×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ জুন ২০২১ ই-পেপার

চার্জশিট পেশ বিষমদ কাণ্ডে

নিজস্ব সংবাদদাতা
শান্তিপুর ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ০১:৩৬
কান্নায় ভেঙে পড়েছেন মৃতদের পরিবারের লোকজন।—ফাইল চিত্র।

কান্নায় ভেঙে পড়েছেন মৃতদের পরিবারের লোকজন।—ফাইল চিত্র।

বিষ মদ-কাণ্ডে ১৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দিল সিআইডি। শনিবার রানাঘাট মহকুমা আদালতে তারা চার্জশিট জমা দেয়। উল্লেখ্য, গত ২৮ নভেম্বর শান্তিপুর থানার হরিপুর পঞ্চায়েতের চৌধুরীপাড়া গ্রামে বিষ মদ খেয়ে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, চার্জশিটে অভিযুক্ত হিসাবে জয়ন্তী মাহাতো, গুচিয়া মাহাতো, অশোক প্রামাণিক, সাধন বিশ্বাস, গণেশ হালদার, সুশীল প্রামাণিক, উত্তম মাহাতো, জয়দেব সাঁতরা, মহাদেব সাঁতরা, গদাই সাঁতরা, সুখেন দাস, কালীপদ পাল ও জীবনকৃষ্ণ পালের নাম রয়েছে। এদের মধ্যে অশোক পলাতক। বাকিরা বর্তমানে জেল হেফাজতে রয়েছে।

প্রায় তিন মাস আগের সেই ঘটনায় তোলপাড় হয়েছিল রাজ্য। সাসপেন্ড হন আবগারি দফতরের একাধিক কর্মী। সরিয়ে দেওয়া হয় শান্তিপুর থানার ওসিকে। মৃতদের মধ্যে এক মহিলাও ছিলেন। অসুস্থ হয়ে কালনা এবং শান্তিপুরের হাসপাতালে ভর্তি হন অনেকে। চৌধুরী পাড়ার বাসিন্দা এক মদ বিক্রেতা চন্দন মাহাতোর থেকে তাঁরা সে দিন মদ কিনে মদ্যপান করেন বলে মৃতদের পরিবারের তরফে দাবি করা হয়। সে দিন সেই বিষ মদ পান করেছিলেন চন্দনও। পরে কল্যাণীর হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁরও। পরে চৌধুরী পাড়ার বাসিন্দা বিশু মাহাতো এই ঘটনায় শান্তিপুর থানায় এক‌টি অভিযোগ দায়ের করেন। প্রাথমিক ভাবে শান্তিপুর থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করে। পরে তদন্তের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয় সিআইডির হাতে। এর কিছু দিনের মধ্যে অশোক বাদে বাকিরা ধরা পড়ে। এ দিন সেই ঘটনায় চার্জশিট দিল সিআইডি। এর মধ্যে ধৃতেরা বেশ কয়েকবার জামিনের আবেদন জানিয়েছে। কিন্তু তাদের জামিনের আবেদন খারিজ হয়ে গিয়েছে। মামলার সরকারি আইনজীবী অপূর্ব ভদ্র বলেন, “সিআইডি তদন্তভার নেওয়ার পরে দ্রুত চার্জশিট জমা দিয়েছে।’’ তিনি জানান, ময়নাতদন্ত এবং ফরেন্সিক রিপোর্ট অনুযায়ী, মৃতদের দেহে মিথাইল পাওয়া গিয়েছে। তাঁর দাবি, এটা বিষাক্ত মদই। অপরাধের মাত্রার বিচারে এটা বড় অপরাধ। আগে থেকেই এই ঘটনায় দোষীদের কঠোর শাস্তি দাবি করে এসেছে চৌধুরী পাড়া। চার্জশিট পেশের পরে চৌধুরী পাড়ার বাসিন্দা বিশ্বেশ্বর মাহাতো বলেন, ‘‘চার্জশিট যখন পেশ হয়েছে তখন আমরা আশাবাদী, দ্রুত বিচারও মিলবে। এতগুলো প্রাণ চলে গিয়েছে। দোষীদের কঠোর শাস্তি হোক।’

Advertisement
Advertisement