Advertisement
০৩ ডিসেম্বর ২০২২
Sports News< Football

আইএসএল-এর শুরুতে লড়াই আসলে রাজায় রাজায়

তিন বারের আইএসএল-এ এটিকে দু’বারের চ্যাম্পিয়ন হলে কেরল দু’বারের রানার্স। আর তার থেকেও বড় দু’বারই ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল এই দুই দল।দু’বারই অবশ্য কলকাতার কাছে হারের মুখ দেখতে হয়েছে কেরলকে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
শেষ আপডেট: ১২ নভেম্বর ২০১৭ ১৩:৩৯
Share: Save:

হাতে আর মাত্র কয়েকটা দিন। মাঠে নেমে পড়তে প্রস্তুত সব দল। এর মধ্যে যাদের নিয়ে আইএসএল-এর পারদ তুঙ্গে সেই দুই দলের হাত ধরেই শুভারম্ভ হয়ে যাচ্ছে চতুর্থ আইপিএল-এর।

Advertisement

ধারাবাহিকতার নিরিখে এখনও পর্যন্ত আইএসএল-এর ইতিহাসে এগিয়ে থাকবে এই দুই দল। গত মরসুমে ঠিক যেখানে শেষ করেছিল তাই হয়ত সেখান থেকেই শুরু করছে কেরালা ব্লাস্টার্স ও এটিকে। যে কারণে ভেন্যুও বদলে দেওয়া হয়েছে রাতারাতি। কলকাতায় ওপেনিং থাকলেও তা সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে কোচিতে। কেরলের আপন দেশে। ফাইনাল উপহার দেওয়া হয়েছে কলকাতাকে। সব সময়ই ফুটবলকে প্রাণ খুলে সমর্থন করেছে এই রাজ্য তাতে কী এখন আর আগের মতো বিশ্বমানের ফুটবলারের রমরমা নেই সেই রাজ্যে। নেই বিজয়ন, আনচেরিরা। কিন্তু সিকে বিনিথের জন্যও গলা ফাটাতে মরিয়া দক্ষিণের এই ফুটবল রাজ্য। সেই উচ্চতায়ও নিজেকে নিয়ে গিয়েছেন বিনিথ। যে কারণ এ বার বেঙ্গালুরু এফসি ছেড়ে কেরলেই থেকে গিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন

ক্রিকেট শহর মেতে ফুটবল বোধন নিয়ে

Advertisement

কেন ধারাবাহিকতার নিরিখ এগিয়ে থাকবে এই দুই দল?

কারণ তিন বারের আইএসএল-এ এটিকে দু’বারের চ্যাম্পিয়ন হলে কেরল দু’বারের রানার্স। আর তার থেকেও বড় দু’বারই ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল এই দুই দল।দু’বারই অবশ্য কলকাতার কাছে হারের মুখ দেখতে হয়েছে কেরলকে। দুই ‘K’এর লড়াই অবশ্য সব সময়ই অন্যমাত্রা পেয়েছে আরও একটি কারণে। সেই লড়াই ফুটবলের মাঠ ছেড়ে পৌঁছে গিয়েছে ক্রিকেট মাঠেও। এমনই এই দুই দলের লড়াই। এই দুই দল যখন মুখোমুখি হয় তখন লড়াইটা হয়ে দাঁড়ায় সচিন বনাম সৌরভের। আর আগের দু’বারই সচিনকে হারতে হয়েছে সৌরভের কাছে। আসলে ফুটবলের বাইরে বেরিয়ে তখন লড়াইটা হয়ে দাড়ায় দাদা আর ছোটবাবুর। ক্রিকেট মাঠে কাঁধে কাধ মিলিয়ে লড়াই করা দুই কিংবদন্তির ফুটবল যুদ্ধ কিন্তু তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করেন গোটা দেশ।

