Advertisement
০১ ডিসেম্বর ২০২২

আমন্ত্রণ জানায়নি কেরল, ক্ষুব্ধ বিজয়ন এটিকে-সমর্থক

প্রথম আইএসএল ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল এটিকে ও কেরল ব্লাস্টার্স। নিজের রাজ্যের দলকে সমর্থন করতে মুম্বই উড়ে গিয়েছিলেন বিজয়ন।

ব্রাত্য: কেরল ব্লাস্টার্স কর্তাদের উপেক্ষায় হতাশ বিজয়ন। ফাইল চিত্র

ব্রাত্য: কেরল ব্লাস্টার্স কর্তাদের উপেক্ষায় হতাশ বিজয়ন। ফাইল চিত্র

শুভজিৎ মজুমদার
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৯ অক্টোবর ২০১৯ ০৫:১০
Share: Save:

কেরলের ভূমিপুত্র তিনি। অথচ আইএসএলে নিজের রাজ্যের দল কেরল ব্লাস্টার্স নয়, আই এম বিজয়ন সমর্থন করবেন এটিকে-কে! প্রাক্তন সতীর্থ এম সুরেশকে সঙ্গে নিয়ে রবিবার উদ্বোধনী ম্যাচে কোচির জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামে যাবেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দলের হয়ে গলা ফাটাতে।

Advertisement

প্রথম আইএসএল ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল এটিকে ও কেরল ব্লাস্টার্স। নিজের রাজ্যের দলকে সমর্থন করতে মুম্বই উড়ে গিয়েছিলেন বিজয়ন। কেরল দলের হলুদ জার্সি পরে গ্যালারি থেকে উৎসাহ দিয়েছিলেন ফুটবলারদের। এটিকে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে হতাশায় ভেঙেও পড়েছিলেন ভারতীয় ফুটবলের সর্বকালের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার। হঠাৎ কী এমন হল যে এটিকের সমর্থক হয়ে উঠলেন বিজয়ন?

শুক্রবার ত্রিশূর থেকে ফোনে আনন্দবাজারকে ক্ষুব্ধ বিজয়ন বললেন, ‘‘কেরল ব্লাস্টার্স আমাদের কোনও গুরুত্বই দেয় না। ম্যাচ দেখার জন্য আমন্ত্রণও জানায়নি। অথচ কোচিতে ম্যাচ হওয়া সত্ত্বেও এটিকে কর্তারা আমাদের খেলা দেখতে যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। ওঁদের ব্যবহারে আমরা অভিভূত।’’ তিনি যোগ করলেন, ‘‘দুর্গা পুজোর সময় কলকাতায় গিয়েছিলাম। তখনই উদ্বোধনী ম্যাচ দেখতে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন এটিকে কর্তারা। পরে সুরেশকে ফোনেও আমন্ত্রণ করেন ওঁরা।’’

রবিবারের ম্যাচে এটিকের জার্সি অবশ্য পরবেন না বিজয়ন ও সুরেশ। হাসতে হাসতে বললেন, ‘‘কোচি স্টেডিয়ামে নব্বই শতাংশই কেরলের সমর্থক থাকবেন। ফলে এটিকের জার্সি পরে যাওয়ার একটু ঝুঁকির হয়ে যাবে।’’ বিজয়ন হতাশ এটিকের দুই ভরসা জবি জাস্টিন ও আনাস এডাথোডিকা না থাকায়। গত মরসুমে ইস্টবেঙ্গলে খেলার সময় শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে ছয় ম্যাচ নির্বাসিত হন জবি। যার মধ্যে তিনটি ম্যাচ হয়ে গিয়েছে। বাকি রয়েছে আরও তিনটি ম্যাচ। ফলে কেরল, হায়দরাবাদ ও চেন্নাইয়িন ম্যাচে জবিকে ছাড়াই দল নামাতে হবে আন্তোনিয়ো লোপেজ হাবাসকে।

Advertisement

আনাসকে শুধু রবিবারের ম্যাচেই পাচ্ছে না এটিকে। গত মরসুমে কেরল ব্লাস্টার্সের হয়ে সুপার কাপে ইন্ডিয়ান অ্যারোজের বিরুদ্ধে ম্যাচে লাল কার্ড দেখেছিলেন ভারতীয় দলের ডিফেন্ডার। বিজয়ন বলছিলেন, ‘‘আনাস ও জবির না থাকাটা বড় ক্ষতি কলকাতার জন্য। অনেক বিতর্কের পরে এটিকে-তে সই করেছে জবি। মাঠে নেমে নিজেকে প্রমাণের জন্য ছটফট করছে ও। এই অবস্থায় খেলতে না পারাটা বড় ধাক্কা। আনাস রক্ষণের বড় ভরসা।’’

তা হলে কি কলকাতার জয়ের সম্ভাবনা কম? বিজয়ন বলছেন, ‘‘এ বছর এটিকের খেলা এখনও দেখিনি। তবে হাবাসের মতো কোচ যখন রয়েছেন, তখন চিন্তিত হওয়ার কোনও কারণ রয়েছে বলে মনে করি না। বলবন্ত সিংহ, জয় কৃষ্ণের মতো ফুটবলারেরা আছে। আশা করছি, জয় দিয়েই এই মরসুমে আইএসএলে অভিযান শুরু করবে এটিকে।’’

শুক্রবার রাতেই কোচি পৌঁছে গিয়েছে আইএসএলে দু’বারের চ্যাম্পিয়ন এটিকে। শনিবার সকালে চূড়ান্ত প্রস্তুতি সারবেন হাবাস। কলকাতা বনাম কেরল ম্যাচকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই উত্তাপ বাড়তে শুরু করে দিয়েছে। তুঙ্গে টিকিটের চাহিদা। সন্ধে ছ’টায় শুরু হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। মঞ্চে থাকবেন বলিউড তারকা টাইগার শ্রফ ও দিশা পাটানি। ম্যাচ শুরু সন্ধে সাড়ে সাতটায়।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.