×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৪ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

ভোটের প্রস্তুতি শুরু, মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের সঙ্গে বৈঠকে জেলাশাসকরা

নিজস্ব সংবাদাতা
কলকাতা ২৭ নভেম্বর ২০২০ ১৩:২৬
কোভিড পরিস্থিতিতে ভোট কী ভাবে করা যায়, তার প্রাথমিক নকশা তৈরির করার একটি ইস্যু রয়েছে, তেমনই সামান্য হলেও আলোচিত হতে পারে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতিও। নিজস্ব চিত্র

কোভিড পরিস্থিতিতে ভোট কী ভাবে করা যায়, তার প্রাথমিক নকশা তৈরির করার একটি ইস্যু রয়েছে, তেমনই সামান্য হলেও আলোচিত হতে পারে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতিও। নিজস্ব চিত্র

প্রশাসনিক স্তরে শুরু হয়ে গেল বিধানসভা ভোটের প্রস্তুতি। শুক্রবার সেই প্রস্তুতির অংশ হিসাবেই সব জেলার জেলাশাসকদের নিয়ে আলোচনায় বসলেন রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক (সিইও) আরিজ আফতাব। মূলত, কোভিড পরিস্থিতিতে কী ভাবে নির্বাচন করা যায়, বুথের সংখ্যা বাড়ানো যায় কি না, কী ভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে, সংক্রমণ এড়িয়ে গোটা ভোট প্রক্রিয়া পরিচালনা করা যায়, শুক্রবারের আলোচনায় সেটিই হল মূল আলোচ্য বিষয়। সেই নিয়ে ‘দ্যা বেঙ্গল চেম্বার অব কমার্স অ্য়ান্ড ইন্ডাস্ট্রি’-তে আলোচনায় বসেছেন তাঁরা।

শুক্রবার রাজ্যের প্রায় সমস্ত জেলার জেলাশাসকরা হাজির হয়েছেন এই সভায়। ইতিমধ্যে বৈঠক শুরু হয়ে গিয়েছে কমিশনে। সূত্রের খবর, এক দিকে যেমন কোভিড পরিস্থিতিতে ভোট কী ভাবে করা যায়, তার প্রাথমিক নকশা তৈরির করার একটি ইস্যু রয়েছে, তেমনই সামান্য হলেও আলোচিত হতে পারে রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতিও।

আগামী বছরের এপ্রিল-মে মাসে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রধান রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে একদফা বৈঠক সেরে নিয়েছেন কমিশনের কর্তারা। কত কেন্দ্রীয় বাহিনী প্রয়োজন, তারও একটি প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে কমিশনের অন্দরে। ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে ভোটার তালিকা সংশোধনের কাজ। ১৮ নভেম্বর থেকেই এই কাজ শুরু করা হয়েছে। আগামী ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত এটি চলবে।

Advertisement

আরও পড়ুন: করোনায় আক্রান্ত বিরোধী দলনেতা মান্নানের খোঁজ নিতে ফোন মমতার

নির্বাচন কমিশনের সূত্র অনুসারে, রাজ্যে মোট ভোটারের সংখ্যা ৭,১৮,৪৯,৩০৮ জন। রাজ্যে মোট বুথের সংখ্যা রয়েছে ৭৮,৯০৩। কোভিড পরিস্থিতে যখন সংক্রমণের সম্ভাবনা সব সময়েই রয়েছে, তখন ভোট করা একটি বিশেষ চ্যালে়ঞ্জ। কিন্তু ইতিমধ্যে বিহারের নির্বাচন একটি মডেল দেশের প্রশাসনের কাছে দাঁড় করিয়েছে। ওদিকে, আগামী এপ্রিল-মে মাসের মধ্যে কোভিড পরিস্থিতির উন্নতিও হয়তো হতে পারে। তবু আগে থাকেই স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে সতর্ক প্রশাসন বসল আলোচনায়।

আরও পড়ুন: ফিঞ্চের সেঞ্চুরি, বিধ্বংসী স্মিথ, সিডনিতে চলছে হলুদ ঝড়

Advertisement