Advertisement
২৮ মে ২০২৪
Virat Kohli

নিজের খেলার ভিডিয়ো দেখা বন্ধ করে দিয়েছেন কোহলি! কেন? বিশ্বকাপের মাঝেই জানিয়ে দিলেন

বিভিন্ন দেশের উইকেটের চরিত্র আলাদা। আবহাওয়াও হয় ভিন্ন। সে সবের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে সফল হতে হয় ক্রিকেটারদের। অস্ট্রেলিয়ায় বরাবরই সাফল্য পান কোহলি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও ব্যতিক্রম নয়।

কোনও সফরের আগে কী ভাবে প্রস্ততি নেন জানিয়েছেন কোহলি।

কোনও সফরের আগে কী ভাবে প্রস্ততি নেন জানিয়েছেন কোহলি। ফাইল ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদন
শেষ আপডেট: ২৯ অক্টোবর ২০২২ ২০:০০
Share: Save:

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৫৩ বলে ৮২ রান। নেদারল্যান্ডসের বিরুদ্ধে ৪৪ বলে ৬২ রান। দুটো ম্যাচ খেলার পরেও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অপরাজিত বিরাট কোহলি। অস্ট্রেলিয়ার উইকেটে কোহলির সাফল্য এই প্রথম নয়। বরাবরই রান করেছেন। অস্ট্রেলিয়া সফরের আগে কী ভাবে প্রস্তুতি নেন? এক সাক্ষাৎকারে সে কথা জানিয়েছেন কোহলি।

ভারতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক জানিয়েছেন, কোনও সফরের আগে প্রচুর ভিডিয়ো দেখে প্রস্তুতি নেওয়ায় বিশ্বাসী নন। উইকেট সম্পর্কে আগে থেকে কিছু ভেবে নেওয়াও ঠিক নয়। কোহলি বলেছেন, ‘‘অস্ট্রেলিয়ায় খেলা অনেকটাই মানসিক। বলের গতি এবং উইকেটের বাউন্স নিয়ে বেশি ভাবার দরকার নেই। ভাবলেই মনে হবে কী ভাবে বাউন্স সামলাব।’’ বেশি ভাবলে অকারণ চাপ তৈরি হয় বলেই মনে করেন তিনি।

কোনও উইকেটে কয়েকটি বল খেলার পর কোহলি ঠিক করেন কী ভাবে ব্যাটিং করবেন। এ নিয়ে কোহলি বলেছেন, ‘‘প্রচুর ভিডিয়ো দেখতে পছন্দ করি না। নেটে অনুশীলনই আমার বেশি পছন্দের। কয়েকটা বল খেললেই বোঝা যায় ব্যাটিংয়ে কী কী পরিবর্তন দরকার বা কী ভাবে ব্যাট করা উচিত। কোনও জায়গায় পৌঁছানোর আগে সঠিক প্রস্তুতি নেওয়া কখনও সম্ভব নয়। সেখানে গিয়ে অনুশীলন করেই প্রস্তুতি নিতে হয়।’’ কোহলির কথায় উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারা জরুরি। তা পারলে যে কোনও উইকেটেই রান পাওয়া সম্ভব।

দীর্ঘ দিন সেরা ছন্দে না থাকা কোহলি রানে ফিরেছেন গত এশিয়া কাপে। সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজের প্রথম শতরান করেন। তার পর থেকেই আবার চেনা মেজাজে দেখা যাচ্ছে তাঁকে। ২২ গজে আগের মতোই আত্মবিশ্বাসী মনে হচ্ছে কোহলিকে দেখে। এশিয়া কাপের ছন্দ ধরে রেখেছেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও। স্বাভাবিক ভাবেই প্রথম দু’ম্যাচের পর তাঁকে নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের আগ্রহ এবং চর্চা বেড়েছে।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারত শুরুতেই ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায়। তিন নম্বরে নেমে দলের ইনিংসের হাল ধরেন কোহলি। নিজের কাঁধে চাপ নিয়ে দলকে রুদ্ধশ্বাস জয় এনে দেন মেলবোর্নের মাঠে। ২৩ অক্টোবর কোহলির সেই ইনিংস মুগ্ধ করেছে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের। পরে নেদারল্যান্ডসের বিরুদ্ধেও প্রাক্তন অধিনায়ককে দেখা গিয়েছে আগ্রাসী মেজাজে। গ্রেগ চ্যাপেলের মতো প্রাক্তন ক্রিকেটার তাঁকে ভারতের সর্বকালের সেরা ব্যাটার হিসাবে বেছে নিয়েছেন। কোহলির প্রশংসা করেছেন পাকিস্তানের প্রাক্তন ক্রিকেটাররাও।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE