×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৯ মে ২০২১ ই-পেপার

২৪ ঘণ্টায় মৃত ১০৭ রোগী, ফের নতুন করে আক্রান্ত সাড়ে ১৭ হাজারের বেশি

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা ০৪ মে ২০২১ ২১:৩৯


গ্রাফিক: নিরুপম পাল।

করোনাকালে এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি কোভিড রোগীর মৃ্ত্যু হল গত ২৪ ঘণ্টায়। মঙ্গলবার রাতে স্বাস্থ্য দফতর জানিয়েছে, ওই সময়ের মধ্যে গোটা রাজ্যে ১০৭ জন মারা গিয়েছেন। এর মধ্যে শুধুমাত্র উত্তর ২৪ পরগনা জেলাতেই ৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। কলকাতায় মারা গিয়েছেন ৩১ জন। সেই সঙ্গে গোটা রাজ্যে ফের নতুন করে সংক্রমণ ছড়িয়েছে সাড়ে ১৭ হাজারের বেশি। পাশাপাশি, গত কয়েক দিনের মতোই কলকাতা এবং উত্তর ২৪ পরগনায় দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ৪ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছেছে। এর জেরে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৯ লক্ষের দিকে এগোচ্ছে।

স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতা এবং উত্তর ২৪ পরগনা ছাড়াও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং হাওড়ায় ১০ জন করে কোভিড রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া, উত্তর দিনাজপুর, পশ্চিম বর্ধমান এবং হুগলিতে ৪ জন করে মারা গিয়েছেন। অন্যান্য জেলার মধ্যে বীরভূমে ৩, দার্জিলিঙে ২, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, দক্ষিণ দিনাজপুর, মালদহ, বাঁকুড়া এবং পশ্চিম মেদিনীপুরে ১ জন করে সংক্রমিতের মৃত্যু হয়েছে। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত মোট ১১ হাজার ৭৪৪ জন আক্রান্ত কোভিডের শিকার হয়েছেন।

স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ১৭ হাজার ৬৩৯ জন। এর মধ্যে উত্তর ২৪ পরগনা বাসিন্দা ৩ হাজার ৯৫৪। গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯২৪ জন। অন্য দিকে, দক্ষিণ ২৪ পরগনা (৯৭৬), হাওড়া (৯৫৪), হুগলি (৯৫৪), পশ্চিম বর্ধমান (৮৫০), নদিয়া (৭০৩), পূর্ব মেদিনীপুর (৬৫৯), বীরভূম (৬১৬), দার্জিলিং (৬১৩) এবং পূর্ব বর্ধমান (৫৭৬) জেলায় নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০০ বা তার বেশি হয়েছে। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৮ লক্ষ ৯৮ হাজার ৫৩৩ জন।

Advertisement

সংক্রমণে রাশ টানতে কোভিড পরীক্ষা এবং টিকাকরণের গুরুত্বের কথা বার বার মনে করিয়ে দিয়েছেন চিকিৎসকেরা। সেই পরামর্শ মেনেই গোটা দেশের সঙ্গে এ রাজ্যেও টিকাকরণ কর্মসূচি চলছে। স্বাস্থ্য দফতর জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ১ লক্ষ ৭৬ হাজারেরও বেশি টিকাকরণ হয়েছে। পাশাপাশি, কোভিড পরীক্ষা হয়েছে ৫৭ হাজার ৭৪৮টি। তবে তা সত্ত্বেও দৈনিক সংক্রমণে রাশ টানা যাচ্ছে না। এর জেরে সংক্রমণের মোট হার পৌঁছেছে ৮.৪৩ শতাংশে। যা এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ। পাশাপাশি, এর দৈনিক হার দাঁড়িয়েছে ৩০.৫৪ শতাংশে।

Advertisement