Advertisement
৩০ নভেম্বর ২০২২

শেষ প্রচারে সরগরম কাঁথি

কাঁথি দক্ষিণ বিধানসভা উপ-নির্বাচনের জন্য ভোট প্রচার শেষ হল শুক্রবার। বিকেল পর্যন্ত তাই ঠাসা কর্মসূচি রেখেছিল সব। যার যেখানে খামতি ছিল, তা পূরণ করে নিতে নিতে নানা রঙে ভরে উঠল শেষের প্রচার।

প্রচার: উপরে তৃণমূলের সভায় মুকুল রায়, শিশির অধিকারী, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য ও শুভেন্দু অধিকারী।

প্রচার: উপরে তৃণমূলের সভায় মুকুল রায়, শিশির অধিকারী, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য ও শুভেন্দু অধিকারী।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কাঁথি শেষ আপডেট: ০৮ এপ্রিল ২০১৭ ০১:৩০
Share: Save:

কাঁথি দক্ষিণ বিধানসভা উপ-নির্বাচনের জন্য ভোট প্রচার শেষ হল শুক্রবার। বিকেল পর্যন্ত তাই ঠাসা কর্মসূচি রেখেছিল সব। যার যেখানে খামতি ছিল, তা পূরণ করে নিতে নিতে নানা রঙে ভরে উঠল শেষের প্রচার। নারদ, রামনবমীতে অস্ত্র প্রদর্শন, অর্থলগ্নি সংস্থার এজেন্টদের পরিস্থিত— বাদ গেল না কিছুই।

Advertisement

এ বারের নির্বাচনে কংগ্রেস এবং তৃণমূল দু’দলের প্রার্থীই পেশায় আইনজীবী। অনেক আগেই কাঁথি আদালতের আইনজীবীদের নিয়ে প্রচারপর্ব চালিয়েছেন তৃণমূল প্রার্থী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। এমনকী বাদ যাননি বিজেপি প্রার্থী সৌরীন্দ্রমোহন জানাও। কাঁথি আদালতের ক্রিমিনাল ও সিভিল বার অ্যাসোসিয়েশনে ভোট প্রচার করে গিয়েছেন। দেখা মেলেনি কংগ্রেস প্রার্থী নবকুমার নন্দর। অথচ এই আদালতই তাঁর কর্মস্থল। তাই শেষ দিনে দুই বার অ্যাসোসিয়েশনে গিয়ে প্রচার সারলেন তিনি। দলের মহকুমা সভাপতি গঙ্গারাম মিশ্রকে নিয়ে কাঁথি শহরের দোকানগুলিতেও যান।

প্রচারে ছিলেন বাম প্রার্থীও। এর আগেই ফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু তাঁদের প্রার্থী উত্তম দাসের হয়ে প্রচার সেরে গিয়েছে। শুক্রবার এসেছিলেন সিপিএম বিধায়ক ও রাজ্যের বিরোধী দলনেতা সুজন চক্রবর্তী। কিন্তু এ দিন তিনি পথে হাঁটলেন ‘আমানতকারী ও এজেন্ট সুরক্ষা মঞ্চ’-এর ব্যানার নিয়ে।

Advertisement

বার অ্যাসোসিয়েশনে কংগ্রেস প্রার্থী নবকুমার নন্দ (হলুদ শার্ট)। নিজস্ব চিত্র

ভোট টানতে এটা কি নতুন কৌশল?

সুজনবাবুর দাবি, “অনেক আগে থেকেই এই কর্মসূচি ছিল। করতে পারিনি। তাই আজ করলাম। আর ভোটের সময় মানুষকে সারদা কাণ্ড মানে করিয়ে দিতে এই পদযাত্রা ভালোই হলো।’’ এ দিন সকালে কাঁথি রূপশ্রী বাইপাসে এই পদযাত্রা শুরু হয়। শেষ হয় সেন্ট্রাল বাস স্ট্যান্ডে।

তবে জনসমাগম আর সব শ্রেণির মানুষের উন্মাদনা যদি মাপকাঠি হয় তবে শেষদিনের প্রচারে সব দলকে টেক্কা দিল শাসক তৃণমুল।

কাঁথির যে কোনও নির্বাচনে তৃণমুল শেষ প্রচার সভা করে দারুয়ার কারবালা ময়দানে। উপ-নির্বাচনেও তার ব্যতিক্রম হল না। মুকুল রায়-সহ দলের তাবড় নেতাকে নিয়ে সমাবেশ হয়। স্থানীয় এক নেতা বললেন, বিশাল পদযাত্রা করে শাসকদল শুক্রবার বুঝিয়ে দিল, দক্ষিণ কাঁথি তৃণমূলের গড়।

এ দিন কাঁথি আউটডোর মোড় থেকে দারুয়া পর্যন্ত পদযাত্রার শেষে পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “বিরোধী বিজেপি বহিরাগতদের এনে গত কয়েকদিন ধরে কাঁথির বুকে লম্ফ ঝম্ফ করেছে। শুক্রবার বিকাল ৬ টার পর তারা চলে যাবে। অথচ বিজেপি বা বিরোধী দলগুলোর ২৫৮টি বুথে পোলিং এজেন্ট দেওয়ার মতো লোক নাই।’’ তাঁর দাবি, ৯ এপ্রিল তৃণমূল প্রার্থীকে উৎসবের আমেজে ভোট দিয়ে বিরোধীদের ভো কাট্টা করে
দেবে কাঁথি।

ওই মঞ্চ থেকে মানস ভুঁইয়া এখানকার কংগ্রেস প্রার্থীকে আবেদন জানান প্রার্থী পদ প্রত্যাহার করে তৃণমূলের উন্নয়নে সামিল হওয়ার জন্য। সাংসদ মুকুল রায় ও শিশির অধিকারী বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণ শানান। উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী
সৌমেন মহাপাত্র, সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী, কাঁথির পুরপ্রধান সৌমেন্দু অধিকারী।

কাঁথির সেন্ট্রাল বাসস্ট্যান্ডে নির্বাচনী সভা করে বিজেপিও। সেখানে কৈলাস বিজয়বর্গীয় ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক দিলীপ ঘোষ, বিজেপির রাজ্য সম্পাদক বিশ্বপ্রিয় রায় চৌধুরী।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.