Advertisement
১০ ডিসেম্বর ২০২২

কৈখালিতে গুলি, সংঘর্ষ, প্রতিরোধে পুড়ল বাইক

‘ভোট করা’র তাগিদে গুলি চলল খোদ কলকাতায়। তুমুল সংঘর্ষ হল ভিআইপি রোডের কৈখালিতে। গুলিবিদ্ধ হলেন এক ভোটার। সংঘর্ষে জখম হলেন আরও এক জন। কংগ্রেস আর বামেদের সম্মিলিত প্রতিরোধে অবশ্য পিছু হঠেছে বাইক বাহিনী।

জ্বলছে বাইক। ছবি: শশাঙ্ক মণ্ডল।

জ্বলছে বাইক। ছবি: শশাঙ্ক মণ্ডল।

নিজস্ব সংবাদদাতা
শেষ আপডেট: ০৩ অক্টোবর ২০১৫ ১৬:৩০
Share: Save:

‘ভোট করা’র তাগিদে গুলি চলল খোদ কলকাতায়। তুমুল সংঘর্ষ হল ভিআইপি রোডের কৈখালিতে। গুলিবিদ্ধ হলেন এক ভোটার। সংঘর্ষে জখম আরও এক জন। কংগ্রেস আর বামেদের সম্মিলিত প্রতিরোধে অবশ্য পিছু হঠেছে বাইক বাহিনী। বিধাননগর পৌর নিগমের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ঘটনা। কংগ্রেস প্রার্থী দেবরাজ চক্রবর্তীর অভিযোগ, সকাল থেকেই হামলার ছক কষছিল তৃণমূল। প্রতিরোধ ভাঙতে না পেরে অবশেষে গুলি চালিয়েছে। গুলি চলার ঘটনায় অবশ্য কংগ্রেস প্রার্থীকেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ভিআইপি রোডে হলদিরাম মোড়ের কাছে এ দিন গুলি চলেছে। বিরোধীরা সকাল থেকেই অভিযোগ করছিলেন যে স্থানীয় একটি সিন্ডিকেটের অফিসের সামনে তৃণমূল নেতারা বহিরাগতদের জড়ো করছে। পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ। দুপুরের দিকে আশঙ্কা সত্যি করে হামলা হয়। তৃণমূল নেতা বাবাই বিশ্বাসের নেতৃত্বে বহিরাগত বাহিনী ঝাঁপিয়ে পড়ে বলে অভিযোগ। কংগ্রেস ও সিপিএম কর্মীরা এক সঙ্গে রুখে দাঁড়ালে দুষ্কৃতীরা গুলি চালায়। গুলি লাগে ইমরান নামে এক কংগ্রেস কর্মীর পায়ে। দুষ্কৃতীদের ছোড়া ইটের আঘাতে জখম হন মহম্মদ আসলাম নামে আর এক কংগ্রেস কর্মী। এর পরই দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় স্থানীয় জনতা। তাড়া খেয়ে পালায় বহিরাগতরা। পালানোর পথে কয়েকটি বাইক তারা নিয়ে যেতে পারেনি। সেগুলিতে আগুন ধরিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে, যাদের বিরুদ্ধে বিরোধীদের অভিযোগ, তাদের কেউ গ্রেফতার হয়নি। বিধাননগর কমিশনারেট উল্টে গ্রেফতার করেছে কংগ্রেস প্রার্থী দেবরাজ চক্রবর্তীকেই।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.