গত মরসুমের আইএসএল ফাইনালের একটি মুহূর্ত।

২০১৪তে শুরু হয়েছিল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ। সে বার ফাইনালে কেরল ব্লাস্টার্সকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল কলকাতা। ২০১৬তে তৃতীয় বছরও একই ফল। প্রথম বছর মহম্মদ রফিকের শেষ বেলার গোলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল কলকাতা। দ্বিতীয় বছর ম্যাচ ১-১ থেকে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে জয় ছিনিয়ে নিয়েছিল কলকাতা। মাঝের মরসুমটা ভাল যায়নি দুই দলেরই। তাও একটু হলেও এগিয়ে ছিল কলকাতা। সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে যেতে হয়েছিল। সেখানে কেরল লিগের গণ্ডিই পেড়তে পারেনি। শেষ করেছিল তালিকার সবার শেষে।

আরও পড়ুন

নেমারের হলুদ কার্ডে অসন্তুষ্ট তিতে

এ বার আবার দুই দলের সামনেই অন্য যুদ্ধ। কেরল চাইবে ফাইনালে গেড়ো কাটিয়ে চ্যাম্পিয়ন হতে আর কলকাতায় সামনে তৃতীয়বার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্য। দুই দলকেই তাতাচ্ছে তাদের অতীত। কলকাতার মাথা থেকে সরে গিয়েছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের হাত। গতবারের দল প্রায় বদলে ফেলেছে কলকাতা। বদলে গিয়েছে কোচিং স্টাফও। তার মধ্যেই এই মরসুমে কলকাতার হয়ে নজর কাড়তে তৈরি ছিলেন আয়ারল্যান্ড তারকা রবি কিন। তাঁকে ঘিরেই তৈরি হচ্ছিল যাবতীয় পরিকল্পনা। কিন্তু টুর্নামেন্ট শুরুর সাত দিন আগে তাঁর চোটে চিন্তায় এটিকে শিবির। বাঁ হাটুর চোটের জন্য তাঁকে দু’সপ্তাহ বিশ্রাম নিতে হতে পার। যে কারণে তাঁর দেশে ফিরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই অবস্থায় দলের ফোকাস এখন ভারতীয়দের দিকেই। সেই তালিকায় এগিয়ে দু’জন। এক, গোলকিপার দেবজিৎ মজুমদার ও দুই, এই মুহূর্তে দেশের সব থেকে দামি মিড ফিল্ডার ইউজিনসন লিংডো।

অন্যদিকে কেরল দলে কলকাতার নজরে থাকবেন এমন একজন প্লেয়ার যে গত দু’বছর সাফল্যের সঙ্গে কাটিয়ে গিয়েছেন এই শহরে। তিনি ইয়ান হিউম। আইএসএল-এর প্রথম বছর অবশ্য তিনি ছিলেন কেরলে। আবার ফিরেছেন পুরনো দলে। এখনও পর্যন্ত তাঁর দখলে রয়েছে টুর্নামেন্টের ২৩টি গোল। বুলগেরিয়ান স্ট্রাইকার দিমিতার বার্বাতোভ ছাড়াও কেরলেন হয়ে বাজিমাত করতে প্রস্তুর ভারতীয় ডিফেন্ডার সন্দেশ ঝিঙ্গান। জাতীয় দলের বড় ভরসা আইএসএল-এ ভরসা দিচ্ছে কেরলকেও।

অন্যদিকে কেরল দলে কলকাতার নজরে থাকবেন এমন একজন প্লেয়ার যে গত দু’বছর সাফল্যের সঙ্গে কাটিয়ে গিয়েছেন এই শহরে। তিনি ইয়ান হিউম। আইএসএল-এর প্রথম বছর অবশ্য তিনি ছিলেন কেরলে। আবার ফিরেছেন পুরনো দলে। এখনও পর্যন্ত তাঁর দখলে রয়েছে টুর্নামেন্টের ২৩টি গোল। বুলগেরিয়ান স্ট্রাইকার দিমিতার বার্বাতোভ ছাড়াও কেরলেন হয়ে বাজিমাত করতে প্রস্তুর ভারতীয় ডিফেন্ডার সন্দেশ ঝিঙ্গান। জাতীয় দলের বড় ভরসা আইএসএল-এ ভরসা দিচ্ছে কেরলকেও।

লড়াইটা যখন সচিন, সৌরভের লড়াই তখন কলকাতা, কেরলেরও। আর সেই লড়াইকে মাঠে নেমে যাঁরা রূপ দেবেন তাঁদেরও প্রস্তুতি সারা। এ বার শুরু নেমে পড়ার অপেক্ষা।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.