পোক্ত। তারাও এ বারের আইএসএলে গোল খেয়েছে তিনটি। সবুজ-মেরুন শিবির সূত্রে খবর, মুম্বইয়ের মোর্তাদা ফল, আহমেদ জাহুদের শক্তি, দুর্বলতা মন দিয়ে যেমন দেখতে বলা হয়েছে রয় কৃষ্ণ, মনবীর, ডেভিড উইলিয়ামসদের। তেমনই অ্যাডাম লে ফন্দ্রে, উগো বুমোসদের কী ভাবে শক্তিহীন করে ফেলা যায় পরের ম্যাচে, তাঁর উত্তরও খেলা দেখে খুঁজে রাখতে বলা হয়েছে, কার্ল, সন্দেশ, প্রীতমদের। বুধবার তা বিশ্লেষণ করেই মুম্বই জয়ের অঙ্ক কষতে বসবেন প্রণয় হালদারদের কোচ। এ সবের মাঝেই সবুজ-মেরুন শিবিরের পক্ষে সুখবর, মুম্বই ম্যাচে প্রথম থেকে খেলতে পারেন জাভি হার্নান্দেস। যে অন্তর্ভুক্তি মাঝমাঠে সৃষ্টিশীলতার সন্ধান দিতে পারে হাবাসকে।

Advertisement