Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

শেষ মুহূর্তের গোলে বেঙ্গালুরুর মানরক্ষা করে নায়ক পার্তালু

ম্যাচে ফেরার জন্য বেঙ্গালুরু এফসি কোচ মুসা দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই নামান তাঁর বিদেশি ক্রিস্টিয়ান ওপসেথ-কে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
২৫ জানুয়ারি ২০২১ ০৬:৫৯
 উচ্ছ্বাস: বেঙ্গালুরুর ত্রাতা পার্তালু।

উচ্ছ্বাস: বেঙ্গালুরুর ত্রাতা পার্তালু।

আইএসএল

বেঙ্গালুরু এফসি ১ ওড়িশা এফসি ১

সময়টা মোটেও ভাল যাচ্ছে না বেঙ্গালুরু এফসি-র। এ বারের ইন্ডিয়ান সুপার লিগের অন্যতম সেরা দল টানা সাত ম্যাচ জয়হীন। যার মধ্যে পাঁচটিতেই হেরেছে তারা। রবিবার ফতোরদার মাঠে শেষ মুহূর্তে এরিক পার্তালুর গোলে হার বাঁচাল তারা। সুনীল ছেত্রীর দল ওড়িশা এফসি-র বিরুদ্ধে ম্যাচ শেষ করল ১-১।

Advertisement

যার ফলে ১৩ রাউন্ডের শেষে মাত্র তিনটি ম্যাচে জয় পেয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে সপ্তম স্থানে রইল নৌশাদ মুসার দল। অন্য দিকে, বেঙ্গালুরুর বিরুদ্ধে জেতার মতো অবস্থায় থেকেও শেষ মুহূর্তে রক্ষণের ভুলে ম্যাচ অমীমাংসিত রাখায় ১৩ রাউন্ডের শেষে মাত্র একটি জয় নিয়ে ৮ পয়েন্ট-সহ এগারো দলের আইএসএলে শেষ স্থানে রইল ব্রিটিশ কোচ স্টুয়ার্ট ব্যাক্সটারের প্রশিক্ষণাধীন ওড়িশা এফসি।

প্রত্যাবর্তনের লক্ষ্য নিয়ে রবিবার বেঙ্গালুরু এফসি কোচ নৌশাদ মুসা আক্রমণে সুনীল ছেত্রী ও উদান্ত সিংহকে রেখে ৪-৪-২ ছকে রণনীতি সাজিয়েছিলেন। বিপক্ষ ওড়িশা এফসিও নেমেছিল একই ছকে। যদিও শুরু থেকেই ছোট ছোট পাসে আক্রমণ গড়ে ওড়িশা এফসিকে কোণঠাসা করে ফেলেছিলেন সুনীলেরা। কিন্তু খেলার গতির বিরুদ্ধে ৮ মিনিটে ম্যানুয়েল ওনোউয়ের বাড়ানো বল থেকে ওড়িশাকে এগিয়ে দেন তাদের ফরোয়ার্ড দিয়েগো মউরিসিয়ো। জেরির ফ্রি-কিক থেকে বেঙ্গালুরু রক্ষণে ভেসে আসা বল ধরে ডানদিকে সরেছিলেন ম্যানুয়েল। সেখান থেকে তিনি রাহুল ভেকেদের বক্সে ক্রস রেখেছিলেন। সেই বল ধরেই জোরালো শটে ওড়িশা এফসি-র হয়ে ১-০ করেন দিয়েগো।

খেলার গতির বিরুদ্ধে গোল খেয়ে গিয়েও হতাশ হননি সুনীলরা। আক্রমণে ঝাঁঝ বাড়াতে শুরু করেন তাঁরা। কিন্তু প্রথমার্ধে বেঙ্গালুরুর সামনে প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন ওড়িশার গোলকিপার অর্ষদীপ সিংহ। ফলে বিরতিতে ম্যাচে ১-০ এগিয়ে ছিলেন ব্যাক্সটারের ছেলেরা।

ম্যাচে ফেরার জন্য বেঙ্গালুরু এফসি কোচ মুসা দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই নামান তাঁর বিদেশি ক্রিস্টিয়ান ওপসেথ-কে। তিনি নামতে আক্রমণ আরও প্রবল হয় সুনীলদের। কিন্তু প্রতি-আক্রমণে এই সময়েও বেঙ্গালুরু গোলমুখে হানা দিয়েছিলেন মউরিসিয়োরা। তবে সেই আক্রমণ সামাল দেন ফ্রান
গঞ্জালেস, হুয়ানানেরা।

৫২ মিনিটে সুনীলের বাড়ানো বল ধরে বেঙ্গালুরুর ব্রাজিলীয় ফুটবলার ক্লেটন সিলভা বিপক্ষ বক্সে বল ভাসিয়ে দিয়েছিলেন উদান্তের জন্য। উদান্ত সেই বল গৌরব বোরার উদ্দেশে নামিয়ে দিলেও সেই প্রয়াস ফের ব্যর্থ করেন অর্ষদীপ। ৮১ মিনিটে বাঁ দিক থেকে সুনীলের কর্নার থেকে ক্লেটনের গোল করার প্রয়াস আটকে দেন ওড়িশার জেকব ট্র্যাট। বল মাঠের বাইরে গেলে রেফারি ফের কর্নারের নির্দেশ দেন। পরের মিনিটে ফের বাঁ দিক থেকে এ বার ক্লেটন কর্নার নিলে তাতে মাথা ছুঁইয়ে সমতা ফেরান এরিক পার্তালু।

আরও পড়ুন

Advertisement