Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২০ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

গতিময় গাব্বায় প্রথম টেস্টের পক্ষে সওয়াল হেজ্‌লউডের

নিজস্ব প্রতিবেদন 
কলকাতা ১৯ নভেম্বর ২০২০ ০৬:০৮
বার্তা: ভারতকে গতিতে অস্বস্তিতে ফেলতে চান হেজ্‌লউড। ফাইল চিত্র

বার্তা: ভারতকে গতিতে অস্বস্তিতে ফেলতে চান হেজ্‌লউড। ফাইল চিত্র

নতুন করে কোভিড আতঙ্ক তৈরি হওয়ায় অস্ট্রেলিয়া-ভারত প্রথম টেস্ট অ্যাডিলেডে হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়া দল কিন্তু ম্যাচ সরতে পারে ধরে নিয়ে তাদের পছন্দের কথা জানাতে শুরু করে দিয়েছে। জশ হেজ্‌লউড যেমন। অস্ট্রেলীয় পেসার জানিয়ে দিলেন, প্রথম টেস্ট অ্যাডিলেডে না হলে ব্রিসবেনে দেওয়া হোক। গাব্বার অতিরিক্ত পেস ও বাউন্সে বল করতে তাঁরা বরাবরই পছন্দ করেন। ১৯৮৮ থেকে গাব্বার আগুনে পিচে টেস্ট হারেনি অস্ট্রেলিয়া।

‘‘সত্যি কথা বলতে কী, ব্রিসবেনে প্রথম টেস্ট হলে ভালই হবে। ওখানে আমাদের রেকর্ড দারুণ এবং এত সফল একটা মাঠে সিরিজ শুরু করতে কার না ভাল লাগবে,’’ বলছেন হেজ্‌লউড।

সম্প্রতি করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকার কারণে টিম পেন, মার্নাস লাবুশেনদের অ্যাডিলেড থেকে উড়িয়ে নিয়ে আসা হয়েছে নিউ সাউথ ওয়েলসে। ১৭ ডিসেম্বর থেকে অ্যাডিলেডেই দিনরাতের টেস্ট শুরু হওয়ার কথা ছিল। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট বোর্ড) এখনও বলে চলেছে, প্রথম টেস্ট সরানোর পরিকল্পনা নেই। তবে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকলে কী হবে, বলা যাচ্ছে না। হেজ্‌লউড বলছেন, ‘‘ডিসেম্বরে ব্রিসবেনে সে রকম গরম পড়বে না। পেসাররা তাই ভালই সাহায্য পাবে।’’ ভারতের বিরুদ্ধে ব্রিসবেনে শেষ টেস্ট অস্ট্রেলিয়ার। জানুয়ারিতে অতিরিক্ত গরমের মধ্যে হেজ্লউডরা সাহায্য পাবেন কি না তা নিয়ে প্রশ্ন থাকছে। তাই হেজ্লউড বলছেন, ‘‘ব্রিসবেনের ম্যাচ আগে হয়ে গেলে অনেকটাই সুবিধা। জানুয়ারিতে অনেক গরম পড়ে। পিচেও প্রাণ থাকে না। তাই পেসাররা সে রকম সাহায্য পায় না।" যদিও অ্যাডিলেডে দিনরাতের টেস্ট হওয়ারও পক্ষে তিনি। মনে করেন, যে ভাবে অ্যাডিলেড দিনরাতের ম্যাচের আয়োজন করে, তা কেউ পারে না। গোলাপি বলের জন্য সেরা পিচও সেখানেই হয় বলে তিনি অস্ট্রেলীয় সংবাদমাধ্যমে মন্তব্য করেছেন। হেজ্‌লউড নিজে গোলাপি বলে অ্যাডিলেডে খুব সফল বোলার। চারটি দিনরাতের টেস্টে নিয়েছেন ২২ উইকেট। তাঁর সমাধানসূত্র, ‘‘অ্যাডিলেডে যদি প্রথম টেস্ট না হয়, ব্রিসবেনে সিরিজ শুরু হোক। পরে দিনরাতের টেস্ট হোক অ্যাডিলেডেই। তত দিনে আশা করা যায়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে।’’

Advertisement

এ দিকে বুধবারই অস্ট্রেলিয়ার সীমিত ওভারের দল থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করলেন মিডিয়াম পেসার কেন রিচার্ডসন। কোভিড নিয়ে আতঙ্কের পরিস্থিতিতে ক্রিকেট মাঠে নয়, তিনি পরিবারের সঙ্গেই থাকতে চান। জানিয়েছেন, স্ত্রী ও সদ্যজাত শিশুকে বাড়িতে রেখে তাঁর পক্ষে এই সিরিজ খেলা সম্ভব নয়। অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় নির্বাচক ট্রেভর হন্স বলেছেন, ‘‘রিচার্ডসনের অ্যাডিলেডের বাড়ি থেকে ওকে উড়িয়ে নিয়ে যেতে চেয়েছিলাম আমরা। কিন্তু সদ্যজাত শিশু ও স্ত্রীকে রেখে ও অ্যাডিলেডের বাড়ি ছাড়তে চায়নি।’’ অস্ট্রেলিয়ার কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গারও বলেছেন, ‘‘সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন। আমরা সকলেই ওর পরিস্থিতি বুঝতে পারছি।’’ তাঁর পরিবর্তে দলে এসেছেন অ্যান্ড্রু টাই।

আরও পড়ুন

Advertisement