×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৪ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

পূর্ব মেদিনীপুরে বহু রূপে পুজিতা হন দেবী কালী

নিজস্ব সংবাদদাতা
তমলুক ১২ নভেম্বর ২০২০ ১৬:১৩
প্রতীকী চিত্র।

প্রতীকী চিত্র।

মাঘ মাসের কৃষ্ণা চতুর্দশীতে রটন্তী কালী, জ্যৈষ্ঠ মাসের কৃষ্ণা চতুর্দশীতে ফলহারিণী কালী, কার্তিকের রাস পূর্ণিমাতে কৃষ্ণকালী ছাড়াও শ্মশানকালী, রক্ষাকালী, আদ্যাকালী, জিয়ৎকালী, মহাকালী, শ্যামাকালী, নিত্যকালীর পূজার রেওয়াজ আছে। শ্যামাকালী বরাভয়দায়িনী। আর অনাবৃষ্টি, অতিবৃষ্টি, মহামারী, ভূমিকম্প, দুর্ভিক্ষের থেকে রেহাই পেতে রক্ষাকালী এবং সংহারমূর্তিতে শ্মশানকালীর পুজো প্রচলিত এই বাংলায়।

পূর্ব মেদিনীপুর জুড়ে বিভিন্ন জায়গায় বেশ কিছু প্রচীন কালীপুজোর প্রচলন রয়েছে। তমলুক, কাঁথি, এগরা সহ জেলার বিভিন্ন প্রান্তের সেই সব পুজোর কোনওটির বয়স দেড়শো বছর, তো কোনওটির আড়াইশো। কোনওটির আবার সঠিক বয়সই জানা যায় না।

প্রায় ২৫০ বছর ধরে পাঁশকুড়ার ক্ষীরাই নদীর বুকে দুটি পিঠোপিঠি গ্রাম তিনতাউড়ি বেগুনবাড়ি ও গুলিখানা (ফতেচক)-তে হয়ে আসছে ফলহারিণী কালীপূজা। ধীবর সম্প্রদায়ের এই পুজোয় হাজারের বেশি ছাগবলি হয়। তমলুকের আস্তাড়া, পাঁশকুড়ার পরমানন্দপুরেও পূজিতা হন এই কালী। এগরার বাথুয়াড়িতে প্রায় ১৫০ বছর ধরে সমারোহের সঙ্গে পূজিতা হন এই ফলহারিণী।

Advertisement

কসবায় ২৫৯ বছরের বেশি সময় ধরে মুখোপাধ্যায় পরিবারের পূজা চলছে আসছে। নন্দীগ্রামের হানুভুঁঞা এবং পূর্ব দক্ষিণ ময়নায় শতাধিক বছরের প্রাচীন কালীপূজা হয়ে আসছে। তমলুকের কিসমত পুতপুত্যা গ্রামের রক্ষাকালীর পূজা হয় মাঘে। এটিও ১৫০ ছুঁইছুঁই।

অষ্টাদশ শতকের মাঝামাঝি থেকে দীপান্বিতা অমাবস্যায় ভগবানপুরে বিভীষণপুরের চক্রবর্তী পরিবারের দক্ষিণাকালীর পূজা চলে আসছে। এছাড়া এখানকার জরারনগর, ভগবানপুর থানা সদর, সাদুল্ল্যাচক, ইছাপুর এবং ধালুয়াতেও দেবী কালীর পূজা ভক্তি সহকারে হচ্ছে।

দীপাবলির সময়ে তমলুকের দেবী বর্গভীমা মন্দিরে এবং কাঁথির কপালকুণ্ডলা মন্দিরে একটু অন্য রকম ভাবে শক্তির আরাধনা হয়। প্রতি বছরই কালী পুজোর সময় এই মন্দিরগুলিতে প্রচুর ভক্ত সমাগম হয়ে থাকে।

আরও পড়ুন: সেজে উঠছে বর্ধমানের কঙ্কালেশ্বরী কালীমন্দিরকে ঘিরে গড়ে ওঠা পর্যটন কেন্দ্র

আরও পড়ুন: নারায়ণী ব্যাটালিয়ন নিয়ে কোচবিহারে রাজনৈতিক তরজা শুরু

এছাড়াও পটাশপুরের পালপাড়া, প্রতাপদিঘি, বারুইপুর, বড়হাট, সদতপুর, গোপালপুর, খড়ুই কোটবাড়, মুস্তাফাপুর, গোসাড়া, মহিষাদলের সন্দলপুর, টাঠারিবাড়, তমলুকের বল্লুক, সাবলআড়া, নারায়ণদাঁড়িতেও জাঁকজমক সহকারে কালীর পূজা আয়োজিত হয়।

Advertisement