×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ জুলাই ২০২১ ই-পেপার

সময়ের সঙ্গেই নিজেকে শান্ত করেন ধোনি, ফাঁস ইরফানের

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ২৯ জুন ২০২০ ০৫:০৪
আস্থা: ধোনির নেতৃত্বে ভরসা রেখেছিলেন ইরফান। ফাইল চিত্র

আস্থা: ধোনির নেতৃত্বে ভরসা রেখেছিলেন ইরফান। ফাইল চিত্র

‘ক্যাপ্টেন কুল’ বলেই তিনি পরিচিত ক্রিকেটবিশ্বে। কঠিন পরিস্থিতিতেও ঠান্ডা মাথায় কী ভাবে ম্যাচ নিজেদের আয়ত্তে নেওয়া যায়, তার শিক্ষা দিয়ে গিয়েছেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। কিন্তু ‘ক্যাপ্টেন কুল’ কি সব সময়েই এতটা শান্ত ছিলেন? না কি সময়ের সঙ্গেই নিজেকে বদলে ফেলেছেন? প্রাক্তন ভারতীয় পেসার ইরফান পাঠান জানিয়ে দিলেন, ২০০৭-এর অধিনায়ক ধোনির সঙ্গে ২০১৩ সালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ধোনির অনেকটাই তফাত ছিল।

প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ধোনির নেতৃত্বে খেলেছেন ইরফান। কয়েক মাস পরেই অস্ট্রেলিয়ায় কমনওয়েলথ ব্যাঙ্ক সিরিজের দলেও ইরফান ছিলেন। ২০১৩-র চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি দলেও ছিলেন এই বাঁ-হাতি পেসার। একদম কাছ থেকে প্রাক্তন অধিনায়কের পরিবর্তন লক্ষ্য করেছেন ইরফান। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই এক ক্রিকেট সম্প্রচারকারী চ্যানেলকে তিনি বলে দিলেন, ‘‘২০০৭-এ ধোনি যখন নেতৃত্বের দায়িত্ব পায়, তখন অনেক বেশি উত্তেজনাপ্রবণ ছিল। তরুণ ক্রিকেটারকে এত বড় দায়িত্ব দেওয়া হলে সে কিছুটা হলেও উত্তেজিত হতেই পারে। যদিও ২০০৭ সালের মতো ২০১৩ সালেও দলীয় বৈঠক হত পাঁচ মিনিটের। কিন্তু তাতেও বেশ কিছু পরিবর্তন দেখা গিয়েছে ধোনির মধ্যে।’’ ইরফানের আরও ব্যাখ্যা, ‘‘ধোনি অধিনায়ক হওয়ার পরে দেখা যেত উইকেটকিপারের জায়গা থেকে বোলারের কাছে ছুটে যাচ্ছে পরামর্শ দেওয়া জন্য। ধোনি তখন বোলারদের নিজের ইচ্ছে মতো নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করত। কিন্তু ২০১৩-র ধোনি একেবারেই অন্য রকম। তখন কিন্তু ধোনি বোলারদের কাছে গিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করত না। বোলারদের উপরে বিশ্বাস তৈরি হয়েছিল। ওদের স্বাধীন ভাবে ভাবার সুযোগ দিত। ও বুঝতে পেরেছিল, বোলারদের নিজের চিন্তাধারা দিয়ে প্রভাবিত করা ঠিক নয়। তখন থেকেই বোঝা যায়, ধোনি কতটা শান্ত হয়ে উঠেছে।’’

আরও পড়ুন: টুইটারে করোনার রিপোর্ট প্রকাশ নিয়ে হাফিজকে দুষলেন শোয়েব

Advertisement

ধোনির মানসিকতা পরিবর্তনের আরও একটি উদাহরণ দিয়েছেন ইরফান। ২০০৭-এ পেসারদের প্রতি একটা দুর্বলতা ছিল ধোনির। কিন্তু যতই সময় এগিয়েছে, মন্থর গতির বোলারদের প্রতি আস্থা তৈরি হয়েছে অধিনায়কের। পাঠান আরও বলেন, ‘‘প্রথম অধিনায়ক হওয়ার পরে ধোনি পেসারদের উপরে খুব নির্ভর করত। কিন্তু ২০১৩ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সময় দেখা গিয়েছে, স্পিনার ও মন্থর গতির বোলারদের অনেক বেশি সুযোগ দিতে শুরু করে ও। পরিষ্কার করে বলেই দিয়েছিল, ‘‘কঠিন পরিস্থিতিতে স্পিনাররাই হবে ওর অস্ত্র। ম্যাচ বার করতে হবে মন্থর গতির বোলারদেরই।’’ রবিবার ইনস্টাগ্রাম লাইভে ইরফান প্রশংসা করেছেন অধিনায়ক রাহুল দ্রাবিড়েরও। ইরফান বলেছেন, ‘‘প্রত্যেক অধিনায়কেরই নেতৃত্ব দেওয়ার নিজস্ব ধরন থাকে। রাহুল দ্রাবিড়ও অন্য রকম চিন্তা করত। ও আগেই প্রত্যেকের দায়িত্ব ভাগ করে দিত। সেই অনুযায়ী খেলতে হত আমাদের।’’

Advertisement