Advertisement
১০ ডিসেম্বর ২০২২
Virat Kohli

বিরাটকে থামাতে শর্ট বলই অস্ত্র ছিল বোল্টের

দ্বিতীয় ইনিংসে ৪৩ বলে ১৯ রান করে কোহালি শেষ পর্যন্ত বোল্টের শিকার হন।

বিধ্বংসী: কোহালিকে ফিরিয়ে দিয়ে বোল্ট। রবিবার। এএফপি

বিধ্বংসী: কোহালিকে ফিরিয়ে দিয়ে বোল্ট। রবিবার। এএফপি

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৩:৫৯
Share: Save:

বিরাট কোহালির বিরুদ্ধে তাঁরা যে কৌশল ঠিক করে রেখেছিলেন, তা কাজে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন ট্রেন্ট বোল্ট।

Advertisement

রবিবার প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে বোল্টের বাউন্সার হুক করতে গিয়ে উইকেটকিপারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান কোহালি। দিনের শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বোল্ট বলেন, ‘‘শুরুতে বিরাট চায় যেন ঠিকঠাক ব্যাটে-বলে হয়। বোলাররা একটু ভুল করলেই ও দ্রুত রান তুলতে থাকে, বাউন্ডারি মারতে থাকে। তাই আমরা চেয়েছিলাম, শুরুতে বিরাটের রানটা আটকে দিতে।’’

দ্বিতীয় ইনিংসে ৪৩ বলে ১৯ রান করে কোহালি শেষ পর্যন্ত বোল্টের শিকার হন। তাঁর নিজের কী পরিকল্পনা ছিল ভারত অধিনায়কের বিরুদ্ধে? নিউজ়িল্যান্ডের বাঁ-হাতি পেসার বলেছেন, ‘‘আমার লক্ষ্য ছিল ক্রিজটাকে ঠিক মতো কাজে লাগানো এবং শর্ট বল করে রান আটকে দেওয়া।’’ তবে কোহালিকে থামানোর জন্য সতীর্থ পেসার কাইল জেমিসনকেও কৃতিত্ব দিয়েছেন বোল্ট। বলেছেন, ‘‘বিরাটকে ভুল করাতে পারলে তো ভালই লাগে। তবে আমি এর জন্য কাইলকেও কৃতিত্ব দেব। বিরাটকে একটা দারুণ স্পেল করেছিল ও। একদমই রান করতে দেয়নি ওই সময়।’’

ভারতের দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬ ওভার বল করে ২৭ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন বোল্ট। কিন্তু এই পেসার মনে করছেন, লাল বল সে ভাবে সুইং করেনি, যে কারণে তাঁকে অন্য রাস্তা নিতে হয়েছে। বোল্টের কথায়, ‘‘আমি বেসিন রিজার্ভে অনেক দিন খেলেছি। এখানে হাওয়াটা সামলে বল করাই সব চেয়ে কঠিন কাজ। আমার লক্ষ্য ছিল, ক্রিজের বিভিন্ন কোণ থেকে বল করে ব্যাটসম্যানকে ধন্দে রাখা। যাতে ব্যাটসম্যান বুঝতে না পারে আমি কী করতে চলেছি।’’

Advertisement

বোল্ট মানছেন, বাঁ-হাতি হওয়ায় তাঁর বাড়তি সুবিধে হয়েছে। ‘‘বাঁ-হাতি হওয়ার সুবিধেটা আমি পেয়েছি। বোলিংয়ের সময় ওই ছোটখাটো বদলগুলো করতে পেরেছি, যা ব্যাটসম্যানের চোখে পড়েনি। এখানে দেখছি, লাল বল তেমন সুইং করছে না। যে কারণে আমাকে অন্য রাস্তা নিতে হয়েছে। যেমন ডেলিভারির সময় ক্রিজের কোণগুলো ব্যবহার করা, ক্রিজটাকে নানা ভাবে কাজে লাগানো,’’ বলেছেন তিনি।

ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভের উইকেট যে রকম আচরণ করছে, তাতে খুশি বোল্ট। তাঁর কথায়, ‘‘উইকেট দেখে ভালই মনে হল। আমাদের বোলাররা সবাই ঠিক জায়গায় বলটা রেখে ভারতের রান ওঠার গতি বাড়াতে দেয়নি। এ রকম উইকেটে রাউন্ড দ্য উইকেট বল করা একটা ভাল উপায়। আমি সেই রাস্তা নিয়েছিলাম। দিনের শেষে আমরা ভাল জায়গাতেই আছি।’’

হাতের চোট সারিয়ে প্রায় ছ’সপ্তাহ বাদে দলে ফিরেছেন বোল্ট। চলতি টেস্টে দ্বিতীয় ইনিংসে চেতেশ্বর পুজারা, কোহালি-সহ নিয়েছেন তিন উইকেট। তিনি বলছেন, ‘‘টেস্ট যে আবার খেলতে পারছি, এতেই আমি খুশি। মাঝে বেশ কিছু দিন টেস্ট ক্রিকেটের বাইরে ছিলাম। মাঠের ধারে বসে খেলা দেখতে দেখতে হতাশই হয়ে পড়েছিলাম।’’ সোমবার কী লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে নিউজ়িল্যান্ড, তাও পরিষ্কার করে দিয়েছেন বোল্ট। বলেছেন, ‘‘আমাদের লক্ষ্য থাকবে কাল সকালে তাড়াতাড়ি গোটা দুয়েক উইকেট তুলে নেওয়া। তা হলে আমরা আরও ভাল জায়গায় চলে যাব।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.