×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৪ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

টানা ৫ ম্যাচ হেরে পর পর ৫ ম্যাচ জয়, কামব্যাকের নতুন গল্প লিখছে পঞ্জাব

নিজস্ব প্রতিবদেন
কলকাতা ২৭ অক্টোবর ২০২০ ১৩:৪৭
টানা ম্যাচ জিতে প্লে অফের দৌড়ে পঞ্জাব।

টানা ম্যাচ জিতে প্লে অফের দৌড়ে পঞ্জাব।

১৪ অক্টোবর ২০২০। আইপিএলে তখন ৭ ম্যাচের মধ্যে ৬টিতে হেরে ধুঁকছে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। দলের অবস্থান পয়েন্ট টেবিলের একেবারে নীচে। দুর্দান্ত ব্যাট করছেন লোকেশ রাহুল-ময়াঙ্ক আগরওয়ালরা। বল হাতে আগুন ঝরাচ্ছেন মহম্মদ শামি। কিন্তু সব ম্যাচই শেষ মুহূর্তে হেরে যাচ্ছে অনিল কুম্বলের দল। সেই সময় বিরাট কোহালিকে পঞ্জাবের অধিনায়ক লোকেশ রাহুল বলেছিলেন যে, তাঁরা ২০১৬ সালের ব্যাঙ্গালোরকে দেখে অনুপ্রাণিত হতে চাইছেন। সে বার শুরুর ৫টি ম্যাচ হেরেও ফাইনাল খেলেছিল আরসিবি।

২৬ অক্টোবর ২০২০। মাত্র ১২ দিনের ব্যবধান। পর পর পাঁচ ম্যাচ জিতে লিগ টেবিলের ৪ নম্বরে উঠে একেবারে ফিনিক্সের মতো উত্থান হয়েছে পঞ্জাবের। সপ্তাহ দু’য়েক আগে যে দলের বিদায় নিশ্চিত বলে লিখে ফেলেছিলেন বহু ক্রিকেটবোদ্ধা, তারাই এখন প্লে অফের দৌড়ে অনেকের চেয়ে এগিয়ে। রাহুলদের শেষ দুই ম্যাচ রাজস্থান এবং চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে। দুই দলকে হারিয়ে প্লে অফ খেলবে পঞ্জাব, এমনটাই এখন মনে করছেন বেশির ভাগ ক্রিকেটবোদ্ধা।

ঠিক কী ভাবে সম্ভব হল কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের এই রূপকথার উড়ানের? গাওস্করের মতো অনেকে এর পিছনে কোচ অনিল কুম্বলের হার না মানা মনোভাবের কথা বলছেন। প্রাক্তন অধিনায়ক সুনীল গাওস্কর বলেন, ‘‘অনিল কুম্বলের ভূমিকার কথা মনে রাখতে হবে। লড়াকু ক্রিকেটার ছিল কুম্বলে। ভাঙা চোয়াল নিয়ে বল করেছিল। সেই স্পিরিটই দেখা যাচ্ছে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের ছেলেদের মধ্যে। সেই কারণেই প্রায় ছিটকে যেতে যেতে এখন প্লে অফের দৌড়ে রয়েছে পঞ্জাব।’’

Advertisement

আরও পড়ুন: টানা পাঁচ ম্যাচে জয়, কলকাতাকে সরিয়ে চারে পঞ্জাব

তবে এ কথাও ঠিক যে বেশ কিছু জেতা ম্যাচ হেরেছে পঞ্জাব। যেমন দিল্লির কাছে সুপার ওভারে হার থেকে নাইটদের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচে ২ রানে হার। পঞ্জাব দলে কোথাও যেন সেই এক্স ফ্যাক্টরের অভাব ছিল। সেই অভাবটাই বোধহয় পূর্ণ হয়েছে দলে ক্রিস গেলের অন্তর্ভুক্তিতে। দলে সুযোগ পেয়েই দুর্দান্ত হাফ সেঞ্চুরি করেন ইউনিভার্স বস। আর তাতেই ব্যাঙ্গালোরকে হারিয়ে দেয় পঞ্জাব। সেই শুরু। এর পর টানা ৫ ম্যাচ জিতেছে তারা। যার মধ্যে রয়েছে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ২ সুপার ওভাবের সেই দুর্দান্ত জয়ও।

গেল ছাড়াও পঞ্জাবের এই জয়ের পিছনে রয়েছে প্রতি ম্যাচে আলাদা ম্যাচ উইনারের উপস্থিতিও। রাহুল তো বটেই, কখনও মহম্মদ শামি, কখনও রবি বিষ্ণোইয়ের মতো নতুন কেউ উঠে এসেছেন নায়ক হয়ে। ব্যাটে রান করতে না পারলেও বল হাতে কার্যকরী হয়ে উঠেছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

এ বার অপেক্ষা আর দুই ম্যাচের। টানা ৭ ম্যাচ জিতে কি পঞ্জাব পারবে প্লে অফে যেতে?

Advertisement