Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

১৭ অক্টোবর ২০২১ ই-পেপার

Drowning: মঙ্গল পাণ্ডে ঘাটে তলিয়ে গেল কিশোর

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০৮:৪৯
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

চার বন্ধুকে নিয়ে স্নান করতে নেমে গঙ্গায় তলিয়ে গেল এক কিশোর। রবিবার সকালে, ব্যারাকপুরের মঙ্গল পাণ্ডে ঘাটে। সন্ধ্যা পর্যন্ত তিন দফায় ২৪ জন ডুবুরি নামিয়েও খোঁজ মেলেনি ওই কিশোরের।

পুলিশ ও নিখোঁজ কিশোরের পরিবার সূত্রের খবর, খড়দহের পি কে বিশ্বাস রোডের জেলেপাড়ার বাসিন্দা, রোহন রায় পিসতুতো বোন শ্বেতা সিংহ ও চার সহপাঠীকে নিয়ে শারীরচর্চা করতে নিয়মিত ব্যারাকপুর মঙ্গল পাণ্ডে উদ্যানে আসত। তারা সকলেই ব্যারাকপুর কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ের একাদশ শ্রেণির পড়ুয়া। এ দিনও সকাল ৬টা নাগাদ তারা ব্যারাকপুর রিভার সাইড রোডে দৌড়নোর পরে ওই উদ্যানে ঢুকে শারীরচর্চা শুরু করে। ব্যারাকপুর কমিশনারেটের এক পুলিশ আধিকারিক জানান, এর পরে রোহন ও তার চার বন্ধু স্নান করতে গঙ্গায় নামে। শ্বেতা তখন বাড়ি ফিরে যায়।

জলে নেমে হুটোপাটি করে স্নান করতে করতেই কখন রোহন তলিয়ে যায়, কেউ বুঝতে পারেনি বলে পুলিশকে জানিয়েছে বাকি চার জন। তারা যখন খেয়াল করে রোহন নেই, তখন ঘাটের অন্যদের ডাকাডাকি করে। প্রথমে স্থানীয়েরাই ডুব দিয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। ব্যারাকপুর থানা থেকে পুলিশ ও সিভিল ডিফেন্সের দুর্যোগ মোকাবিলা বাহিনীর সদস্যেরা আসেন। তাঁরাও জলে নেমে খোঁজেন। দুপুর ২টো নাগাদ লাটবাগান থেকে পুলিশের দুর্যোগ মোকাবিলা বাহিনীর ডুবুরিরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে তল্লাশি শুরু করেন। বিকেলের দিকে কলকাতা পুলিশের সাত জন ডুবুরি জলে নামেন। কিন্তু খোঁজ মেলেনি রোহনের।

Advertisement

রোহনের পিসতুতো বোন শ্বেতা বলে, ‘‘ব্যায়াম করার পরে রোজই মঙ্গল পাণ্ডে ঘাটে নেমে হাত-পা ধুই। মায়ের শরীর খারাপ বলে এ দিন ওরা যখন ঘাটে নামে, আমি তখনই ফিরে যাই। তার কিছু ক্ষণ পরেই শুনি রোহন তলিয়ে গিয়েছে।’’ শ্বেতার কথায়, ‘‘আমার মামা সেনাবাহিনীতে ছিলেন। কয়েক মাস আগে অবসর নিয়েছেন। রোহনের স্বপ্ন ছিল সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়া। আমাদেরও সেই স্বপ্ন দেখাত। তাই রোজ ভোরে ব্যায়াম করতে ডেকে তুলত।’’

এই ঘাটে স্নান করতে নেমে তলিয়ে যাওয়ার ঘটনা অবশ্য নতুন নয়। কিছু দিন আগে বিপিন পাসোয়ান নামে এক যুবক এখানে তলিয়ে যান। গত বছর দশমীতে বিসর্জনের পরে স্নান করতে নেমে তলিয়ে যান ব্যারাকপুর রবীন্দ্রপল্লির এক যুবক। ঘাট সংলগ্ন কিছু দোকানের বিক্রেতারা জানান, ঘাটটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকলেও ধাপগুলি পিছল। তা ছাড়া এখানে জলের টানও বেশি। তাই অসতর্ক হলেই তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

ব্যারাকপুর মহকুমা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, আজ সোমবার ভোর থেকে ফের ডুবুরি নামিয়ে রোহনের খোঁজে তল্লাশি শুরু হবে।



Tags:

আরও পড়ুন

Advertisement