×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ মে ২০২১ ই-পেপার

নারদে টাকা কে ডি-র, আবার সরব ম্যাথু

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ও নয়াদিল্লি ১৬ জানুয়ারি ২০২১ ০৪:৫৯
—ফাইল চিত্র

—ফাইল চিত্র

রাজ্যে সাড়া ফেলে দেওয়া নারদ-কেলেঙ্কারির ‘স্টিং অপারেশনে’ নেতা-মন্ত্রীদের হাতে তুলে দেওয়ার টাকা যে কে ডি সিংহই জুগিয়েছিলেন, তা আগেই একাধিক বার দাবি করেছেন সাংবাদিক ম্যাথু স্যামুয়েল। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের (ইডি) হাতে কে ডি গ্রেফতার হওয়ার পরে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়ে এ বার ভিডিয়ো বার্তা প্রকাশ করলেন তিনি। তিন দিনের হেফাজত শেষে শনিবার তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন রাজ্যসভা কে ডি-কে আবার আদালতে তোলার কথা। তার আগে এই ভিডিয়ো তাঁর বিরুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হিসেবে ব্যবহার করা যাবে বলে মনে করছেন তদন্তকারীদের একাংশ।

২০১৪ সালে সাংবাদিক ম্যাথু রাজ্যে এসে ব্যবসায়ীর ছদ্মবেশে ব্যবসায় সুবিধা পাওয়ার বদলে বেশ কয়েক জন নেতা-নেত্রী, পুলিশ অফিসারের হাতে টাকা তুলে দেন। সেই দৃশ্য তুলে রাখেন গোপন ক্যামেরায়। পরে তা ফাঁস করেন ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটের মুখে। নেতা-নেত্রীদের দেওয়া সেই টাকা তিনি কী ভাবে কে ডি-র কাছ থেকে পেয়েছিলেন, সেই তথ্যই শুক্রবার বিশদে জানিয়েছেন ম্যাথু।

ম্যাথুর দাবি, সংবাদ-পোর্টাল তেহলকার তৎকালীন কর্ণধার কে ডি-র নির্দেশেই ওই স্টিং অপারেশন হয়েছিল। এ জন্য তিনি কলকাতায় একটি পাঁচতারা হোটেলে উঠেছিলেন। সল্টলেকে অ্যালকেমিস্টের অফিস থেকে বেশ কয়েক দফায় তাঁকে টাকা দেওয়া হয়েছিল। প্রথম বার ১০ লক্ষ টাকা। পরে চাহিদা অনুযায়ী বাকিটা। মোট ৮০ লক্ষ টাকা মতো।

Advertisement

ভিডিয়ো-বার্তায় ম্যাথুর দাবি, কোন কোন নেতা-মন্ত্রীর উপরে নারদ স্টিং অপারেশন হচ্ছে, তা তিনি দিল্লির অফিসে গিয়ে কে ডি-কে নিয়মিত জানাতেন। এমনকি সেই সময়ে কলকাতায় এসে তাঁর সঙ্গে কে ডি নিজে দেখাও করেছেন বলে জানিয়েছেন ম্যাথু।

এর আগেও সিবিআই ও ইডির জিজ্ঞাসাবাদে কে ডি-র কাছ থেকে টাকা পাওয়ার কথা বলেছিলেন ম্যাথু। কে ডি সেই দাবি অস্বীকার করেন। দু’জনকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করে সিবিআই। ম্যাথুর দাবি, অ্যালকেমিস্ট থেকে নেওয়া টাকার ভাউচার, স্টিং অপারেশন নিয়ে কে ডি-র সঙ্গে চালাচালি হওয়া সমস্ত হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ সেই সময়ে সিবিআই ও ইডির হাতে তুলে দিয়েছেন তিনি। তা আদালতে পেশ করতেও তিনি তৈরি।

ইডি সূত্রের খবর, আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শনিবার ফের কে ডি-কে হেফাজতে চাওয়া হবে। সেই মর্মেই আদালতে আর্জি জানানো হবে। উল্লেখ্য, বুধবারই ইডি ১৪ দিনের হেফাজত চেয়েছিল। কিন্তু কে ডি-র আইনজীবীরা জানান, ইডি হেফাজতে চেয়ে যে আর্জি জানিয়েছে, তাতে খামতি রয়েছে। প্রতিটি অভিযোগের জবাব দেওয়া হবে। বিশেষ আদালতের বিচারক অনুরাধা ভরদ্বাজও জানিয়েছিলেন, তার জন্যও প্রাথমিক ভাবে তিন দিন কে ডি-কে ইডি-র হেফাজতে থাকতে হবে। শনিবার দুপুরে সেই হেফাজতের মেয়াদ শেষ হচ্ছে।

Advertisement