Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৮ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

Death: খেলতে গিয়ে শাড়ির ফাঁসে দমবন্ধ হয়েই নিহত নাবালিকা? খতিয়ে দেখছে পুলিশ

নিজস্ব সংবাদদাতা
পোলবা ০৬ জুলাই ২০২১ ১২:৪৮
অঙ্কিতা মান্না।

অঙ্কিতা মান্না।
—নিজস্ব চিত্র।

দুই নাবালিকা মেয়ের খেলাধুলোর জন্য খাটের ছত্রিতে শাড়ি বেঁধে দোলনা তৈরি করে দিয়েছিলেন তাদের বাবা। সোমবার সন্ধেবেলায় সে দোলনায় বসে খেলতে গিয়ে গলায় শাড়ির ফাঁস লেগে মৃত্যু হল ওই ব্যক্তির বড় মেয়ের। হুগলির পোলবার এই মর্মান্তিক ঘটনার তদন্তে নেমেছে পোলবা থানার পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, সোমবার সন্ধ্যায় সুগন্ধা গ্রাম পঞ্চায়েতের কামদেবপুর গ্রামের বাসিন্দা সন্দীপ মান্নার বাড়ি থেকে তাঁর বড় মেয়ে অঙ্কিতা (১০)-র নিথর দেহ পাওয়া যায়। অঙ্কিতাকে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন তার ঠাকুরমা। এর পর স্থানীয়দের সাহায্যে তাকে চুঁচুড়া ইমামবাড়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানকার চিকিৎসকেরা জানান, হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই মৃত্যু হয়েছে অঙ্কিতার।

Advertisement

পরিবার সূত্রে খবর, সন্দীপ পেশায় দিনমজুর। তাঁর স্ত্রী সুপ্রিয়া মান্না মাস তিনেক আগে কামদেবপুরে বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র থাকতে শুরু করেন। সন্দীপ কাজে গেলে সারাদিন পাশের বাড়িতে ঠাকুরদা-ঠাকুরমার কাছে থাকত তাঁর দুই মেয়ে।

পরিবারের দাবি, ঘটনার সময় পাঁচ বছরের বোন সঙ্গীতার সঙ্গে খেলা করছিল অঙ্কিতা। অঙ্কিতার ঠাকুরদা লক্ষ্মণ মান্না বলেন, “সোমবার বিকেলে সেজেগুজে দু’বোন ষষ্ঠীতলায় খেলতে গিয়েছিল। সেখানে পড়ে গিয়ে অল্প লেগেছিল আমার বড় নাতনি অঙ্কিতার। তবে সন্ধ্যার আগেই সে বাড়ি ফিরে এসেছিল। আমি বাইরে কাজে গিয়েছিলাম। আমার স্ত্রী পাশের বাড়িতে নাতনির পড়াশুনার বিষয়ে খোঁজখবর নিতে গিয়েছিল। নাতনিরা কী করছে দেখতে গিয়ে অঙ্কিতার দেহ দেখতে পায় আমার স্ত্রী।”

মেয়ের আকস্মিক মৃত্যুর খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে কামদেবপুরে চলে আসেন অঙ্কিতার মা সুপ্রিয়া। তিনি বলেন, “দু’বোন দোলনায় খেলছিল। খাটের ছত্রির সঙ্গে শাড়ি বেঁধে দোলনা তৈরি করা হয়েছিল। গলায় ফাঁস লেগে তাতেই দমবন্ধ হয়ে যায় অঙ্কিতার।”

প্রাথমিক ভাবে দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু বলে মনে হলেও যাদবপুর হাইস্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীটি ঠিক কী কারণে মারা গেল, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। অঙ্কিতার দেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন

Advertisement