×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৩ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

ভিড় এড়িয়ে সেলুন কারে ভ্রমণ, নয়া প্যাকেজ রেলের

ফিরোজ ইসলাম 
কলকাতা ০৫ মার্চ ২০২১ ০৭:২৭
অন্তরমহল: এমন সেলুন কারে করেই ভ্রমণের জন্য নয়া প্যাকেজ চালু করছে রেল।

অন্তরমহল: এমন সেলুন কারে করেই ভ্রমণের জন্য নয়া প্যাকেজ চালু করছে রেল।
—নিজস্ব চিত্র

বিদেশে করোনা সংক্রমণের মেঘ এখনও কাটেনি। তাই দেশের বাইরে ব্যয়বহুল ভ্রমণ প্যাকেজ নিয়ে পর্যটকদের আগ্রহও থিতিয়ে রয়েছে। এই অবস্থায় পর্যটকদের দেশের মধ্যেই ভ্রমণমুখী করতে বিলাসবহুল প্যাকেজ তৈরিতে জোর দিচ্ছে ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কেটারিং অ্যান্ড টুরিজ়ম কর্পোরেশন (আইআরসিটিসি)। তারই অঙ্গ হিসেবে নির্দিষ্ট কিছু রুটে প্যাকেজ টুরে সেলুন কার ভাড়া দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে আইআরসিটিসি। এত দিন ফুল ট্যারিফ রেটে (এফটিআর) বিশেষ ক্ষেত্রে সেলুন কার ব্যবহারের সুযোগ ছিল। কিন্ত তাতে সেলুন কার ভাড়ার খরচ অনেক বেশি পড়ত।

এ বার সেই খরচ কমিয়ে ছোট ছোট দলকে সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত পরিবেশে, ভিড় এড়িয়ে রেলে ভ্রমণের আনন্দ দিতে সেলুন কার কেন্দ্রিক প্যাকেজ আনছে আইআরসিটিসি। সংস্থা সূত্রের খবর, সারা দেশের মনোরম পাহাড়ি পথগুলিকে মাথায় রেখে প্যাকেজ তৈরি করা হচ্ছে। মাসখানেকের মধ্যেই ওই সব প্যাকেজ বুক করা যাবে বলে আইআরসিটিসি সূত্রের খবর ।

রেলকর্তারা জানাচ্ছেন, ঝকঝকে সকালে ডুয়ার্সের পাহাড় কিংবা জ্যোৎস্না রাতে চিল্কা হ্রদের পাশ দিয়ে সেলুন কারে পাড়ি দেওয়ার মজাই আলাদা। হাওড়া-পুরী ছাড়াও হাওড়া থেকে টাটা-চান্ডিল-মুরি রুটের ট্রেনেও সেলুন কার জোড়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। রেল সূত্রের খবর, কিছুটা ধীর গতির ট্রেনের সঙ্গে সেলুন কার জোড়ার কথা ভাবা হয়েছে। এমনকি, সর্বোচ্চ ২৪টি কোচের ট্রেনের পিছনেও সেলুন কার জুড়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে ছাড়পত্র দিচ্ছে রেল। এত দিন প্ল্যাটফর্মের দৈর্ঘ্য ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় ওই অনুমতি মিলত না। রেল সূত্রের খবর, সেলুন কারের যাত্রীদের যে হেতু মাঝের কোনও স্টেশনে নামা-ওঠার সম্ভাবনা নেই, তাই ওই নিয়ম শিথিল করা হয়েছে।

Advertisement

রেল সূত্রের খবর, দু’কামরার বাতানুকূল সেলুন কারে দু’টি অ্যাটাচড্ বাথরুম-সহ শয়নকক্ষ ছাড়াও বসার ঘর এবং খাওয়ার পৃথক জায়গা থাকবে। পছন্দসই খাবারের ব্যবস্থা করতে সঙ্গে ২৪ ঘণ্টাই থাকবেন পরিচারক। মিলবে ওয়াইফাই এবং টিভি দেখার ব্যবস্থাও। এ ছাড়া, প্রায় তিন দিক একসঙ্গে দেখা যায়, এমন কাচের জানলা দিয়ে রেলপথের পাশের দৃশ্য দেখার বা ‘উইন্ডো ট্রেলিং’ করার সুবিধাও মিলবে। গন্তব্যে পৌঁছনোর পরে বিশেষ সাইডিংয়ে ওই সেলুন কার রেখে পর্যটকদের আশপাশের এলাকা ঘুরিয়ে দেখানোর ব্যবস্থা থাকবে। কয়েক দিন ধরে নির্দিষ্ট জায়গায় ঘুরে ফের সেলুন কারে সওয়ার হয়ে ফিরে আসা যাবে।

করোনা অতিমারির পরে পর্যটকদের উৎসাহিত করতে সেলুন কার ব্যবহারের ক্ষেত্রে বেশ কিছু খরচ কমানোর কথা ভাবছে রেল। এর মধ্যে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছনোর পরে সেলুন কার স্টেশনে দাঁড় করিয়ে রাখার যে সব খরচ পড়ত, তাতে ছাড় দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে বলে আইআরসিটিসি সূত্রের খবর। মূল ভাড়ার উপরে আনুষঙ্গিক খরচের ক্ষেত্রেও ছাড় দেওয়া হতে পারে।

‘প্যালেস অন হুইলস’ বা ‘মহারাজা’ ট্রেনের ধাঁচে বাতানুকূল সেলুন কারের ওই সফরকে ‘হোম অন হুইলস’ বলছেন রেলকর্তারা। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আইআরসিটিসি-র অন্যতম কর্তা দেবাশিস চন্দ্র বলেন, ‘‘করোনার পরিস্থিতিতে মানুষ বহু দিন ধরে
বাড়িতে আটকে। যাঁরা বেড়াতে যেতে চাইছেন, তাঁরা নিরাপদে ঘুরে আসার উপায় খুঁজছেন। পর্যটকদের ওই চাহিদা পূরণ করতেই এমন পরিকল্পনায় জোর দেওয়া হচ্ছে।’’

Advertisement