Advertisement
১৩ এপ্রিল ২০২৪
T20 World Cup 2021

Mohammad Rizwan: দেরি হলে মরেও যেতে পারতাম, সেমিফাইনালের আগে কী হয়েছিল পাক ক্রিকেটার রিজওয়ানের

দুবাইয়ের হাসপাতালে রিজওয়ানকে সুস্থ করে তোলেন ভারতীয় চিকিৎসক সাহির সাইনালবদিন। রিজওয়ানের খেলার ইচ্ছা ও মানসিকতার প্রশংসা করেন তিনি।

হাসপাতালের অভিজ্ঞতা জানালেন রিজওয়ান

হাসপাতালের অভিজ্ঞতা জানালেন রিজওয়ান ছবি: টুইটার থেকে।

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৬ নভেম্বর ২০২১ ১২:১৪
Share: Save:

টি২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে নামার ২৪ ঘণ্টা আগেই আইসিইউ-তে ভর্তি ছিলেন পাকিস্তানের ওপেনার মহম্মদ রিজওয়ান। বুকে মারাত্মক সংক্রমণ হয়েছিল তাঁর। হাসপাতালে নিয়ে যেতে দেরি হলে নাকি মৃত্যুও হতে পারত তাঁর, এমনটা জানিয়েছেন রিজওয়ান নিজেই।

বিশ্বকাপের পরে ক্রিকেট পাকিস্তানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হাসপাতালের অভিজ্ঞতা জানান রিজওয়ান। তিনি বলেন, ‘‘যখন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তখন শ্বাস পড়ছিল না আমার। চিকিৎসকরা বলেন, আমার শ্বাসনালী বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। প্রথমে বলা হয় পর দিন সকালে আমাকে ছেড়ে দেওয়া হবে। পরে বলা হয় সকালে নয়, সন্ধ্যায় ছাড়া হবে। চিকিৎসকরা বলেন, হাসপাতালে নিয়ে যেতে ২০ মিনিট দেরি হলে আমার শ্বাসনালী ও ফুসফুস কাজ করা বন্ধ করে দিতে পারত।’’

তাঁকে সুস্থ করে তোলার জন্য চিকিৎসকদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন রিজওয়ান। তিনি বলেন, ‘‘চিকিৎসকরা আমাক ২৪ ঘণ্টা নজরে রেখেছিলেন। আমি খালি ভাবছিলাম, সেমিফাইনাল খেলতে পারব কি না। চিকিৎসকরা আমাকে বলেন, আমি খেলার অবস্থায় নেই। সে কথা শুনে আমি ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। তার পরেও যে আমি খেলতে পেরেছি তার জন্য সর্বশক্তিমানকে ধন্যবাদ।’’

দুবাইয়ের হাসপাতালে রিজওয়ানকে সুস্থ করে তোলেন ভারতীয় চিকিৎসক সাহির সাইনালবদিন। রিজওয়ানের খেলার ইচ্ছা ও মানসিকতার প্রশংসা করে সাহির বলেন, ‘‘রিজওয়ান হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে খালি বলতেন, আমি খেলব। আমাকে দলের সঙ্গে থাকতে হব।’’ যে সময়ের মধ্যে রিজওয়ান সুস্থ হয়ে উঠেছেন, তা দেখে অবাক সাহির।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)

অন্য বিষয়গুলি:

T20 World Cup 2021 Mohammad Rizwan Pakistan Cricket
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE