Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০১ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

BJP: স্থানীয় ও পুরনো নেতাকে প্রার্থী করার আর্জি

সুশান্ত বণিক
আসানসোল ২৫ অক্টোবর ২০২১ ০৫:৩৭
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

বিধানসভা ভোটের প্রার্থিতালিকা ঘোষণার পরেই, দলের পুরনো কর্মীদের সে ভাবে জায়গা দেওয়া হয়নি, এই অভিযোগ করে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন বিজেপি নেতা-কর্মীদের একাংশ। বিধানসভা ভোটে ‘প্রত্যাশিত’ ফল না হওয়ার নেপথ্যে এটিও একটি কারণ বলে ঘরোয়া আলোচনায় স্বীকার করে থাকেন গেরুয়া শিবিরের কেউ-কেউ। এই পরিস্থিতিতে আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রের ভোটে, ‘ভোকাল ফর লোকাল’ স্লোগান তুলেছেন জেলা বিজেপি নেতৃত্ব। তাঁদের আর্জি, স্থানীয় এবং দলের পুরনো কাউকে প্রার্থী করতে হবে।

বিজেপির আসানসোল জেলা সভাপতি তথা বিধায়ক লক্ষ্মণ ঘোড়ুই বলেন, “প্রকৃতপক্ষে ওই স্লোগান আমিই প্রথম তুলেছি। দলের জেলা কমিটি প্রার্থিপদের জন্য একাধিক নামের তালিকা রাজ্য দফতরে পাঠাবে। সে তালিকা থেকেই উপ-নির্বাচনের প্রার্থী ঠিক করবেন ঊর্ধ্বতন নেতৃত্ব।” কিন্তু কেন এমন স্লোগান? নির্দিষ্ট করে কারও নাম না করে লক্ষ্মণের দাবি, “বহিরাগতকে প্রার্থী করে আমরা এখন ভুলের খেসারত দিচ্ছি। সে ভুলের পুনরাবৃত্তি এড়াতেই এমন পদক্ষেপ।”

ঘটনাচক্রে, ২০১৪-য় আসানসোলে এসে নরেন্দ্র মোদী ‘মুঝে বাবুল চাহিয়ে’ আবেদন জানিয়েছিলেন। তার পরে, ২০১৪, ২০১৯— দু’দফায় আসানসোল থেকে জিতে সাংসদ হন বাবুল সুপ্রিয়। দু’বারই কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রীও হয়েছিলেন। তবে সম্প্রতি মন্ত্রিপদ হারান বাবুল। তার পরে, বাবুল তৃণমূলে যোগ দিয়ে সাংসদ পদ থেকে ইস্তফাও দেন। এই পরিস্থিতিতে আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রে ফের নির্বাচন যে অবশ্যম্ভাবী, তা ধরে নিয়েই প্রস্তুতি শুরু করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব।

Advertisement

বাবুলের সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার দিনেই আসানসোলে এসে দল ও গণসংগঠনগুলির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। বিজেপি সূত্রে দাবি, ফেব্রুয়ারিতে এই কেন্দ্রে ভোট হতে পারে ধরে নিয়ে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। শুভেন্দুও এখন থেকেই বুথ থেকে জেলা স্তর পর্যন্ত দল ও গণসংগঠনগুলিকে আরও সক্রিয় হওয়ার নির্দেশ দেন বলে বিজেপি সূত্রে দাবি। বিজেপি সূত্রের খবর, এই পরিস্থিতিতেই সম্ভাব্য প্রার্থী নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে দলের অন্দরে। বিজেপি সূত্রে খবর, দলের অন্দরে ইতিমধ্যেই পুরনো এবং স্থানীয় কাউকে প্রার্থী করার দাবি উঠছে। একটি সূত্রের দাবি, বিষয়টি কেন্দ্র এবং রাজ্য নেতৃত্বকে জানানোও হয়েছে। বিষয়টির ‘সত্যতা’ স্বীকার করে বিজেপির আসানসোল জেলা কমিটির সহ-সভাপতি সুব্রত মিশ্র বলেন, “স্থানীয় ও দীর্ঘদিনের পুরোনো নেতা-কর্মীদের কাউকে প্রার্থী করতে হবে, এটা আমাদের দাবি।” এমন দাবির ব্যাখ্যাও দিয়ে তিনি বলেন, “অন্য দলে সুবিধা করতে না পেরে কেউ-কেউ বিজেপিতে নাম লিখিয়েছেন। তাঁদের প্রার্থী করা হলে দলের একটি বড় অংশের ক্ষোভ চাপা দেওয়া সহজ হবে না।” রাজ্য বিজেপির তরফে রাঢ়বঙ্গের পর্যবেক্ষক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “বাবুল সুপ্রিয়র আচরণে যে অভিজ্ঞতা দলের কর্মীদের হয়েছে, তাতে তাঁদের এই ধরনের কথা বলাটা স্বাভাবিক। তবে, রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে তাঁরা বিষয়টি জানিয়েছেন কি না, তা আমি জানি না। লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী বাছাইয়ের দায়িত্ব কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের। তাঁরা যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নেবেন।”



Tags:

আরও পড়ুন

Advertisement