Advertisement
২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Goutam Deb

অবৈধ নির্মাণ নয়, মেয়র কড়া বার্তা দিলেন ব্যবসায়ীদের

মঙ্গলবার হকার্স কর্নারে একটি দোকানের উপরে অবৈধ নির্মাণ ভাঙতে গিয়ে ব্যবসায়ীদের বাধার মুখে পড়তে হয় পুরসভার কর্মীদের।

Sourced by the ABP

শুভঙ্কর পাল
শিলিগুড়ি শেষ আপডেট: ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ ০৯:০৬
Share: Save:

নিজেদের ‘ইচ্ছে মতো অবৈধ ভাবে’ নির্মাণ করা যাবে না। দোকানে কোনও নির্মাণের জন্য অনুমতি নিতে হবে পুরসভার। বৃহস্পতিবার হকার্স কর্নার ও নিবেদিতা মার্কেটের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনায় বসে ব্যবসায়ীদের এমনই বার্তা দিয়েছেন শিলিগুড়ি পুরসভার মেয়র গৌতম দেব। কয়েক দিনের মধ্যে মেয়র ও ডেপুটি মেয়র দুই বাজার পরিদর্শনে যাবেন। বৃহস্পতিবারের আলোচনায় হকার্স কর্নার ব্যবসায়ী সমিতি, নিবেদিতা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতি ছাড়াও, শিলিগুড়ি বৃহত্তর খুচরো ব্যবসায়ী সমিতির কর্মকর্তারাও ছিলেন।

মঙ্গলবার হকার্স কর্নারে একটি দোকানের উপরে অবৈধ নির্মাণ ভাঙতে গিয়ে ব্যবসায়ীদের বাধার মুখে পড়তে হয় পুরসভার কর্মীদের। এর পরে, বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দেন ব্যবসায়ীরা। বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্যবসায়ীদের পুরসভায় আলোচনার জন্য ডাকা হয়েছিল। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে চলে আলোচনা। অবৈধ নির্মাণ ছাড়াও, হকার্স কর্নারে ‘শিলিগুড়ি জলপাইগুড়ি উন্নয়ন সংস্থা’ (এসজেডিএ)-র জমিতে পার্কিং ব্যবস্থা নিয়েও আলোচনা হয়েছে। মেয়র বলেন, “ব্যবসায়ীদের বলা হয়েছে, অবৈধ নির্মাণ করা যাবে না। হকার্স কর্নারে কিছু দোকানের উপরে গুদাম ঘর বানানো হয়েছে। যেগুলির উচ্চতা কমানোর কথাও বলা হয়েছে। কোনও নির্মাণ করতে হলে, পুরসভার কাছে অনুমতি নিতে হবে। কিছুদিনের মধ্যেই দুটি বাজার পরিদর্শনে যাব।”

শিলিগুড়ি বৃহত্তর খুচরো ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি পরিমল মিত্র বলেন, “খুব ভাল আলোচনা হয়েছে। বাজারে দোকানগুলির উপরে জিনিস রাখার জন্য গুদাম বানানো হয়েছে। পুরসভার তরফে কিছু নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই নির্দেশগুলি মানা হবে।”

অন্য দিকে, এ দিন ১১ নম্বর ওয়ার্ডে ক্ষুদিরামপল্লিতে একটি বাড়িতে অবৈধ নির্মাণ ভেঙেছে পুরসভা। তিন তলা বাড়িটির ছাদে পুরসভার অনুমতি না নিয়েই টিনের ছাউনি দেওয়া হয়েছিল। এ ছাড়া বাড়ির নীচে অবৈধ ভাবে শৌচালয় তৈরি করা হয়েছিল। সেগুলি ভেঙে দেওয়া হয়। ওই বাড়িটির উপরের দুটি তলায় প্রচুর ওষুধ ও চিকিৎসার সরঞ্জাম মজুত রাখা হয়েছিল। বাণিজ্যিক ভাবে বাড়িটি ব্যবহার করা হচ্ছিল। এ দিন পুরসভার নির্দেশে উপরের ঘরগুলি ফাঁকা করা হয়। নির্মাণ ভাঙার খবর পেয়ে সেখানে যান বেঙ্গল কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বিজয় গুপ্ত। তিনি বলেন, “ক্ষুদিরামপল্লিতে প্রচুর ওষুধের দোকান রয়েছে। এ দিন পুরসভা অবৈধ নির্মাণ ভাঙায় আরও কয়েক জন আতঙ্কিত হয়ে যান। তবে পুরসভার কাজে সহযোগিতা করা হয়েছে।”

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE