Advertisement
২৩ জুন ২০২৪
Environmental Awareness

‘গাছ লাগান, প্রাণ বাঁচান’, পরিবেশ রক্ষার বার্তা নিয়ে নেপাল পাড়ি দিলেন উত্তরপাড়ার যুবক

জলের অপচয় এবং নগরায়নের জন্য নির্বিচারে গাছ কাটার উদাহরণ আজ সারা বিশ্বে বর্তমান। বলা বাহুল্য, প্রকৃতির উপর এই অত্যাচার সমাজ তথা মানুষের জীবনে ক্রমেই এক বিভীষিকা নিয়ে আসছে।

দেবরাজ রায়।

দেবরাজ রায়। — নিজস্ব চিত্র।

আনন্দবাজার অনলাইন সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৯ মে ২০২৪ ০১:৪০
Share: Save:

গাছ এবং জল - এই দুই-ই হল প্রকৃতির অন্যতম অমূল্য সম্পদ, যা রক্ষা করার দায়িত্ব আমাদের অর্থাৎ সাধারণ মানুষের। জলের অপচয় এবং নগরায়নের জন্য নির্বিচারে গাছ কাটার উদাহরণ আজ সারা বিশ্বে বর্তমান। বলা বাহুল্য, প্রকৃতির উপর এই অত্যাচার সমাজ তথা মানুষের জীবনে ক্রমেই এক বিভীষিকা নিয়ে আসছে। তাই সমাজকে বাঁচানোর তাগিদে এবং পরিবেশ রক্ষার বার্তা নিয়ে এক হাজার কিলোমিটারেরও বেশি পথ পাড়ি দিলেন উত্তরপাড়ার এক যুবক। গন্তব্য নেপালের ‘লোয়ার মসতং’। আর সঙ্গী কেবল দু’চাকার একটি প্রিয় মোটরবাইক। যুবকের নাম দেবরাজ রায় (৩৬)।

সরু এবড়ো-খেবড়ো দুর্গম রাস্তায় ভরা নেপালের ‘লোয়ার মসতং’ পৃথিবীর অন্যতম বিপজ্জনক জায়গা হিসাবে পরিচিত। কিন্তু প্রকৃতি প্রেমী এবং ভ্রমণবিলাসী দেবরাজের অদম্য সাহস আর দৃঢ় প্রতিজ্ঞা সব প্রতিবন্ধকতাকে যেন নিমেষেই হার মানিয়ে দেয়। গত মাসের ১৮ তারিখ দেবরাজ তাঁর যাত্রা শুরু করেন। দশ দিনেরও বেশি দীর্ঘ এই সফরে দেবরাজ একাধিক জায়গায় পরিবেশ সম্পর্কে তাঁর সচেতনতার বার্তা মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেন। এ বারের গন্তব্যে তাঁর মূল দুই বার্তা ছিল বৃক্ষরোপণ এবং জলের অপচয় বন্ধ করা।

দুর্গম পাহাড়ি রাস্তায় দেবরাজ।

দুর্গম পাহাড়ি রাস্তায় দেবরাজ। — নিজস্ব চিত্র।

এ প্রসঙ্গে দেবরাজ বলেন, “প্রতি বারই আমি যখন কোথাও যাই, কোনও না কোনও বার্তা নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি। এ বারের যাত্রায় গাছ এবং জল – এই দুটি ছিল আমার মূল মন্ত্র। জল ছাড়া মানুষ বাঁচতে পারবে না। তাই জল কেউ অপচয় কোরো না এবং পরিবেশকে বাঁচাতে যত বেশি সম্ভব গাছ লাগানো প্রয়োজন।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)

অন্য বিষয়গুলি:

Environment Nature Nepal
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE