Advertisement
১৯ জুলাই ২০২৪

দলের প্রার্থী পরেশের জন্য পোস্টার আঁকলেন বিদায়ী সাংসদ পার্থ

বিজেপিকে দেউলিয়া বলে আক্রমণ করে দলের প্রার্থী পরেশ অধিকারীকে ভোট দেওয়ার আবেদন জানিয়ে প্রচারে নামলেন কোচবিহারের তৃণমূল সাংসদ পার্থপ্রতিম রায়

সমর্থনে: পরেশ অধিকারীর নামে দেওয়াল লিখছেন বিদায়ী  সাংসদ পার্থপ্রতিম। নিজস্ব চিত্র

সমর্থনে: পরেশ অধিকারীর নামে দেওয়াল লিখছেন বিদায়ী সাংসদ পার্থপ্রতিম। নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব সংবাদদাতা
কোচবিহার শেষ আপডেট: ১৫ মার্চ ২০১৯ ০৪:২০
Share: Save:

বিজেপিকে দেউলিয়া বলে আক্রমণ করে দলের প্রার্থী পরেশ অধিকারীকে ভোট দেওয়ার আবেদন জানিয়ে প্রচারে নামলেন কোচবিহারের তৃণমূল সাংসদ পার্থপ্রতিম রায়। বৃহস্পতিবার কোচবিহারের স্টেশন মোড়ে একটি হলে শহর তৃণমূল যুব কংগ্রেসের ডাকে একটি সভা হয়। সেখানেই যোগ দেন পার্থবাবু।

গত বারের সাংসদ হলেও দল এ বারে পার্থবাবুকে টিকিট দেয়নি। তাই তিনি দলের প্রার্থীর হয়ে প্রথমদিনের প্রচারে কী বলেন তা নিয়ে উৎসাহ ছিল সবার। অল্প সময় বক্তব্য রেখে তিনি দলের প্রার্থীকে বিপুল ভোটে জেতানোর ডাক দেন। তিনি বলেন, “বিজেপি দেউলিয়া পার্টি। প্রার্থী না পেয়ে এখানে ওখানে হাতড়ে বেড়াচ্ছে। তৃণমূল রাজ্যের ৪২টি আসনেই জয়ী হবে।” সেই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেশের প্রধানমন্ত্রীর অন্যতম দাবিদার হয়ে উঠবেন বলেও তিনি দাবি করেন। সভায় ছিলেন কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রের তৃণমূল বিধায়ক মিহির গোস্বামীও।

পার্থবাবু যুব তৃণমূলের কোচবিহার জেলা সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন। এ দিন তিনি জানান, যুব সংগঠনের পক্ষ থেকেও দলের প্রার্থীর হয়ে ধারাবাহিক কর্মসূচি নেওয়া হবে। তা নিয়ে দলের জেলা ও রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি জানান, কোচবিহার জেলার যুব কর্মীদের নিয়ে একটি কনভেনশন করা হবে অল্প কয়েকদিনের মধ্যে। তার পরে ব্লক ও অঞ্চল স্তরে কর্মসূচি নেওয়া হবে। সংগঠনের সমস্ত কমিটিকে আলাদা আলাদা ভাবে ঠিক করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যুব তৃণমূলের কোচবিহার টাউন কমিটির পক্ষ থেকে শহরে চারটি মিছিল এবং একাধিক পথসভার কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

এদিনের সভায় উপস্থিত থাকা আরেক যুব তৃণমূলের নেতা অভিজিৎ দে ভৌমিক বিজেপির বিরুদ্ধে সেনা নিয়ে রাজনীতির অভিযোগ তুলেছেন। এমনকি সোশ্যাল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব তুলে পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা হচ্ছে বলে তাঁর দাবি। বিজেপি অবশ্য তৃণমূলের এমন অভিযোগকে গুরুত্ব দিতে নারাজ। বিজেপি নেতা দীপ্তিমান সেনগুপ্ত বলেন, “তৃণমূল কী করছে তা মানুষ দেখছেন। আর কয়েকদিনের মধ্যে তাঁরা সে জবাব পেয়ে যাবেন।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE