×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

ছাঁটাই ব্যাটিং কোচ, রুটদের দায়িত্বে সুইপ-বিশেষজ্ঞ ট্রেসকথিক

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০২ মার্চ ২০২১ ০৮:২১
মার্কাস ট্রেসকথিককে।

মার্কাস ট্রেসকথিককে।
ছবি সংগৃহীত

পর পর দুটো টেস্টে ব্যাটিং বিপর্যয়ের জের। সরিয়ে দেওয়া হল জোনাথন ট্রটকে। যিনি এই সফরে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং কোচ হিসেবে এসেছিলেন। তাঁর জায়গায় নিয়ে আসা হচ্ছে প্রাক্তন ওপেনার মার্কাস ট্রেসকথিককে। যিনি স্পিনের বিরুদ্ধে একটা সময় দাপটে ব্যাট করেছেন। এবং, অনেক প্রাক্তন ক্রিকেটারই যাঁকে সুইপ বিশেষজ্ঞ হিসেবে চিহ্নিত করে থাকেন।

টেস্ট সিরিজ শুরু হওয়ার আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে ট্রট বলেছিলেন, তিনি নিয়মিত ভাবে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং কোচের দায়িত্ব সামলাতে চান। কিন্তু দুটো টেস্টে ব্যাটিং বিপর্যয়ের পরে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড আর অপেক্ষা করেনি। চতুর্থ টেস্ট শুরুর আগেই নতুন কোচের নাম জানিয়ে দিয়েছে। বর্তমানে সমারসেটের সহকারী কোচ হিসেবে কাজ করছেন ট্রেসকথিক। শোনা যাচ্ছে, মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে দায়িত্ব নিতে পারেন নতুন ব্যাটিং কোচ। পাশাপাশি পেস বোলিং কোচ হিসেবে জন লুইস এবং স্পিন বোলিং কোচ হিসেবে জীতন পটেলকে রেখে দেওয়া হয়েছে।

স্পিনের বিরুদ্ধে ভাল খেলার সুনাম ছিল ট্রেসকথিকের। তাঁর ব্যাটিংয়ের বড় বৈশিষ্ট ছিল সুইপ শট। ইংল্যান্ডের প্রাক্তন বাঁ-হাতি স্পিনার মন্টি পানেসর একবার ট্রেসকথিক সম্পর্কে বলেছিলেন, ‘‘বিভিন্ন কোণ থেকে সুইপ মারতে পারে ট্রেসকথিক। এমনটা আমি কাউকে মারতে দেখিনি।’’ ট্রেসকথিকের এক সময়কার জাতীয় এবং কাউন্টি দলের সতীর্থ, বাঁ-হাতি স্পিনার ইয়ান ব্ল্যাকওয়েল কিছু দিন আগে বলেছিলেন, ‘‘সাত-আট রকমের সুইপ মারতে পারত ট্রেসকথিক। অফস্টাম্পের বাইরের বলকে লং অনে পাঠানো থেকে শুরু করে ৪৫ ডিগ্রিতে প্যাডল সুইপ, সব ছিল ওর হাতে।’’ ইংল্যান্ডের ক্রিকেট মহল মনে করছে, ট্রেসকথিকের কোচিংয়ে ইংল্যান্ড ব্যাটসম্যানদের স্পিন খেলার দক্ষতা বাড়তে পারে। বাড়তে পারে সুইপ মারার ক্ষমতাও। তবে সেই তালিম পেতে এই সফর শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে ইংল্যান্ডকে। তার আগে রুটদের সামনে রয়েছে চতুর্থ টেস্টের চ্যালেঞ্জ। এ দিন ইংল্যান্ডের মিডিয়া ম্যানেজার মোতেরার পিচের ছবি টুইট করে লিখেছেন, ‘‘আবার পিচের সময় এসেছে। তিন দিন বাকি চতুর্থ টেস্টের।’’ ৪ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে সিরিজের শেষ টেস্ট। যেখানে ভারত ২-১ এগিয়ে। ইংল্যান্ড শিবির মনে করছে, শেষ টেস্টেও তাদের ঘূর্ণি পিচের সামনে পড়তে হবে। ভার্চুয়াল সাংবাদিক বৈঠকে ইংল্যান্ডের স্পিন বোলিং কোচ জীতন পটেল এ দিন বলেছেন, ‘‘টস জিতে প্রথমে ব্যাট করলে আমাদের লক্ষ্য থাকবে যত বেশি সম্ভব রান তোলা। যাতে ঘূণি পিচে সমস্যা না হয়।’’

Advertisement

ইংল্যান্ডের বাঁ-হাতি স্পিনার জ্যাক লিচ এ দিন সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আগের টেস্টে কী হয়েছে, আমরা ভুলে গিয়েছি। আবার লাল বলের ক্রিকেটে ফিরছি। এই সিরিজ যে এখনও ড্র করতে পারি আমরা, সেটা মাথায় রেখেই শেষ
টেস্টে নামব।’’

আগের টেস্টে গোলাপি বল ব্যাটসম্যানদের সমস্যায় ফেলেছিল বলে মনে করেন লিচ। বাঁ-হাতি স্পিনারের মন্তব্য, ‘‘এ বার লাল বলের খেলা। গোলাপি বলটা স্কিড করেছিল বেশি। ব্যাটসম্যানদের কাছে বেশি জোরে যাচ্ছিল। লাল বলে অতটা বোধ হয় হবে না।’’

তবে লিচ মেনে নিয়েছেন, ভারতের দুই স্পিনার— আর অশ্বিন এবং অক্ষর পটেল দারুণ বল করেছেন। লিচের মতে, তৃতীয় টেস্টের পিচ নিয়ে প্রচারমাধ্যমে যতটা হইচই করা হয়েছে, ততটা হইচই ক্রিকেটারদের মধ্যে হয়নি।



Tags:

Advertisement