Advertisement
২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Mohammedan Sporting Club

কলকাতা লিগ জয়ের হ্যাটট্রিক মহমেডানের, মোহনবাগানকে হারিয়ে ট্রফি জিতলেন ডেভিডরা

কলকাতা লিগ জয়ের হ্যাটট্রিক করল মহমেডান স্পোর্টিং। শুক্রবার কিশোর ভারতী স্টেডিয়ামে মিনি ডার্বিতে মোহনবাগানকে ২-০ গোলে হারিয়ে দিল তারা। গোল করলেন রেমসাঙ্গা এবং ডেভিড লালানসাঙ্গা।

football

মহমেডান সমর্থকদের উচ্ছ্বাস। ছবি: টুইটার।

আনন্দবাজার অনলাইন সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৭:১৩
Share: Save:

কলকাতা লিগ জয়ের হ্যাটট্রিক করল মহমেডান স্পোর্টিং। শুক্রবার কিশোর ভারতী স্টেডিয়ামে মিনি ডার্বিতে মোহনবাগানকে ২-০ গোলে হারিয়ে দিল তারা। গোল করলেন রেমসাঙ্গা এবং ডেভিড লালানসাঙ্গা। সুপার সিক্সে নিজেদের শেষ ম্যাচে লিগ জয় নিশ্চিত করল তারা। অন্য দিকে, মোহনবাগান সুপার সিক্সের প্রথম ম্যাচে খেলতে নেমেছিল। মহমেডানকে আর কারও দিকে তাকাতে হবে না। এই নিয়ে ১৪ বার কলকাতা লিগ জিতল তারা।

ম্যাচের শুরুতে আক্রমণ করে মহমেডানেই। মোহনবাগান চাইছিল বল নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবং লম্বা বলে খেলতে। কিন্তু ম্যাচ যত গড়াতে থাকে তত মহমেডানের আক্রমণ বাড়তে থাকে। মোহনবাগানের ডিফেন্সের তখন দিশেহারা অবস্থা। ১২ মিনিটের মাথায় গোললাইন সেভ করেন মোহনবাগানের এক ডিফেন্ডার। স্যামুয়েলের শট গোলে ঢুকে যাচ্ছিল। শেষ মুহূর্তে গোল হয়নি।

কিন্তু পরের মিনিটেই গোল খেয়ে যায় মোহনবাগান। কর্নার থেকে হেডে গোল করেন লালরেমসাঙ্গা। তাঁকে আটকানোর জন্যে সামনে মোহনবাগানের কোনও ডিফেন্ডার ছিলেন না। গোল খাওয়ার পর কিছু ক্ষণ মোহনবাগান আক্রমণাত্মক খেলার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু মহমেডানের রক্ষণ এতটাই জমাট ছিল যে দাঁত ফোটাতে পারছিল না তারা।

২১ মিনিটে আবার এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ এসেছিল মহমেডানের কাছে। তন্ময় ঘোষ পাস দিয়েছিলেন বিকাশকে। তাঁর শট ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। ফিরতি বলে রেমসাঙ্গার শট বারের উপর দিয়ে উড়ে যায়। কিছু ক্ষণ পরে তন্ময় এবং আঙ্গুসানা নিজেদের মধ্যে পাস খেলে এগিয়ে যান। কিন্তু গোল হয়নি।

৩৮ মিনিটে দ্বিতীয় গোল করে মহমেডান। মাঝমাঠ থেকে ভাসানো বল পেয়ে মোহনবাগানের বক্সে ঢুকে পড়েন ডেভিড। দুই মোহনবাগান ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে গোলকিপার দেবনাথ মণ্ডলকে বোকা বানিয়ে বল জালে জড়ান। কলকাতা লিগে ১৭টি ম্যাচ খেলে ২১টি গোল এবং চারটি অ্যাসিস্ট হল তাঁর। সর্বোচ্চ গোলদাতার দৌড়ে তাঁর ধারেকাছে এখন কেউ নেই।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই দুটি সুযোগ পেয়েছিলেন ডেভিড। কিন্তু কাজে লাগাতে পারেননি। দু’গোলে পিছিয়ে থাকার পরেও মোহনবাগানের আক্রমণে সে ভাবে ঝাঁজ লক্ষ্য করা যায়নি। রক্ষণ সামলাতেই ব্যস্ত ছিল তারা। উল্টে মহমেডান একের পর এক আক্রমণ করে ব্যবধান বাড়ানোর চেষ্টা করে যাচ্ছিল। ম্যাচের শেষ দিকে সুহেল ভাট একটি সহজ সুযোগ নষ্ট করেন।

তবে তার অনেক আগে থেকেই জয়ের উৎসব শুরু করে দিয়েছিলেন মহমেডান সমর্থকেরা। ম্যাচ শেষ হওয়ার পর উৎসব আরও বাড়ে। এর আগে ১৯৩৪ থেকে ১৯৩৮ পর্যন্ত টানা পাঁচ বার কলকাতা লিগ জিতেছিল মহমেডান। আবার কলকাতা লিগ জয়ের হ্যাটট্রিক করল তারা।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE